ব্যঙ্গচিত্রে জার্মান নির্বাচন

আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে জার্মান নির্বাচন পর্যাপ্ত গুরুত্ব পেয়েছে৷ আঙ্গেলা ম্যার্কেলের জয়ের মতোই কট্টর দক্ষিণপন্থি এএফডি দলের উত্থানও দেশ-বিদেশের কার্টুনিস্টদের নজর এড়ায়নি, যদিও ব্যঙ্গের সঙ্গে মিশেছে কিছুটা দুশ্চিন্তা৷

‘জার্মানির জন্য বিকল্প’ বা এএফডি দলের নির্বাচনি সাফল্য যেমন জার্মানিতে, তেমনই বহির্বিশ্বে সকলকে সচকিত করেছে৷ এ ধরনের একটি কট্টর দক্ষিণপন্থি দল জার্মান সংসদে আসন গ্রহণ করতে চলেছে ঠিক তখন, যখন ম্যার্কেলের সিডিইউ-সিএসইউ দল বিপুল ভোট হারিয়ে মাত্র ৩৩ শতাংশে নেমে গেছে৷ জার্মানির অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে যা একটি ভূমিকম্প বিশেষ, বহির্বিশ্বে তা স্বভাবতই চিন্তার বিষয়, কেননা, জাতীয়তাবাদ জার্মানির ইতিহাসে এক অন্য স্বাক্ষর রেখে গেছে৷ অধিকাংশ কার্টুনিস্টের কাছে জার্মান নির্বাচনের পর চ্যান্সেলর ম্যার্কেল একটি বারুদের পিপের উপর বসে আছেন, যে পিপেটির নাম হলো এএফডি৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

অস্ট্রেলিয়ার কার্টুনিস্ট ডেভিড রো ‘অস্ট্রেলিয়ান ফাইন্যান্সিয়াল রিভিউ’-এর জন্য যে কার্টুনটি এঁকেছেন, তাতে ম্যার্কেল তাঁর ড্রেসিং টেবিলে বসে নিজের হিটলারি গোঁফ ঠিক করছেন! ইঙ্গিত: এএফডি-র সাফল্যের ফলে ম্যার্কেলকে এবার আরো বেশি দক্ষিণপন্থি হতে হবে

ভিয়েনার কার্টুনিস্ট মারিয়ান কামেনস্কি'র ব্যঙ্গচিত্রে জার্মান সংসদীয় নির্বাচনের তিন বিজয়ীকে দেখানো হয়েছে: মাঝে প্রথম স্থানে ম্যার্কেল, তাঁর ডানদিকে দ্বিতীয় স্থানে মার্টিন শুলৎস – কিন্তু তৃতীয় স্থানে একটি নাৎসি স্বস্তিকার উপর দাঁড়িয়ে রয়েছেন এএফডি দলের আলেক্সান্ডার গাউলান্ড, যিনি সকলের মাথা ছাড়িয়ে গেছেন৷

প্রখ্যাত ইটালীয় ব্যঙ্গচিত্রশিল্পী পাওলো লম্বার্দি-র কার্টুনে জার্মানির এক ইহুদি বাসিন্দা ‘জার্মানির জন্য বিকল্পের’ পতাকা দেখে ভাবছেন, ‘আমার বিকল্প হলো ইসরায়েল৷’

‘পেনিওয়াইজ’ নামের এক কার্টুনিস্টের কল্পনায় এএফডি হলো স্টিফেন কিং-এর ‘ইট' উপন্যাসের সেই অভিশপ্ত ভাঁড়...

জার্মান রূপকথার এক নামকরা চরিত্র সেই রাজকন্যা, সাতপুরুষ তোষকের নীচে একটি কড়াইশুঁটি থাকলেও যার ঘুম হতো না৷ জার্মানির রাজনৈতিক ব্যঙ্গচিত্রশিল্পী হাইকো সাকুরাই-এর কার্টুনে ম্যার্কেল হয়েছেন সেই দুলালি রাজকন্যা, আর কড়াইশুঁটি হয়েছে এএফডি নামের একটি বোমা!

গ্রিক ব্যঙ্গচিত্রশিল্পী তাসোস আনাস্তাসিউ-এর কার্টুনে নির্বাচনের দিন খবর পড়ছেন এক নিউজরিডার, ‘‘জার্মান নির্বাচন হলো একই ধরণের রাজনীতির দু'টি দলের সংঘাত, যার শেষে ম্যার্কেল সব সময় জেতেন৷’’

ব্যাংককের এক কার্টুনিস্টের দৃষ্টিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যাতে উত্তর কোরিয়ায় কিছু একটা বাঁধিয়ে না ফেলেন, সেটা নিশ্চিত করার জন্যই জার্মান নির্বাচন ও ম্যার্কেলের প্রয়োজন৷

সবশেষে কনস্টান্টিন সানাকাসের একটি কার্টুন, যিনি ‘ডিনো’ নামে আঁকেন৷ নির্বাচনে ম্যার্কেলের জয় হয়েছে ঠিকই, কিন্তু তাঁর পায়ের তলায় করাত দিয়ে নাৎসি স্বস্তিকা চিহ্নের আকারে জমি কেটে নেওয়া হচ্ছে৷

স্টুয়ার্ট ব্রাউন/এসি

প্রিয় পাঠক, কোন কার্টুনটি ভাল লাগলো জানাতে পারেন নীচে মন্তব্যের ঘরে...

