মাদক কখনো কখনো ক্যানসারের চেয়েও বিপজ্জনক

মাদক কখনো কখনো ক্যানসারের চেয়েও বিপজ্জনক৷ বাংলাদেশের সামনে ধীরে ধীরে খুব বড় সমস্যা হয়ে উঠছে মাদক৷ শিশু-কিশোরদেরও ব্যাপকহারে মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে৷ বিষয়টির দিকে মনযোগ না দিলে বিপর্যয় অত্যাসন্ন৷

ইয়াবা মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়ছে শহর থেকে পাড়াগাঁয়ে – এমন একটি খবর পড়েছিলাম কয়েক মাস আগে৷ ভাবিওনি আমার জন্যও অপেক্ষা করছে দুঃসংবাদ!

দু'দিন পরই শুনি, আমার এক নিকটাত্মীয়ের সন্তানও গোপনে ইয়াবা ধরেছে৷ সদ্য এসএসসি দেয়া মেধাবি ছেলেটিকে তার মা কয়েকদিনের জন্য এক সহপাঠির বাড়িতে যেতে দিয়েছিলেন৷ এসএসএসি পরীক্ষার পরে ছেলের এইটুকু আব্দার মা না রেখে পারেন! জানতেন, বন্ধুটি উচ্ছৃঙ্খল প্রকৃতির৷ সে কারণে আগে সবসময় শাসন করে দূরে দূরেই রেখেছেন ছেলেকে৷ কিন্তু সেবার ছেলের অনুরোধে সায় না দিয়ে পারেননি৷

মা বুঝতে পারেননি, ঐ তিন-চার দিনেই সর্বনাশের ঠিকানা খুঁজে নেবে ছেলে৷ ঢাকার অলি-গলিতেও এখন দেদার চলছে মাদকব্যবসা, সেই ব্যবসায়ীদের বিষাক্ত নিঃশ্বাস ঘরে ঘরে ঢুকে পড়ছে – সাধারণ এক গৃহিনী অতটা বুঝতে পারেননি৷

তিনি বুঝতে পারেননি মাদকাসক্ত স্বামী বা সন্তানের কারণে বিপর্যস্ত যে পরিবারগুলোর খবর পড়ে এতকাল আফসোস করেছেন, পরিবারগুলোর প্রতি নীরবে সমবেদনা জানিয়েছেন, একদিন নিজেকেও আবিষ্কার করতে হবে একই কাতারে৷

বন্ধুর বাড়ি থেকে ছেলেটি ফিরে আসার কয়েকদিন পর ড্রয়ার থেকে দু'হাজার টাকা উধাও হলো৷ দু'দিন পর ননদের সোনার গহনা হারালো৷ হঠাৎ এমন শুরু হলো কেন? ‘চোর' ধরার জন্য ভদ্রমহিলা পরিবারের সবার ওপর নজর রাখতে শুরু করলেন৷ সবাই একেবারে স্বাভাবিক৷ কারো গতিবিধিতেই সন্দেহজনক কিছু নেই৷ নিজের ছেলেটাই শুধু কেমন যেন বিষণ্ণ৷ সব সময় একা থাকতে চায়৷ মোবাইল নিয়ে চুপি চুপি শুয়েবসে কাটিয়ে দেয় ঘণ্টার পর ঘণ্টা৷ ঘরে অতিথি এলে আগের মতো আগ বাড়িয়ে গিয়ে হাসিমুখে কথা বলেনা৷ হঠাৎ ‘একটু ঘুরে আসি' বলে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়, ফেরে ঘণ্টা দুয়েক পরে৷ ফিরেই শুয়ে পড়ে৷

এক দুপুরে ছেলেটি হঠাৎ ‘একটু ঘুরে আসি' বলে বেরিয়ে যায়৷ ভদ্রমহিলা নিজের ছোট ভাইকে ছেলে অসময়ে কোথায় যায়, কী করে দেখে আসতে বলেন৷

