ভয় যখন মহা অস্ত্র!

এক প্রতিবেদনে ক্রসফায়ার সংক্রান্ত এক মন্তব্য প্রকাশ করে দৈনিক মানবজমিন পত্রিকা৷ সাভারের এমপি ডা. এনামুর রহমান বলেছেন, ‘‘পাঁচজনকে ক্রসফায়ারে দিয়েছি, আরো ১৪ জনের লিস্ট করেছি৷ এখন সব ঠান্ডা৷''

যদিও পুলিশের সংবিধান মনে মানুষের নিরাপত্তা দেয়ার কথা, কোনো এমপির দেয়া তালিকা অনুযায়ী মানুষ হত্যা করার কথা নয়, তবুও বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একজন এমপি-র এমন মন্তব্য বেশ গুরুত্ব বহন করে৷ মানবজমিনে এনামুরের এই মন্তব্য প্রকাশের পর তাঁর নির্বাচনি এলাকায় তীব্র আতঙ্ক তৈরি হয়েছে৷ বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা, তাঁর বিরোধীরা ভয়ে আরো গুটিয়ে গেছেন, কেউ কেউ খোঁজ নিচ্ছেন তালিকায় তার নামে আছে কিনা৷ পরিস্থিতি কতটা উদ্বেগের তা জানা যায়, এনামুরের মন্তব্যের পর তাঁর এলাকার পরিস্থিতি নিয়ে করা দৈনিক প্রথম আলোর প্রতিবেদন পড়লে৷ অনেকে সাংবাদিকদের কাছে দেনদরবার করেছেন এনামুরের তালিকায় তার নিজের বা অন্য কার নাম আছে জানতে৷ 

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

অথচ রানা প্লাজা ধসের পর এই এনামুরের হাসপাতালে চিকিৎসা পেয়েছিলেন অসংখ্য শ্রমিক৷ সেসময় জনগণের কাছের মানুষ হিসেবে দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে পরিচয়

মৃতদেহের পাশে কোনো গুলি ছিল না

পশ্চিম কুনিয়া বাগানবাড়ি, বরিশাল৷ একজন মহিলা দেখতে পেলেন ধানক্ষেতে একটা মৃতদেহ পড়ে আছে৷ ব়্যাবের লোকজন তাদের গাড়ি থেকে গুলি এনে মাটিতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে দিচ্ছে৷ মহিলাটি প্রথম যখন মৃতদেহটা দেখেন তখন সেখানে কোনো গুলি ছিল না৷ আশেপাশে কোনো রক্তও ছিল না৷ ধানক্ষেতে পায়ে মাড়ানোর কোনো চিহ্ন ছিল না৷

আনিস কেন মারা গেল?

আনিসুর রহমান, ছাত্রদলের স্থানীয় এক নেতা৷ রাত আড়াইটার দিকে মোহাম্মদপুর থেকে তাঁকে আটক করা হয়৷ দু’জন প্রতক্ষ্যদর্শী জানান, ব়্যাব ৪-এর একটি দল আনিসের বাসায় তল্লাশি চালায়, কোনো পরোয়ানা বাদেই৷ দু’দিন বাদে সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে আনিস মারা যান৷ ব়্যাবের দুই কর্মকর্তা হাসপাতাল থেকে আনিসের কাগজপত্র সরিয়ে ফেলেছে বলেও জানান এক প্রতক্ষ্যদর্শী৷

ক্রসফায়ারে শেষ মোহাম্মদ

মোহাম্মদ মইনউদ্দিন৷ ও আর নিজাম রোড৷ মেহেদিবাগ৷ পাঁচলাইশ থানা৷ চট্টগ্রাম৷ তাঁর বাড়িতে ফোন করে জানানো হলো তিনি ক্রসফায়ারে মারা গেছেন৷ ব়্যাবের নজরদারিতেই জেনারেল হাসপাতালে তাঁর ময়নাতদন্ত হলো৷ মৃতের পিঠে চারটি গুলির চিহ্ন বাদেও বুকে সাতটা ছোট ফুটো পাওয়া যায়৷

সেন্টুকে নিয়ে যায় ব়্যাব-৩

মো. মশিউল আলম সেন্টু৷ ছাত্রদলের সহসভাপতি৷ আনুমানিক সন্ধ্যে সাতটার দিকে সেন্টুরা রিকশায় করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এ এফ রহমান হল থেকে নীলক্ষেত মোড়ে এলেন৷ ব়্যাব ৩ লেখা একটি সাদা মাইক্রোবাস সেন্টুদের থামার নির্দেশ দিতে দিতে ওদের পেছনে পেছনে আসছিল৷ ব়্যাব কর্মকর্তারা রিকশা আরোহীদের থামিয়ে সেন্টুর বাঁ পায়ে গুলি করে৷ এরপর তোয়ালে দিয়ে চোখ বেঁধে, হাত পিছমোড়া করে গাড়িতে তুলে নিয়ে চলে যায়৷

