মানসিক স্বাস্থ্য কেনিয়ায় এখনও ট্যাবু

আফ্রিকার শীর্ষ দশ বিষাদগ্রস্ত দেশের একটি কেনিয়া৷ সেখানে মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে আলোচনাকে এখনো ভালো চোখে দেখা হয় না৷ এই ট্যাবু ভাঙার চেষ্টা করছেন এক দম্পতি, যাঁদের ছেলে সম্প্রতি ডিপ্রেশনে ভুগে মারা গেছে৷

জোসিয়ার বাবা মেজর মাইক কারিউকি জানান, ‘‘গতবছর মে মাসের ৩ তারিখে আমরা ছেলেকে হারাই৷ তার বয়স ১৮ হয়েছিল৷ জোসিয়া ডিপ্রেশনের সঙ্গে লড়ছিল৷ সে একজন বিশেষজ্ঞ পরামর্শকের অধীনে ছিল এবং বিষাদ কাটিয়ে ওঠার সব লক্ষণ তার মধ্যে দেখা গিয়েছিল৷ একসময় আমরা যুক্তরাজ্যে গেলে সে তার জীবন নিয়ে নেয়৷ আমরা খুবই অবাক হয়েছিলাম৷''

বিজ্ঞান পরিবেশ | 14.11.2013

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, কেনিয়ার প্রতি চারজনে অন্তত একজনের জীবনের কোনো এক পর্যায়ে মানসিক অসুস্থতায় ভোগার আশঙ্কা রয়েছে৷ দেশটিতে

ভিডিও দেখুন 03:00
এখন লাইভ
03:00 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 21.01.2019

মানসিক স্বাস্থ্য যেখানে ট্যাবু

মানসিক স্বাস্থ্য এখনোট্যাবু বিষয়৷ তাই কারিউকি দম্পতিকে তাঁদের সন্তান নিয়ে লড়তে হয়েছে একা৷ জোসিয়ার মা ক্যাথেরিন কারিউকি জানান, ‘‘মা-বাবা হিসেবে আমরা ছেলের মধ্যে কোন লক্ষণটা খেয়াল করিনি, কিংবা কী ভুল করেছি, তা বুঝতে অন্য মা-বাবাদের সঙ্গে আলোচনা করার উপায় নেই৷ কারণ এই বিষয়ে কেউ কথা বলে না৷''

মেজর মাইক কারিউকি বলেন, ‘‘মানসিক সমস্যাকে এখানে কেউ রোগ হিসেবে দেখে না.. মানুষ মনে করে, এটা একটা লজ্জার বিষয়৷''

ডা: ভিক্টোরিয়া মুখোমা বলেন, কলঙ্কের কথা ভেবে মানুষ প্রথমে চিকিৎসা করাতে চায় না৷ পরে সমস্যা বেড়ে গেলে ডাক্তারের কাছে যায়৷ কিন্তু তখন সঠিক চিকিৎসা দেয়া কঠিন হয়ে পড়ে৷ তিনি বলেন, ‘‘৪০ মিলিয়ন কেনীয় নাগরিকের জন্য মাত্র একশ' জনেরও কম মনোচিকিৎসক আছেন৷ এদের অর্ধেকই আবার রাজধানী নাইরোবিতে থাকেন৷ অর্থাৎ, কেনিয়ার বেশিরভাগ এলাকায় কোনো মানসিক স্বাস্থ্যকর্মী নেই৷''

ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা 

বিষণ্ণতা কোনো অসুখই নয়

বেশিরভাগ মানুষেরই ধারণা, বিষণ্ণতা বা ডিপ্রেশন কোনো অসুখই নয়৷ এটা একটা ভুল ধারণা, কারণ যাঁরা বিষণ্ণতায় ভোগেন তাঁদের চিকিৎসা প্রয়োজন৷

ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা 

নিজে থেকে ভালো হয়ে যাবে

নিজে থেকে ক’দিন পরেই বিষণ্ণতা কেটে যাবে – এমন ধারণা অনেকেরই, যা ভুল৷ তবে বিষণ্ণতা যদি দু-তিন সপ্তাহের বেশি থাকে, তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত৷ তখন ডাক্তারই বুঝবেন রোগীকে কোনো বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠাতে হবে কিনা৷

ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা 

হাসিখুশি পরিবেশে গেলেই ঠিক হয়ে যাবে

হাসিখুশি পরিবেশে গেলেই বিষণ্ণতা ঠিক হয়ে যাবে – এই ধারণাটিও ভুল৷ ভিন্ন পরিবেশে সাময়িকভাবে হয়ত বিষণ্ণতা কিছুটা কাটে, তবে রোগী সুস্থ হন না৷ তাই কারুর ডিপ্রেশন হলে তা মনের ভেতর রেখে একা একা কষ্ট না পেয়ে পরিবার এবং কাছের মানুষদের সাথে আলোচনা করা উচিত৷

ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা 

বিষণ্ণতা শুধু হৃদয়ের অসুখ

এ ধারণাও সম্পূর্ণ ভুল৷ কারণ ডিপ্রশনের রোগীদের মাথা ব্যথা, মাথা ঘোরা, কোমর ব্যথা, কানের ভেতরে শব্দ হওয়া, পেটের সমস্যা – সবই হতে পারে৷ অবশ্য বেশিভাগ ক্ষেত্রে যেটা হয়, সেটা হলো ক্লান্তি, মন খারাপ, কোনো কিছুতে আগ্রহ বা ইচ্ছা না থাকা বা হতাশ হওয়া৷ এছাড়াও বিষণ্ণতায় ভোগেন যাঁরা, তাঁরা অন্যের সমস্যার কারণগুলোও নিজের মধ্যে খুঁজে বেড়ান৷

ডিপ্রেশন বা বিষণ্ণতা সম্পর্কে কিছু ভুল ধারণা 

বিষণ্ণতার কথা ‘না’ জানালে কেউ বুঝবে না

এটাও একটি ভুল ধারণা৷ বিষণ্ণ রোগীর আচরণ দেখে প্রথমে হয়ত কেউ বোঝেন না – এ কথা ঠিক হলেও, বুঝতে কিন্তু খুব বেশি সময় লাগে না৷ বরং এই অসুখ অন্যদের কাছ থেকে লুকিয়ে রাখলে রোগী এবং পরিবার – দু’তরফেরই ক্ষতিই হয়৷ তাই লজ্জা বা ভয় না পেয়ে অন্যদের সাথে আলোচনা করলে উপকার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি৷

এ কারণে তরুণ রোগীদের পরামর্শ নেয়ার মূল ভরসা হয়ে উঠেছে ইন্টারনেট৷ ডিজাইনার ফ্রাংকলিন সাইয়ালেল একসময় ডিপ্রেশনের রোগী ছিলেন৷ এখন অনলাইন মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করছেন৷ সামাজিক মাধ্যমে তাঁর প্রভাব কাজে লাগিয়ে তিনি আলোচনায় উৎসাহ দেয়ার পাশাপাশি স্বাস্থ্যসেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে রোগীদের সংযোগ ঘটান৷ সাইয়ালেল বলছেন, ‘‘গত কয়েক মাসে বেশ কয়েকজন ইনবক্সে আমার কাছে পরামর্শ চেয়েছেন, যা আমার ভালো লেগেছে৷ তবে একই সময়ে ভয়ও পেয়েছি, কারণ, আমি তো পেশাদার কেউ নই৷ আমি তো জানিনা কীভাবে সহায়তা করতে হবে৷ তখন আমি ‘কন্টাক্ট' জোগাড় করা শুরু করি এবং ঐ রোগীদের সঙ্গে এই কন্টাক্টদের যোগাযোগ করিয়ে দেই৷ এভাবে অন্তত কয়েকজনের তো জীবন বাঁচবে৷''

ছেলের মৃত্যুর পর কারিউকি দম্পতি ছেলের নামে একটি ফাউন্ডেশন গড়ে তুলেছেন, যার লক্ষ্য, তরুণ কেনীয়দের বলা, ‘ঠিক না থাকাটাও ঠিক'৷

