মহাকাশে মাপজোকের নানা মানদণ্ড

পৃথিবীর বুকে বসে বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের বিশালত্ব সম্পর্কে ধারণা করা সত্যি কঠিন৷ বিশেষ করে বিভিন্ন মহাজাগতিক বস্তুর মধ্যে দূরত্ব মাপা বড় চ্যালেঞ্জ৷ বিজ্ঞানীরা সেই লক্ষ্যে কিছু কৌশল প্রয়োগ করেন৷

মহাকাশে দূরত্ব মাপার উপায় কী? মাইল বা কিলোমিটারের মতো পরিচিত মাপকাঠি দিয়ে আমাদের সৌরজগতে মাপজোক করা সম্ভব নয়৷

গত কয়েক দশকে আমরা সৌরজগতের সীমানার বাইরেও মহাকাশযান পাঠিয়েছি৷ এমনকি পৃথিবীর সবচেয়ে কাছের মহাজাগতিক বস্তু, অর্থাৎ প্রায় ৪ লক্ষ কিলোমিটার দূরে চাঁদের বুকে মানুষ পা রেখেছে৷ প্রায় দেড়শো কোটি কিলোমিটার দূরে শনিগ্রহের সঙ্গে তুলনা করলে সেই দূরত্ব অবশ্য কিছুই নয়৷

কখনো যদি আমাদের সবচেয়ে কাছের সৌরজগতে যেতে হয়, তার জন্য প্রায় ৪০ লক্ষ কোটি কিলোমিটার পাড়ি দিতে হবে৷ সেই দূরত্ব অতিক্রম করতে আলোর প্রায় ৩ বছর সময় লাগবে৷ বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে আলো একই গতিতে এগিয়ে যায়৷ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা তাই সেই সময়কে মানদণ্ড হিসেবে স্থির করেই দূরত্বের বর্ণনা দেন৷

এখন লাইভ
02:48 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 17.04.2019

মহাকাশে মাপজোকের নানা মানদণ্ড

সেইসঙ্গে তথাকথিত ‘প্যারালাক্স' পদ্ধতির মাধ্যমে তাঁরা দূরত্ব মাপেন৷ সে ক্ষেত্রে তাঁরা কোনো বিশেষ নক্ষত্রের কোণ মাপেন৷ ৬ মাস পর আবার নতুন করে সেই মাপ নেওয়া হয়৷ ত্রিকোণমিতির সাহায্যে তাঁরা অঙ্ক কষে পৃথিবী থেকে সেই নক্ষত্রের দূরত্ব নির্ণয় করেন৷ তবে এই প্রক্রিয়া শুধু অপেক্ষাকৃত কাছের অঞ্চলে প্রয়োগ করা সম্ভব৷ অর্থাৎ প্রায় ১৫০ আলোকবর্ষ পর্যন্ত দূরত্বে তা কার্যকর হয়৷

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা মিল্কি ওয়ে ছায়াপথের আয়তন অথবা আমাদের প্রতিবেশী ছায়াপথের সঙ্গে দূরত্ব মাপতে চাইলে অন্য মাপকাঠির প্রয়োজন হয়৷ তার পোশাকি নাম ‘সেফাইড' – অর্থাৎ যে সব নক্ষত্রের মিটমিটে আলোর বিকিরণের সঠিক পরিমাণ জানা আছে, সেগুলিই মাপকাঠি হয়ে ওঠে৷ সেগুলিকে মান নির্ণায়ক মোমবাতিও বলা হয়৷ ‘সেফাইড' থেকে যে পরিমাণ আলো টেলিস্কোপে ধরা পড়ে, তা বিচার করে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা দূরত্ব মাপতে পারেন৷ নির্দিষ্ট ধরনের বিস্ফোরণরত নক্ষত্র আরও উজ্জ্বল মান নির্ণায়ক মোমবাতি৷

মহাকাশে হাবল টেলিস্কোপে দৃশ্যমান ব্রহ্মাণ্ডের প্রান্ত পর্যন্ত আলোর এই সব উৎস ধরা পড়ে৷ একটি ছবিতে এমন সব গ্যালাক্সি দেখা যাচ্ছে, যেগুলি পৃথিবী থেকে প্রায় ১,৩০০ কোটি আলোকবর্ষ দূরে রয়েছে৷ এত দূরের কোনো দৃশ্য সত্যি বিরল৷

