বাদামি ছাতা ও এক রোহিঙ্গা পরিবারের সংগ্রাম

সমাজ

আগতদের ছায়া দেয়া

বাদামি ছাতা হাতে ছেলেটির নাম নূর হাফেস৷ বয়স মাত্র ১২৷ দুই মাসেরও বেশি সময় আগে ছোট সাত ভাই-বোন ও মায়ের সঙ্গে বাংলাদেশে পালিয়ে যায় সে৷ এই বাদামি ছাতার সঙ্গে আগতদের আশ্রয় দিয়ে কিছু অর্থ উপার্জন করে নূর হাফেস৷

সমাজ

পরিবারকে সহায়তা

বাদামি ছাতার তলে একজনকে আশ্রয় দিয়ে তাঁর কাছ থেকে পাওয়া ৫০ টাকা দেখাচ্ছে নূর হাফেস৷ এর বাইরে ইমামদের কাছ থেকেও মাঝেমধ্যে টাকা পায় সে৷ রোহিঙ্গাদের জন্য বিভিন্ন মসজিদে মুসল্লিদের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করে সেগুলো রোহিঙ্গাদের মাঝে বিতরণ করেন ইমামরা৷ বাবা না থাকায় ১২ বছরের নূর হাফেসই এখন তার পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি৷

সমাজ

বাবার খবর নেই

হাফেসদের বাড়ি ছিল মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংদুর থারায় কোন ইয়ো ডান গ্রামে৷ সেনাবাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে কিছু বুঝে উঠতে না পেরে নূর হাফেসের বাবা কোথাও চলে যায়৷ এরপর থেকে বাবার আর খবর নেই৷

সমাজ

স্বামী ছাড়াই বাংলাদেশে পাড়ি

স্বামীর খোঁজ না পেয়ে জীবন বাঁচাতে হাফেস সহ আট সন্তানকে নিয়ে নৌকা করে বাংলাদেশে পালিয়ে যান রাবিয়া খাতুন৷ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে তিনি মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংসতার কথা শুনিয়েছেন৷ এখন তারা আছে কক্সবাজারের পালং খালি শরণার্থী শিবিরে৷

সমাজ

ঘরবাড়ি পোড়ানো

রাবিয়া খাতুন বলেন, ‘‘ঘরের ভেতর মানুষ রেখে বাইরে থেকে সেখানে আগুন ধরিয়ে দেয় মিয়ানমার সেনাবাহিনী৷’’ তিনি বলেন, অনেক মানুষকে তিনি গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দেখেছেন৷ আর ঘর জ্বলতে দেখে মানুষের চিৎকার শুনেছেন৷ ছবিতে বড় ছেলে নূর হাফেসের মাথা আঁচড়িয়ে দিচ্ছেন রাবিয়া খাতুন৷

সমাজ

বাবার বাড়ি পালানো

নিজের গ্রামে সেনাবাহিনীর তাণ্ডব দেখে কিছু জরুরি জিনিস সঙ্গে নিয়ে বাবার বাড়ি পালিয়ে গিয়েছিলেন রাবিয়া খাতুন৷ কিন্তু পরের দিনই সেখানে আবার সেনাবাহিনীর উপস্থিতি দেখতে পান৷ তখন আর কোনো উপায় না দেখে বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন তিনি৷ ছবিতে আট মাসের শিশুকন্যা ফাতেমা রাজিয়াকে গোসল করাতে দেখা যাচ্ছে৷

সমাজ

বাবাকে সহায়তা করত হাফেস

মিয়ানমারে থাকার সময় পাইকারি বাজার থেকে বাবার কিনে আনা পণ্য স্থানীয় গ্রামে বিক্রি করত নূর হাফেস৷ বাংলাদেশে গিয়েও সেরকম কিছু করতে চায় সে৷ কারণ বাবা না থাকায় ছোট ভাই-বোনের কথা ভাবতে হচ্ছে তাকে৷ আট ভাই-বোনের মধ্যে ছ’জনের বয়সই দশের নীচে৷ ছবিতে হাফেসকে মাছ বিক্রি করতে দেখা যাচ্ছে৷

সমাজ

শিশুর মতো আচরণ নয়

হাফেসের মা বলছেন, তিনি জানেন তাঁর ছেলে এখনও ছোট৷ কিন্তু এখনই সে তার দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন বলে জানায় রাবিয়া খাতুন৷ ‘‘এখন সে শিশুর মতো আচরণ করে না’’, বলেন তিনি৷

সমাজ

স্কুল আর ফুটবল

ভাগ্যের ফেরে ১২ বছর বয়সেই জীবন সংগ্রামে নামতে বাধ্য হয়েছে নূর হাফেস৷ ছবিতে সাদা শার্ট পরিহিত হাফেসকে ত্রাণের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যাচ্ছে৷ অবশ্য এখনও বন্ধুদের সঙ্গে স্কুলে যাওয়া আর ফুটবল খেলার স্বপ্ন দেখে সে৷ রয়টার্সের প্রতিবেদককে অন্তত সেই কথাই জানিয়েছে নূর হাফেস৷

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে নূর হাফেস ও তাঁর পরিবার৷ ১২ বছরের হাফেস এখন তার পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি৷