গোয়েন্দার মতো ভাগ্নের পিছু নেয় মামা৷ ধানমন্ডি থেকে মোহাম্মদপুর পর্যন্ত চলে অনুসরণ৷ মোহাম্মদপুরে গিয়ে রিক্সা থেকে নেমে পড়ে ভাগ্নে৷ কয়েকদিন আগে বেড়াতে যাওয়া সেই বন্ধুর সঙ্গে কয়েক মিনিট কথা বলে৷ এক সময় দুই বন্ধু এদিক-ওদিক তাকিয়ে টুক করে ঢুকে পড়ে পাশের গলির এক বাড়িতে৷ ঘণ্টাখানেক পরে সেই বাড়ি থেকে বেরোয় দু'জন৷ দু'জনই তখন মৃদু ঢুলছে৷

মৃগীরোগ কমায়

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া কমনওয়েলথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ২০১৩ সালেই জানিয়েছেন, মারিজুয়ানা বা গাঁজা একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় নিলে মৃগী বা এ ধরণের কিছু স্নায়ুরোগ থেকে দূরে থাকা যায়৷ বিজ্ঞান বিষয়ক সাময়িকী জার্নাল অফ ফার্মাকোলজি অ্যান্ড এক্সপেরিমেন্টাল থেরাপিউটিক্স-এ ছাপাও হয়েছে তাঁদের এই গবেষণালব্ধ তত্ত্ব৷

গ্লুকোমা দূরে রাখতে সহায়তা করে

এই বিষয়টি তো প্রায় দশ বছর আগে জানা গেছে৷ যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল আই ইন্সটিটিউট জানিয়েছিল মারিজুয়ানা গ্লুকোমার ঝুঁকিও কমায়৷ গ্লুকোমা চোখের এমন এক রোগ যা চির অন্ধত্ব ডেকে আনে৷

আলৎসহাইমার শত্রু

দ্য জার্নাল অফ আলৎসহাইমার’স ডিজিজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মারিজুয়ানা মস্তিষ্কের দ্রুত নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়াও রোধ করে৷ আর এভাবে আলৎসহাইমার ঝুঁকিও কমাতে পারে মারিজুয়ানা৷ তবে মারিজুয়ানা ‘ওষুধ’ হলেই রোগ সারাবে, কারো নিয়ন্ত্রণহীন আসক্তির পণ্য হলে নয়৷

ক্যানসারেরও ‘অ্যানসার’!

এই বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র সরকারিভাবেই স্বীকার করেছে৷ ২০১৫ সালে সে দেশের ক্যানসার বিষয়ক ওযেবসাইট ক্যানসার অর্গ-এ জানানো হয়, মারিজুয়ানা অনেক ক্ষেত্রে টিউমারের ঝুঁকি কমিয়ে ক্যানসার প্রতিরোধকেরও ভূমিকা পালন করে৷

কেমোথেরাপির ক্ষতি কম

ইউএস এজেন্সি ফর ড্রাগ জানিয়েছে, মারিজুয়ানা ক্যানসার রোগীর রোগযন্ত্রণা অন্যভাবেও কমায়৷ ক্যানসার রোগীকে এক পর্যায়ে কেমোথেরাপি নিতে হয়৷ কেমোথেরাপির অনেক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া৷ মারিজুয়ানা কেমোথেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াজনিত অনেক ক্ষতি লাঘব করে৷

স্ট্রোক কম হয়

এটি যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ নটিংহ্যামের গবেষকদের উদ্ভাবন৷ তাঁরা গবেষণা করে দেখেছেন, মারিজুয়ানা মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতেও সহায়তা করে৷ ফলে স্ট্রোক-এর ঝুঁকি কমে৷

গাঁজা মাল্টিপল সক্লেরোসিসবিরোধী

মানুষের স্নায়ুতন্ত্রে একটি বিশেষ স্তর ক্ষতিগ্রস্থ হলে ‘মাল্টিপল সক্লেরোসিস’ বা এমএস নামের এক ধরণের স্নায়ুরোগ হয়৷ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী মারিজুয়ানা সেবন করলে এই রোগের ঝুঁকিও কমে৷

ব্যথা নিরোধ

ডায়াবেটিস চরম রূপ নিলে রোগীদের অনেক সময় হাত-পা এবং শরীরের নানা অংশে জ্বালা-যন্ত্রণা হয়৷ ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকরা বলছেন, ক্যানাবিস সেই যন্ত্রণা লাঘব করতে সক্ষম৷