শরীরে বৈদ্যুতিক শকের দাগ

সুমন আহমেদ মজুমদার ছিলেন যুবলীগের সহসম্পাদক৷ বাড়ি টঙ্গির আমতলীতে৷ এক তরুণসহ সুমনকে চোখ বেঁধে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়৷ এক রেস্তোরাঁয় বসিয়ে তাঁর হাতে একটা খাম ধরিয়ে দিয়ে খুলতে বলা হয়৷ ভেতরে দু’টো ৫০০ টাকার নোট আর একটা সাদা কাগজ৷ তাঁর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ৷ হাসপাতাল রেজিস্ট্রার সুমনের ডান পায়ের গভীর ক্ষত আর সারা গায়ে আঘাতের চিহ্ন দেখে অনুমান করেন, তাঁকে বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়েছিল৷

পেয়েছিলেন ক্ষমতাসীন দলের এই সাংসদ৷ তিনি হয়ে উঠেছিলেন ভালো কাজের এক উপমা৷ অথচ এখন জানা যাচ্ছে সেই এনামুরও নাকি ক্রসফায়ারের নামে বিরোধীদের হত্যা করে এলাকা ঠান্ডা রাখেন! নিজের মুখে স্বীকার করেছেন সেকথা৷ অর্থাৎ তাঁর শক্তি জনতা নয়, ভয়৷

বাংলাদেশে ক্রসফায়ার নিয়ে সমালোচনা হয়েছে অনেক৷ বিশেষ করে ব়্যাবের ক্রসফায়ার নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এত আলোচনা হয়েছে যে, নিরাপত্তা বাহিনীকে হতে হয়েছে একটু কৌশলী৷ তাদের অপেক্ষাকৃত নতুন কৌশল গুম করে দেয়া৷ সাদা পোশাকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় টার্গেটকে৷ এরপর এমনভাবে হত্যা করা হয় যাতে মরদেহ খুঁজে পাওয়া না যায়, কিংবা মাসের পর মাস আটকে রাখা হয় কোন এক গোপন আস্তানায়৷ একসময় ছেড়ে দেয়া হয়৷ 

কিছুদিন আগে সুইডেনের এক সংবাদমাধ্যমে এ সংক্রান্ত এক খবরও প্রকাশ হয়েছিল৷ ব়্যাবের কর্মকর্তা পরিচয়ে একজনের অডিও বক্তব্য প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমটি যেখানে সেই কর্মকর্তা ক্রসফায়ার, গুম কীভাবে করতে হয় তার বিশদ বিবরণ দিয়েছেন৷ এসব খবর সত্যিই ভীতি তৈরি করে৷

Arafatul Islam Kommentarbild App

আরাফাতুল ইসলাম, ডয়চে ভেলে

বাংলাদেশের অবস্থা এখন এমন যে, ভয়ের সংস্কৃতি তৈরিতে সবমহলই সক্রিয়৷ গত কয়েকবছরে বেশ কয়েকজন ধর্মান্ধতার সমালোচক, নাস্তিক ব্লগার, প্রকাশককে হত্যা করেছে উগ্র ইসলামপন্থিরা৷ একেকজনকে হত্যার পর সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে হত্যার কারণও জানিয়েছে৷ ফলে ব্লগারদের মাধ্যমে ইন্টারনেটে মুক্তভাবে মত প্রকাশের যে চর্চা তৈরি হয়েছিল, সেটায় অনেকটাই ভাটা পড়েছে৷ বলা যায়, উগ্র ইসলামপন্থিরা কয়েকজনকে হত্যা করে বাকি অনেককে ‘সেল্ফ সেন্সরশিপ' বেছে নিতে বাধ্য করতে পেরেছে৷ এখন যারা এক আধটু ধর্মের সমালোচনা করে লিখছেন, তাদের অধিকাংশই থাকেন বিদেশে৷

উগ্র ইসলামপন্থি আর নিরাপত্তা বাহিনী – উভয় পক্ষই সাধারণ মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে দমিয়ে রাখতে চাচ্ছে৷ তাদের কাজের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী ক্রসফায়ারের নামে নিরস্ত্র মানুষ হত্যা কিংবা গুমের কথা স্বীকার করে না৷ তবে দেশি, বিদেশি মানবাধিকার সংস্থার বিভিন্ন প্রতিবেদন এবং বিভিন্ন গুমের ঘটনার প্রতক্ষ্যদর্শীদের বয়ান পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, নিরাপত্তা বাহিনী ছাড়া অন্য কারো পক্ষে কাউকে এভাবে তুলে নেয়া সম্ভব নয়৷  

প্রশ্ন হচ্ছে, যখন গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা দুর্বল হয়ে যায়, তখন ভয়ই কি দেশ পরিচালনার মোক্ষম অস্ত্র হয়ে ওঠে?

লিখুন মন্তব্যের ঘরে, জানান আপনার মতামত৷