ডিজিটাল বিশ্ব

‘কোল গার্ল’ যখন গুরুকে ছাড়লেন

দীর্ঘদিন চ্যান্সেলর পদে থাকে হেলমুট কোল ম্যার্কেলকে মন্ত্রিসভায় প্রথম সুযোগ দিয়েছেন এবং তাঁর উত্থানে সহায়তা করেছিলেন৷ কিন্তু ১৯৯৮ সালে চ্যান্সেলর পদ হারানোর পর ম্যার্কেল এবং সিডিইউ তাঁর বিপক্ষে চলে যায়৷ কোল কিছু সূত্র থেকে নগদ অর্থ সাহায্য নিয়েছিলেন৷ কিন্তু সে সব সূত্রের বিস্তারিত তিনি জানাননি যা দলের জন্য ক্ষতিকর বলে মন্তব্য করেছিলেন সেসময় সিডিইউ’র সাধারণ সম্পাদক আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

ডিজিটাল বিশ্ব

গেয়ারহার্ড শ্র্যোডার – রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের সমাপ্তি

২০০৫ সালের নির্বাচনে এসপিডি’র চ্যান্সেলর শ্র্যোডারকে পরাস্ত করেন ম্যার্কেল৷ তবে এই পরাজয়ে শ্র্যোডারের নিজের দাম্ভিকতাও কিছুটা ভূমিকা রেখেছিল৷ সেই নির্বাচনে খুব অল্প ব্যবধানে সিডিইউ’র কাছে হেরে যায় এসপিডি৷ যদিও নির্বাচনের আগে টিভি বিতর্কে তিনি দাবি করেছিলেন, যে জার্মানরা চায় তিনি ক্ষমতায় থাকুন৷ কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি এবং তিনি রাজনীতি থেকে বিদায় নেন৷

ডিজিটাল বিশ্ব

ফ্রাঙ্ক-ভাল্টার স্টাইনমায়ার - দীর্ঘদিনের সঙ্গী

শুরুতে ম্যার্কেলের অধীনে চারবছর পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন ফ্রাঙ্ক-ভাল্টার স্টাইনমায়ার৷ এরপর ২০০৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে তাঁকে চ্যালেঞ্জ করেন সামাজিক গণতন্ত্রীদের এই রাজনীতিবিদ৷ কিন্তু সেই নির্বাচনে সুবিধা করতে পারেনি স্টাইনমায়ারের দল৷ পরবর্তীতে ২০১৩ সালে আবারো ম্যার্কেলের অধীনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হন স্টাইনমায়ার৷ আর চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে তিনি জার্মানির প্রেসিডেন্ট৷

ডিজিটাল বিশ্ব

গ্যুন্টার ও্যটিঙার - পথের কাঁটা দূর হলো

ম্যার্কেল যে শুধু তাঁর সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দেন এমন নয়৷ বরং নিজের দলে থাকা সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের লোভনীয় অন্য কোন পদেও পাঠিয়ে দেন৷ তাঁর সহকর্মী বাডেন-ভ্যুর্টেমব্যার্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী গ্যুন্টার ও্যটিঙারকে ২০১০ সালে তিনি ইউরোপীয় কমিশনে বড় পদে পাঠিয়ে দেন৷ অথচ ও্যটিঙারের সেই পদ পাওয়ার মতো কোনো অভিজ্ঞতাই ছিল না৷

ডিজিটাল বিশ্ব

রোনাল্ড কখ - বাতিলের তালিকায় ফেলে দেয়া

দুই কারণে রোনাল্ড কখ পরিচিত৷ প্রথমত, তিনি দলাই লামার বন্ধু৷ দ্বিতীয়ত, সরকারের দ্বৈত নাগরিকত্ব চালুর পরিকল্পনার বিরুদ্ধে কয়েক মিলিয়ন স্বাক্ষর সংগ্রহের জন্য৷ হেসে রাজ্যের এই রাজ্য প্রধান কখনো ম্যার্কেলের উত্থানে বাধা না হলেও হঠাৎ করেই মনে করেছিলেন তাঁকে বার্লিনে বড় পদের জন্য ডাকা হবে৷ কিন্তু ম্যার্কেলকে তাঁকে সেরকম কোন সুযোগ দেননি৷

ডিজিটাল বিশ্ব

ক্রিস্টিয়ান ভুল্ফ - একজন দুর্ভাগা রাষ্ট্রপতি

ক্রিস্টিয়ান ভুল্ফ প্রেসিডেন্ট হিসেবে ম্যার্কেলের প্রথম পছন্দ ছিলেন না৷ কিন্তু ২০১০ সালে হর্স্ট ক্যোলার পদত্যাগ করার পর সিডিইউ বর্তমান প্রতিরক্ষামন্ত্রী উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েনের ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছাতে না পারায় ভুল্ফ সুযোগ পেয়ে যান৷ ভুল্ফ তখন লোয়ার স্যাক্সনি রাজ্যের রাজ্যপ্রধান৷ পরবর্তীতে অবশ্য দুর্নীতির দায়ে প্রেসিডেন্টের পদ ছাড়তে হয় তাঁকে৷

ডিজিটাল বিশ্ব

পেয়ার স্টাইনব্রুক – সঠিক মানুষ, ভুল সময়

২০১৩ সালে ম্যার্কেল যখন তাঁর ক্যারিয়ারের তুঙ্গে, তখন এসপিডি থেকে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে বেছে নেয়া হয় পেয়ার স্টাইনব্রুক’কে৷ ম্যার্কেলের অধীনে একসময় অর্থমন্ত্রী থাকা এই রাজনীতিবিদের চ্যান্সেলর পদ পাওয়ার সব যোগ্যতাই ছিল৷ কিন্তু সময়টা ঠিক ছিল না৷ ম্যার্কেলের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সুবিধা করতে পারেননি তিনি৷