হেপাটাইটিস ‘সি’-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমায়

হেপাটাইটিস সি-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কমায় মারিজুয়ানা৷ নির্দিষ্ট মাত্রায় ওষুধের মতো গাঁজা সেবন করিয়ে দেখা গেছে এই রোগে আক্রান্তদের শতকরা ৮৬ ভাগেরই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনেক কমেছে৷

মামার প্রশ্নের মুখে ওরা জানায়, বাড়ি থেকে কানের দুল চুরি করে এনে বিক্রি এক বড় ভাইয়ের কাছে বিক্রি করেছে৷ ৫ হাজার টাকার কানের দুল বিক্রি করে ৫০০ টাকা পেয়েছে৷ অথচ পকেটে সেই টাকা নেই৷ পকেটে শুধু কাগজে মোড়ানো ছোট্ট একটা প্যাকেট৷ ইয়াবার প্যাকেট!

দ্য জার্নাল অফ আলৎসহাইমার’স ডিজিজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মারিজুয়ানা মস্তিষ্কের দ্রুত নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়াও রোধ করে৷ আর এভাবে আলৎসহাইমার ঝুঁকিও কমাতে পারে মারিজুয়ানা৷ তবে মারিজুয়ানা ‘ওষুধ’ হলেই রোগ সারাবে, কারো নিয়ন্ত্রণহীন আসক্তির পণ্য হলে নয়৷

এটি যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ নটিংহ্যামের গবেষকদের উদ্ভাবন৷ তাঁরা গবেষণা করে দেখেছেন, মারিজুয়ানা মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতেও সহায়তা করে৷ ফলে স্ট্রোক-এর ঝুঁকি কমে৷

হেপাটাইটিস সি-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কমায় মারিজুয়ানা৷ নির্দিষ্ট মাত্রায় ওষুধের মতো গাঁজা সেবন করিয়ে দেখা গেছে এই রোগে আক্রান্তদের শতকরা ৮৬ ভাগেরই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনেক কমেছে৷

ইয়াবা মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়ছে শহর থেকে পাড়াগাঁয়ে – এমন একটি খবর পড়েছিলাম কয়েক মাস আগে৷ ভাবিওনি আমার জন্যও অপেক্ষা করছে দুঃসংবাদ!

দু'দিন পরই শুনি, আমার এক নিকটাত্মীয়ের সন্তানও গোপনে ইয়াবা ধরেছে৷ সদ্য এসএসসি দেয়া মেধাবি ছেলেটিকে তার মা কয়েকদিনের জন্য এক সহপাঠির বাড়িতে যেতে দিয়েছিলেন৷ এসএসএসি পরীক্ষার পরে ছেলের এইটুকু আব্দার মা না রেখে পারেন! জানতেন, বন্ধুটি উচ্ছৃঙ্খল প্রকৃতির৷ সে কারণে আগে সবসময় শাসন করে দূরে দূরেই রেখেছেন ছেলেকে৷ কিন্তু সেবার ছেলের অনুরোধে সায় না দিয়ে পারেননি৷

মা বুঝতে পারেননি, ঐ তিন-চার দিনেই সর্বনাশের ঠিকানা খুঁজে নেবে ছেলে৷ ঢাকার অলি-গলিতেও এখন দেদার চলছে মাদকব্যবসা, সেই ব্যবসায়ীদের বিষাক্ত নিঃশ্বাস ঘরে ঘরে ঢুকে পড়ছে – সাধারণ এক গৃহিনী অতটা বুঝতে পারেননি৷

তিনি বুঝতে পারেননি মাদকাসক্ত স্বামী বা সন্তানের কারণে বিপর্যস্ত যে পরিবারগুলোর খবর পড়ে এতকাল আফসোস করেছেন, পরিবারগুলোর প্রতি নীরবে সমবেদনা জানিয়েছেন, একদিন নিজেকেও আবিষ্কার করতে হবে একই কাতারে৷

