বাংলাদেশে বাকস্বাধীনতা প্রসঙ্গে দুই সম্পাদক যা বললেন

সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার নানা দিক নিয়ে ডয়চে ভেলের বাংলা বিভাগের ফেসবুক লাইভে খোলামেলা কথা বলেছেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী এবং নিউএজ পত্রিকার সম্পাদক নুরুল কবির৷

বাংলাদেশে গণমাধ্যম কতটা স্বাধীন, এই স্বাধীনতা সাংবাদিকরা কতটা কাজে লাগাতে পারেন – এমন প্রশ্ন নানা মহলে, নানাভাবে প্রায়ই আলোচিত হয়৷ ডয়চে ভেলের জাহিদুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ফেসবুক লাইভে এ সব প্রসঙ্গই উঠে আসে৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

ডয়চে ভেলের আয়োজনে অনুষ্ঠানরত ‘গ্লোবাল মিডিয়া ফোরাম'-এ অংশ নিতে জার্মানির বন শহরে এসেছেন তৌফিক ইমরোজ খালিদী এবং নুরুল কবির৷ মিডিয়া ফোরামের কর্মসূচির অংশ হিসাবে বিকালে দৃষ্টিনন্দন রাইন নদীতে একটি রিভার ক্রুজে অংশ নেন তাঁরা৷ সেখান থেকেই প্রচার করা হয় দেশের প্রথিতযশা দুই সম্পাদকের সুদীর্ঘ আলোচনা৷

সম্পাদনার টেবিলে বসলে চাপ অনুভব করেন কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তৌফিক ইমরোজ খালিদী বলেন, ‘‘পেশাদারিত্বের চাপ অনুভব করি, যেন মানুষকে সঠিকভাবে তথ্য পরিবেশন করতে পারি৷''

সরকার বা অন্য কোনো পক্ষ থেকে চাপ রয়েছে কিনা, এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘সব সরকারই চাপ দিতে চায়৷ বাংলাদেশ সরকার থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, সব সরকারই চাপ দেন৷''

কারণ হিসাবে তিনি জানান, সব সরকারই তাদের খারাপ খবরগুলো ছাপা না হোক, সেটা চায়৷

এ রকম চাপ সাংবাদিকরা কীভাবে অতিক্রম করতে পারেন, সে বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলেন তিনি৷

তৌফিক ইমরোজ খালিদীর সঙ্গে সহমত পোষণ করে নুরুল কবির যোগ করেন, ‘‘একটা দেশের সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা সেই দেশের রাজনৈতিক ব্যবস্থার উপর নির্ভর করে৷''

এই প্রশ্নে তিনি বাংলাদেশের সরকারব্যবস্থার সাংবিধানিক কাঠামো, ক্ষমতাসীন দল এবং সংসদের বাইরে থাকা প্রধান বিরোধী দলের সমালোচনা করেন৷

ঘুরে ফিরে আলোচনায় আসে ৫৭ ধারার প্রসঙ্গও৷ এটা নিয়ে অত্যন্ত খোলামেলা মতামত দেন এই দুই সম্পাদক৷ এই ধারার অপপ্রয়োগ থেকে বাঁচতে সাংবাদিকরা কী করতে পারেন, এটা বাতিল হলে পরবর্তীতে কী হবে– আলোচনা হয় সে প্রসঙ্গেও৷

আলোচনার মাঝে নেয়া হয় দর্শকদের প্রশ্নও৷ সেসব প্রশ্নের জবাবও দেয়া হয়৷

দেশ নিয়ে আলোচনা করতে করতে শেষের দিকে তাঁরা রাইন নদী নিয়েও কথা বলেন৷ এক পর্যায়ে উঠে আসে বাংলাদেশের বুড়িগঙ্গার সঙ্গে রাইন নদীর তুলনা৷

শাম্মী হক, অ্যাক্টিভিস্ট, বাংলাদেশ

‘‘বাংলাদেশের মানুষ তাদের মনের কথা বলতে পারেন না৷ সেখানে কোনো বাকস্বাধীনতা নেই এবং প্রতিদিন পরিস্থিতি খারাপের দিকেই যাচ্ছে৷ একজন সামাজিক অ্যাক্টিভিস্ট এবং ব্লগার হিসেবে আমি ধর্ম নিয়ে লেখালেখি করি, যা ইসলামিস্টরা পছন্দ করেনা৷ তারা ইতোমধ্যে ছয় ব্লগারকে হত্যা করেছে৷ ফলে আমি দেশ ছাড়তে বাধ্য হই৷’’

নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, ভেনেজুয়েলা

‘‘বাকস্বাধীনতা হচ্ছে এমন এক ধারণা যার অস্তিত্ব আমার দেশে নেই৷ সাংবাদিকরা জরিমানা আর নিজের জীবনের উপর ঝুঁকি এড়াতে সরকারের সমালোচনা করতে চায়না৷ সরকারের সমালোচনা করলে সাংবাদিকদের বিচারের মুখোমুখি হতে হয়৷ এরকম পরিস্থিতির কারণে অনেক সাংবাদিক দেশ ছেড়ে চলে গেছেন৷ দেশটির আশি শতাংশ গণমাধ্যমের মালিক সরকার, তাই সাধারণ মানুষের মত প্রকাশের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া৷’’

রোমান দবরোখটভ এবং একাতেরিনা কুজনেটসোভা, সাংবাদিক, রাশিয়া

রোমান: ‘‘রাশিয়ায় সরকার আপনাকে সেন্সর করবে৷ আমাদের ওয়েবসাইটটি ছোট এবং লাটভিয়ায় নিবন্ধিত৷ ফলে আমি সেন্সরশিপ এড়াতে পারছি৷ তা সত্ত্বেও সরকার মাঝে মাঝে আমাদের সার্ভারে হামলা চালায়৷’’ একাতেরিনা: ‘‘রাশিয়ায় বাকস্বাধীনতার কোনো অস্তিত্ব নেই৷ ইউরোপের মানুষ রাজনীতিবিদদের সমালোচনা করার ক্ষেত্রে স্বাধীন৷ আমি আশা করছি, রাশিয়ার পরিস্থিতিও বদলে যাবে৷’’

নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, সিরিয়া

‘‘বেশ কয়েক বছর ধরেই সিরিয়ায় বাকস্বাধীনতার কোনো অস্তিত্ব নেই৷ এমনকি আসাদের শাসনামল সম্পর্কে অনুমতি ছাড়া মতামতও প্রকাশ করা যায়না৷ এটা নিষিদ্ধ৷ কেউ যদি সেই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে তাহলে খুন হতে পারে৷ আমি যদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনামূলক কিছু লিখি, তাহলে বেশিদিন বাঁচতে পারবো না৷’’

আয়েশা হাসান, সাংবাদিক, পাকিস্তান

‘‘পাকিস্তানে ‘গণমাধ্যমের স্বাধীনতা’ শব্দ দু’টি খুবই বিপজ্জনক৷ এগুলোর ব্যবহার আপনার ক্যারিয়ার বা জীবন শেষ করে দিতে পারে৷’’

রাবা বেন দউখান, রেডিও সাংবাদিক, টিউনিশিয়া

‘‘আমাদের অভ্যুত্থানের একমাত্র ফল হচ্ছে বাকস্বাধীনতা৷ আমরা এখন আমাদের সরকারের সমালোচনা করার ব্যাপারে স্বাধীন৷ এবং আমি যখন আমাদের অঞ্চলের অন্য দেশের বাসিন্দাদের বাকস্বাধীনতার কথা জিজ্ঞাসা করি, তখন একটা বড় ব্যবধান দেখতে পাই৷ আমাদের দেশে দুর্নীতিসহ নানা সমস্যা আছে সত্যি, তবে বাকস্বাধীনতা কোনো সমস্যা নয়৷’’

খুসাল আসেফি, রেডিও ম্যানেজার, আফগানিস্তান

‘‘বাকস্বাধীনতা আফগানিস্তানে একটি ‘সফট গান৷’ এটা হচ্ছে মানুষের মতামত, যা সম্পর্কে সরকার ভীত৷ এটা চ্যালেঞ্জিং হলেও আমাদের প্রতিবেশীদের তুলনায় আমাদের অবস্থা ভালো৷’’

সেলিম সেলিম, সাংবাদিক, ফিলিস্তিন

‘‘ফিলিস্তিনে সাংবাদিকদের খুব বেশি স্বাধীনতা নেই৷ একটা বড় সমস্যা হচ্ছে, সাংবাদিকরা মুক্তভাবে ঘোরাফেরা করতে পারে না৷ ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের গ্রেপ্তার করছে৷ তারা যদি ফেসবুকে তাদের মতামত জানায়, তাহলেও সরকার গ্রেপ্তার করে৷ তবে সিরিয়া বা ইরাকের চেয়ে অবস্থা ভালো৷’’

অনন্য আজাদ, লেখক, বাংলাদেশ

‘‘আমাদের দেশে কোনো বাকস্বাধীনতা নেই৷ আপনি ইসলাম বা সরকারের সমালোচনা করে কিছু বলতে পারবেন না৷ ইসলামী মৌলবাদীরা ঘোষণা দিয়েছে, কেউ যদি ইসলামের সমালোচনা করে, তাহলে তাকে হত্যা করা হবে৷ আমি একজন সাংবাদিক এবং গত বছর আমাকে ইসলামিস্ট জঙ্গিরা হত্যার হুমকি দিয়েছে৷ ফলে আমাকে দেশ থেকে পালাতে হয়েছে৷’’

এনএস/এসিবি

এ বিষয়ে আপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়