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

লাল আলোকচ্ছটা

‘হেটডেক্স’ এলাকার এই ‘মোন্টাজ’ এ অনেকগুলো ছায়াপথ দেখা যাচ্ছে৷ ১৮টি দেশের ২০০ জনেরও বেশি বিজ্ঞানী এই লাখো ছায়াপথ আবিষ্কার করেছেন, যা আগে অন্য কেউ কখনও দেখেনি৷ জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা রেডিও টেলিস্কোপ নেটওয়ার্ক ‘লো ফ্রিকোয়েন্সি অ্যারে’ বা ‘লোফার’ এর মাধ্যমে উত্তর আকাশে একটি নতুন মানচিত্র তৈরি করেছেন৷

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

জ্যোতির্ময় পাখা

রেডিও উৎস ‘বিথ্রি জিরো ওয়ান ফাইভ সেভেন প্লাস ফোর জিরো সিক্স’ উৎসের চৌম্বকক্ষেত্র সম্পর্কে বিশাল আকারের আলোড়নের উপস্থিতি নির্দেশ করে৷ অনেকেই এটাকে পাখার আকৃতি হিসেবে দেখতে পায়৷

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

সর্পিল ছায়াপথ

এই উজ্জ্বল বর্ণিল লেজটি সর্পিল ছায়াপথ ‘এম ওয়ানজিরোসিক্স’ এর৷ গবেষকদের বিশ্বাস, অগ্নিশিখার মতো দেখতে এই কাঠামো ছায়াপথের কেন্দ্রীয় বিশাল আকারের কৃষ্ণগহ্বরের কর্মকাণ্ডের ফলাফল৷ হামবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্পদার্থবিদ মারকুস ব্রুগেন বলেন, ‘‘লোফারের মাধ্যমে আমরা জানার চেষ্টা করছি, ছায়াপথের যেখানে কৃষ্ণগহ্বর রয়েছে, সেখানে এটা থাকার কারণ কি?’’

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

‘ঘূর্ণাবর্ত ছায়াপথ’

এমফিফটিওয়ান ‘ঘূর্ণাবর্ত ছায়াপথ’ নামে পরিচিত বলে জানিয়েছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা৷ এর অবস্থান পৃথিবী থেকে দেড় থেকে সাড়ে তিন কোটি আলোকবর্ষ দূরত্বের মধ্যে৷ এর কেন্দ্রে রয়েছে বেশ বড় আকারের কৃষ্ণগহ্বর৷

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

রক্তচক্ষু

‘সিআইজেডএ জেটুটুফোরটু পয়েন্ট এইট প্লাস ফাইভ থ্রি জিরো ওয়ান’ ছায়াপথ গুচ্ছের এই নাম দেয়া হয়েছে৷ গবেষকদের আশা, লোফারের নতুন তথ্য ছায়াপথ গুচ্ছ কীভাবে সৃষ্টি হয় সে সম্পর্কেও ধারণা দেবে৷

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

মহাকাশে বিস্ফোরণ

ছায়াপথ ‘আইসি থ্রিফোরটু’ এর সর্পিল বাহুতে সুপারনোভার বিস্ফোরণের ছবি আপনারা দেখছেন এখানে৷ নতুন আবিষ্কৃত ছায়াপথগুলো সম্পর্কে জ্যোতির্বিজ্ঞানী সাইরিল টাসে জানালেন, ‘‘এর মাধ্যমে মহাবিশ্ব সম্পর্কে নতুন দিক উন্মোচিত হলো৷’’

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

চমকপ্রদ তারকাপুঞ্জ

লোফারের জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা অপূর্ব কিছু ছবির জন্য মাঝে মাঝে কৌশলের আশ্রয় নেন৷

মহাকাশে তিন লাখ নতুন ছায়াপথ আবিষ্কার

এক কোটি ডিভিডি

ছায়াপথ গুচ্ছ ‘অ্যাবেল ওয়ানথ্রিওয়ানফোর’ পৃথিবী থেকে অন্তত ৪৬ কোটি আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত৷ লোফারের গবেষকরা এটি সহ অন্তত তিন লাখ নতুন ছায়াপথের অনেক তথ্য সংগ্রহ করছেন৷ জার্মানির বিলেফেল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ডোমিনিক সোয়ার্ৎস জানালেন, ‘‘আমরা এত তথ্য পেয়েছি যা অন্তত এক কোটি ডিভিডিতে ধারণ করা যায়৷ আমরা সেগুলো নিয়ে কাজ শুরু করেছি৷’’

করনেলিয়া বরমান/এসবি

আমাদের অনুসরণ করুন