বন্ধুর বাড়ি থেকে ছেলেটি ফিরে আসার কয়েকদিন পর ড্রয়ার থেকে দু'হাজার টাকা উধাও হলো৷ দু'দিন পর ননদের সোনার গহনা হারালো৷ হঠাৎ এমন শুরু হলো কেন? ‘চোর' ধরার জন্য ভদ্রমহিলা পরিবারের সবার ওপর নজর রাখতে শুরু করলেন৷ সবাই একেবারে স্বাভাবিক৷ কারো গতিবিধিতেই সন্দেহজনক কিছু নেই৷ নিজের ছেলেটাই শুধু কেমন যেন বিষণ্ণ৷ সব সময় একা থাকতে চায়৷ মোবাইল নিয়ে চুপি চুপি শুয়েবসে কাটিয়ে দেয় ঘণ্টার পর ঘণ্টা৷ ঘরে অতিথি এলে আগের মতো আগ বাড়িয়ে গিয়ে হাসিমুখে কথা বলেনা৷ হঠাৎ ‘একটু ঘুরে আসি' বলে ঘর থেকে বেরিয়ে যায়, ফেরে ঘণ্টা দুয়েক পরে৷ ফিরেই শুয়ে পড়ে৷

এক দুপুরে ছেলেটি হঠাৎ ‘একটু ঘুরে আসি' বলে বেরিয়ে যায়৷ ভদ্রমহিলা নিজের ছোট ভাইকে ছেলে অসময়ে কোথায় যায়, কী করে দেখে আসতে বলেন৷

গোয়েন্দার মতো ভাগ্নের পিছু নেয় মামা৷ ধানমন্ডি থেকে মোহাম্মদপুর পর্যন্ত চলে অনুসরণ৷ মোহাম্মদপুরে গিয়ে রিক্সা থেকে নেমে পড়ে ভাগ্নে৷ কয়েকদিন আগে বেড়াতে যাওয়া সেই বন্ধুর সঙ্গে কয়েক মিনিট কথা বলে৷ এক সময় দুই বন্ধু এদিক-ওদিক তাকিয়ে টুক করে ঢুকে পড়ে পাশের গলির এক বাড়িতে৷ ঘণ্টাখানেক পরে সেই বাড়ি থেকে বেরোয় দু'জন৷ দু'জনই তখন মৃদু ঢুলছে৷

মৃগীরোগ কমায়

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া কমনওয়েলথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ২০১৩ সালেই জানিয়েছেন, মারিজুয়ানা বা গাঁজা একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় নিলে মৃগী বা এ ধরণের কিছু স্নায়ুরোগ থেকে দূরে থাকা যায়৷ বিজ্ঞান বিষয়ক সাময়িকী জার্নাল অফ ফার্মাকোলজি অ্যান্ড এক্সপেরিমেন্টাল থেরাপিউটিক্স-এ ছাপাও হয়েছে তাঁদের এই গবেষণালব্ধ তত্ত্ব৷

গ্লুকোমা দূরে রাখতে সহায়তা করে

এই বিষয়টি তো প্রায় দশ বছর আগে জানা গেছে৷ যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল আই ইন্সটিটিউট জানিয়েছিল মারিজুয়ানা গ্লুকোমার ঝুঁকিও কমায়৷ গ্লুকোমা চোখের এমন এক রোগ যা চির অন্ধত্ব ডেকে আনে৷

আলৎসহাইমার শত্রু

দ্য জার্নাল অফ আলৎসহাইমার’স ডিজিজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মারিজুয়ানা মস্তিষ্কের দ্রুত নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়াও রোধ করে৷ আর এভাবে আলৎসহাইমার ঝুঁকিও কমাতে পারে মারিজুয়ানা৷ তবে মারিজুয়ানা ‘ওষুধ’ হলেই রোগ সারাবে, কারো নিয়ন্ত্রণহীন আসক্তির পণ্য হলে নয়৷

ক্যানসারেরও ‘অ্যানসার’!