এডিথ কিমানি/জেডএইচ

স্ট্রেস বা মানসিক চাপ কমানোর সেরা কিছু কৌশল

ব্যায়াম বা খেলাধুলা

হালকা ব্যায়াম বা খেলাধুলা মানসিক চাপ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে৷ জগিং বা সাইকেল চালালে স্ট্রেস হরমোন কমে গিয়ে হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখে৷ সমীক্ষায় দেখা গেছে ক্লান্ত, পরিশ্রান্ত মানুষকেও হালকা খেলাধুলা বা ব্যায়াম প্রফুল্ল রাখে৷ তবে অবশ্যই মানসিক চাপ আরো বেড়ে যাওয়ার মতো কোনো প্রতিযোগিতামূলক খেলাধুলা নয় কিন্তু!

স্ট্রেস বা মানসিক চাপ কমানোর সেরা কিছু কৌশল

রিল্যাক্স করার কৌশল

পেশী রিল্যাক্স করার নতুন কৌশলগুলোর মধ্যে যোগব্যায়াম বা ইয়োগা এবং মেডিটেশনের কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা৷ যার মাধ্যমে শারীরিক এবং মানসিক চাপ কমে শরীর ও মনকে করে হালকা ও ফুরফুরে৷ বিশেষজ্ঞের মতে, প্রচণ্ড চাপ থাকা সত্ত্বেও অনেকের ক্ষেত্রেই ইয়োগা বা মেডিটেশনের মতো রিল্যাক্স করার এই নতুন কৌশল বেশ সাহায্য করে৷

স্ট্রেস বা মানসিক চাপ কমানোর সেরা কিছু কৌশল

সবুজ প্রকৃতি সুস্থ রাখে

নেদারল্যান্ডের গবেষকরা খুঁজে বের করেছেন যে, সবুজ রং মানুষের নার্ভকে একদিকে যেমন শান্ত রাখে তেমনি আনন্দিতও করে৷ কারণ সমীক্ষায় জানা যায়, যাঁরা শহরের কেন্দ্রস্থলে বসবাস করেন তাঁদের চেয়ে যাঁদের বাড়িতে বাগান আছে বা সবুজে ঘেরা বাগানের কাছাকাছি বসবাস করেন, তাঁরা মানসিকভাবে সুস্থ থাকেন৷

স্ট্রেস বা মানসিক চাপ কমানোর সেরা কিছু কৌশল

কাজের ফাঁকে বিশ্রাম

শরীর এবং মন দু’টোরই মাঝে মাঝে ভালোভাবে বিশ্রামের প্রয়োজন হয়৷ বিশেষ করে যাঁরা সারাদিন কম্পিউটারের সামনে বসে কাজ করেন, তাঁদের মানসিক চাপে রক্তে স্ট্রেস হরমোনের মাত্রা বেড়ে যায়৷ এক্ষেত্রে কাজের ফাঁকে খানিকক্ষণ মুক্ত বাতাসে হাঁটা বা হালকা ব্যায়াম করলে আবার বেশ তরতাজা বা ফ্রেশ হয়ে কর্মস্থলে ফেরা যায়৷

স্ট্রেস বা মানসিক চাপ কমানোর সেরা কিছু কৌশল

মনকে শান্ত করার বিশেষ জায়গা

কিছুক্ষণের নীরবতা মাঝে মাঝে শরীর ও মনকে এতটাই শান্ত করতে পারে যে মানসিক চাপ বা স্ট্রেসের বিরুদ্ধে তা ঠিক যেন ওষুধের মতো কাজ করে৷ তাই বাড়ির কোথাও একটি খালি ঘরে দিনে ১৫ থেকে ২০ মিনিট সময় কাটাতে পারেন৷ যারা বড় শহরে থাকেন, তারা চলে যান কোনো মিউজিয়ামে বা লাইব্রেরিতে৷ আর শরীর ও মনকে শান্ত করতে পারে মসজিদ, মন্দির বা গির্জার মতো ধর্মীয় স্থানগুলোও৷