এই বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র সরকারিভাবেই স্বীকার করেছে৷ ২০১৫ সালে সে দেশের ক্যানসার বিষয়ক ওযেবসাইট ক্যানসার অর্গ-এ জানানো হয়, মারিজুয়ানা অনেক ক্ষেত্রে টিউমারের ঝুঁকি কমিয়ে ক্যানসার প্রতিরোধকেরও ভূমিকা পালন করে৷

কেমোথেরাপির ক্ষতি কম

ইউএস এজেন্সি ফর ড্রাগ জানিয়েছে, মারিজুয়ানা ক্যানসার রোগীর রোগযন্ত্রণা অন্যভাবেও কমায়৷ ক্যানসার রোগীকে এক পর্যায়ে কেমোথেরাপি নিতে হয়৷ কেমোথেরাপির অনেক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া৷ মারিজুয়ানা কেমোথেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াজনিত অনেক ক্ষতি লাঘব করে৷

স্ট্রোক কম হয়

এটি যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ নটিংহ্যামের গবেষকদের উদ্ভাবন৷ তাঁরা গবেষণা করে দেখেছেন, মারিজুয়ানা মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতেও সহায়তা করে৷ ফলে স্ট্রোক-এর ঝুঁকি কমে৷

গাঁজা মাল্টিপল সক্লেরোসিসবিরোধী

মানুষের স্নায়ুতন্ত্রে একটি বিশেষ স্তর ক্ষতিগ্রস্থ হলে ‘মাল্টিপল সক্লেরোসিস’ বা এমএস নামের এক ধরণের স্নায়ুরোগ হয়৷ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী মারিজুয়ানা সেবন করলে এই রোগের ঝুঁকিও কমে৷

ব্যথা নিরোধ

ডায়াবেটিস চরম রূপ নিলে রোগীদের অনেক সময় হাত-পা এবং শরীরের নানা অংশে জ্বালা-যন্ত্রণা হয়৷ ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকরা বলছেন, ক্যানাবিস সেই যন্ত্রণা লাঘব করতে সক্ষম৷

হেপাটাইটিস ‘সি’-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কমায়

হেপাটাইটিস সি-র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কমায় মারিজুয়ানা৷ নির্দিষ্ট মাত্রায় ওষুধের মতো গাঁজা সেবন করিয়ে দেখা গেছে এই রোগে আক্রান্তদের শতকরা ৮৬ ভাগেরই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া অনেক কমেছে৷

মামার প্রশ্নের মুখে ওরা জানায়, বাড়ি থেকে কানের দুল চুরি করে এনে বিক্রি এক বড় ভাইয়ের কাছে বিক্রি করেছে৷ ৫ হাজার টাকার কানের দুল বিক্রি করে ৫০০ টাকা পেয়েছে৷ অথচ পকেটে সেই টাকা নেই৷ পকেটে শুধু কাগজে মোড়ানো ছোট্ট একটা প্যাকেট৷ ইয়াবার প্যাকেট!

এখনো ছেলেটিকে ইয়াবা ছাড়ানোর জন্য লড়ে যাচ্ছেন সেই ভদ্রমহিলা৷ পরিবারের অন্যরাও লড়ছে৷ ছেলে বাইরে যেতে চাইলে এখনো সবার বুক কেঁপে ওঠে৷ ঢাকার বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়ে ছেলেকে পড়তে পাঠিয়ে এখনো নিশ্চয়ই লুকিয়ে কাঁদেন মা৷

একদিন হয়ত তাঁর মুখে হাসি ফিরবে৷ সম্ভাবনাময় ছেলেটি বড় হয়ে মেধা অনুযায়ী ভালো কিছু করুক সব শুভাকাঙ্খীরই এই কামনা৷ হয়ত সত্যিই ও আবার নিজের জগতে আপন মহিমায় ফিরবে৷ সবাই কিন্তু তা পারে না৷

পারে না যে, আমি নিজেই তা দেখেছি৷ দেখেছি মাদকাসক্ত এক তরুণ হাতের রেখা দেখে দেখে অন্যের ভবিষ্যত বলছে৷ একদিকে চলছে মাদক সেবন, অন্যদিকে হাত দেখা৷ হাত দেখতে দেখতে উত্তেজিত হয়ে সেই তরুণ বন্ধুকে বলছে, ‘‘তুমি এখানে পড়ে আছো এখনো? কত প্রতিভাধর তা জানো তুমি? নিজের প্রতিভা, নিজের অমিত সম্ভাবনার প্রতি এত অন্যায় করতে তোমার লজ্জা করে না! তোমার ফাঁসি হওয়া উচিত!''

সমাজ

আফগানিস্তান

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আফিম চাষ হয় আফগানিস্তানে৷ জাতিসংঘের হিসেবে, প্রতি বছর প্রায় পাঁচ থেকে ছয় হাজার টন কাঁচা আফিম উৎপাদন হয় সেখানে৷ ন্যাটো বাহিনীর সৈন্যরা চলে যাওয়ার পর আরো বেশি পরিমাণ জমিতে আফিমের চাষ হচ্ছে বলে জানা গেছে৷ যুক্তরাষ্ট্র ও এশিয়া হচ্ছে, আফগানিস্তানের আফিমের মূল ক্রেতা৷

সমাজ

কলম্বিয়া

কোকেন উৎপাদনে বিশ্বে সেরা কলম্বিয়া৷ জাতিসংঘের হিসেবে কলম্বিয়ায় প্রতি বছর তিন থেকে চার’শ টন কোকেন উৎপাদিত হয়৷ এছাড়া পেরু ও বলিভিয়াতেও কোকেনের চাষ হয়৷ ল্যাটিন অ্যামেরিকা, উত্তর অ্যামেরিকা আর ইউরোপ কোকেনের সবচেয়ে বড় বাজার৷

সমাজ

মরক্কো

উত্তর আফ্রিকার মরক্কোতে প্রতি বছর গড়ে প্রায় দেড় হাজার টন মারিজুয়ানা ও হাশিশ উৎপাদিত হয়৷ যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোতে সীমিত আকারে মারিজুয়ানা বা গাঁজার ব্যবহার বৈধ করায় এর চাষ আরও বেড়েছে৷

সমাজ

গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গল

মাদক উৎপাদনে এশিয়ার তিন দেশ মিয়ানমার, লাওস আর থাইল্যান্ড ‘গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গল’ নামে পরিচিত৷ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই তিন দেশে প্রতিবছর গড়ে প্রায় এক হাজার টন আফিম উৎপাদিত হয়৷

সমাজ

যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকো

মেথাম্ফেটামিন বা ক্রিস্টাল মেথ হলো এক ধরণের মাদক, যেটা এক ধরণের সুখানুভূতি এনে দেয় বলে মনে করেন এর সেবনকারীরা৷ ইদানীং এই মাদক সেবনের হার বাড়ছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ তবে কোন দেশে এটা সবচেয়ে বেশি তৈরি হয় তা জানা যায়নি৷ তবে ক্রিস্টাল মেথ ল্যাবেও তৈরি করা যায়৷ তাই সারা বিশ্বে পুলিশ এ ধরনের ল্যাবে অভিযান চালাচ্ছে৷ এ পর্যন্ত যত অভিযান হয়েছে, তার ৮০ ভাগই হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র আর মেক্সিকোর ল্যাবে৷

একটু শান্ত হয়ে সেই তরুণই আবার বন্ধুকে বলে, ‘‘কখনো কালো কাপড় পড়বে না৷ কালো রং তোমার জন্য অশুভ৷ কালো রং যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলবে, দেখবে জীবন কেমন বদলে যায়৷'' অভিজাত পরিবারের সন্তান সেই তরুণ নিজে বেশি লেখাপড়া করেনি৷ কলেজ পেরেনোর আগেই বিয়ে করে সন্তানের জনকও হয়েছে৷ স্ত্রী-সন্তান বাড়িতে রেখে তখন সে এখানে-ওখানে ঘুরে বেড়ায়৷ সব জায়গাতেই কিছু-না-কিছু মাদকাসক্ত বন্ধু জুটে যায়৷ ওই বন্ধুরাই যেন সব আর নিজের পরিবার যেন কিছুই নয়৷

একদিন হঠাৎ সেই তরতাজা তরুণটিরই মৃত্যুসংবাদ শুনি৷ মাদকের আড্ডাতেই কাশতে কাশতে মুখ দিয়ে রক্ত বেরিয়ে এসেছিল৷ দ্রুত হাসপাতালে নেয়া হয়৷ তারপর প্রায় এক মাস হাসপাতালে হাসপাতালেই কেটেছে৷ আর বাড়ি ফেরা হয়নি, হাত দেখা হয়নি, শেষবারের মতো সন্তানের মুখটাও দেখা হয়নি তার৷

মাদককে আরো কিছু সম্ভাবনাময় জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দিতে এই আমিই দেখেছি৷ দেখেছি মেডিক্যালের মেধাবী ছাত্রকে মাদকের মায়াজালে জড়িয়ে বিপথে যেতে৷ দেখেছি চিকিৎসকের মেধাবী সন্তান প্রবাসে লেখাপড়া করতে গিয়ে বছরের ছয়মাস পড়ে থাকে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে৷ বাবা ভাবেন, বিয়ে করালে সন্তান ভালো হয়ে যাবে৷ ছেলে বিয়ে করে৷ কিন্তু বিয়ের কিছুদিন পর বউ ছাড়ে, মাদক ছাড়েনা৷

মাদকসেবী নারীর সংসার ভাঙার কিছু গল্পও আমি শুনেছি৷ খুব দেরি হয়ে যাওয়ার আগে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে গিয়ে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরে কেউ কেউ সুখে-শান্তিতে সংসার জীবন শুরু করেছেন – এমন গল্পও শুনেছি কয়েকটা৷

Deutsche Welle DW Ashish Chakraborty

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

তবে কোনো গল্পই কোনো কাহিনিকার বা পরিচালকের আকস্মিক খেয়ালখুশিতে বদলে যায়নি৷ মৃত্যুমুখি মানুষগুলোকে জীবনমুখী করতে দুস্তর কষ্টের পথ পাড়ি দিয়েছেন অনেকে৷ একসময় মাদকাসক্ত মানুষটির মাঝেও সদিচ্ছার উন্মেষ ঘটেছে আর সেই সদিচ্ছাই ফিরিয়েছে তাদের৷

কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে শিশুরাও যে হারে মাদকের দিকে ঝুঁকে পড়ছে তা সত্যিকার অর্থেই আতঙ্কজনক৷

একটি বেসরকারি সংস্থার দেয়া তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশের পথশিশুদের ৮৫ শতাংশই কোনো-না-কোনোভাবে মাদক সেবন করে৷ তাদের ১৯ শতাংশ হেরোইন, ২৮ শতাংশ বিভিন্ন ধরণের ট্যাবলেট এবং ৮ শতাংশ ইনজেকশনের মাধ্যমে নেশা করে৷ ঢাকা শহরেই নাকি এমন অন্তত ২২৯টি জায়গা রয়েছে, যেখানে ৯ থেকে ১৮ বছর বয়সি শিশুরা নিয়মিত যায় এবং মাদক সেবন করে৷

আরেক হিসেব বলছে, দেশে সুবিধাবঞ্চিত সাড়ে ১১ লাখ পথশিশুর মধ্যে সাড়ে পাঁচ লাখই মাদকাসক্ত

শিশুদের এত বড় একটা অংশের এই মাদকাসক্তি তাদের মধ্যে অপরাধপ্রবণতাও যে বাড়াবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই৷

এখন তো প্রতিদিন গড়ে দু-একটা মাদকাসক্ত শিশু বা কিশোরের অপরাধে জড়ানোর খবর পড়ি, মাদকের জাল যেভাবে সারা দেশে ছড়াচ্ছে তাতে এমন হতভাগ্য শিশু খুব তাড়াতাড়িই কয়কে গুণ বেড়ে যেতে পারে৷

সেরকম হলে কিন্তু দেশে আইন-শৃঙ্খলার সংকট আরো ভয়াবহ রূপ নেবে৷ মাদকাসক্তি ক্যানসারের চেয়েও ভয়ংকর৷ ক্যানসার হলে রোগী বাঁচার চেষ্টা করে, ডাক্তারের প্রতিটি কথা মেনে সুস্থ হওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করে৷ কিন্তু বেশির ভাগ মাদকাসক্তই বোঝেনা যে তারা এমন আগুন নিয়ে খেলছে যা নিজের তো বটেই, এমনকি আশপাশের অনেকের জীবনই ধীরে ধীরে দুর্বিষহ করে তুলবে৷