মুম্বই-তে যখন ফ্লেমিঙ্গোরা আসে

মুম্বই শহরে আর যারই বাস হোক, ত্রিশ হাজার ফ্লেমিঙ্গো পাখিও যে বছর বছর এখানে আসে, সেটা কি জানতেন? তাহলে চলুন থানে ক্রিকে, যেখানে প্রকৃতির ভারসাম্য যেমন জটিল, ঠিক ততোটাই ভঙ্গুর৷

মেগাসিটি মুম্বই-তে দু'কোটির বেশি মানুষ থাকেন৷ তাদের অর্ধেকের বেশি থাকেন ঝুগ্গি, অর্থাৎ বস্তিতে৷ আবার মুম্বইতে এ ধরনের অসাধারণ প্রাকৃতিক দৃশ্যও দেখতে পাওয়া যায়, কেননা থানে ক্রিকে প্রতিবছর ত্রিশ হাজারের বেশি ফ্লেমিঙ্গো পাখি আসে উত্তরের গুজরাত রাজ্য থেকে; কিছু পাখি আসে এমনকি মধ্যপ্রাচ্য থেকে৷

খাঁড়ির উত্তর দিকটা গতবছর থেকে সংরক্ষিত এলাকা বলে ঘোষণা করা হয়েছে৷ এখানে ম্যানগ্রোভ অরণ্যের কোনো কমতি নেই৷ শুধুমাত্র নৌকো করে এখানে আসা যায়৷

মেরিন বায়োলজিস্ট এন বাসুদেবন বনবিভাগের হয়ে কাজ করেন৷ মুম্বই-এর ম্যানগ্রোভ অরণ্যের সুরক্ষা তাঁর দায়িত্বে৷ বাসুদেবন বলেন, ‘‘বসন্তে জোয়ার এলে গোটা এলাকাটা নোনাজলে ভরে যায়৷ এ ধরনের পরিস্থিতিতে অন্য গাছ বাড়তে পারে না৷ কিন্তু ম্যানগ্রোভদের খাপ খাইয়ে নেওয়ার বিশেষ ক্ষমতা আছে, যে কারণে তারা সব সত্ত্বেও বাড়তে পারে৷ ম্যানগ্রোভদের সে ক্ষমতা না থাকলে, গোটা জঙ্গলটাই নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতো৷''

ভিডিও দেখুন 03:33
এখন লাইভ
03:33 মিনিট
অন্বেষণ | 02.08.2016

ভারতে মুম্বইয়ের পাশেই আছে ম্যানগ্রোভ অরণ্য

থানে ক্রিকের ম্যানগ্রোভ অরণ্যে নানাধরনের উদ্ভিদ ও প্রাণী থাকে৷ খাদ্যের কোনো অভাব নেই৷ ফ্লেমিঙ্গোরা যে অ্যালজি বা সমুদ্রশৈবাল খায়, তা গজায় খাঁড়ির কাদায়; ভাটা এলে সেগুলো বেরিয়ে পড়ে৷ এছাড়া কাদার মধ্যে অনেক ঝিনুক, শামুক, কাঁকড়া লুকিয়ে থাকে - তাও খায় ফ্লেমিঙ্গোরা৷ বহু মাছ ও কাঁকড়া ম্যানগ্রোভ অরণ্যে ডিম পাড়ে৷

নিউজিল্যান্ডেই বেশি দেখা যায় এই ধরণের পাখি৷তাই কিউই পাখির কথা প্রসঙ্গ এলেই চলে আসে নিউজিল্যান্ডের নাম৷ কিউইর ডিম সব পাখির মধ্যেই দেহের অনুপাতে সর্ববৃহৎ৷ তাই তার কদরও বেশি৷ এক একটি ডিমের ওজন প্রায় ৫০০ গ্রাম৷ মা পাখি ডিম পাড়ার আগে দেখে মনে হয় তার শরীরের প্রায় পুরো অংশই যেন ডিম৷ আর ডিম থেকে বাচ্চা বের হওয়ার সাথে সাথেই তারা বেশ স্বাবলম্বী হয়ে ওঠে৷

মুরগি আগে না ডিম আগে- এ নিয়ে প্রচুর বিবাদ আছে৷ আমরা ভুলে যাই যে সরীসৃপরাও ডিম পাড়ে, যেমন সাপ৷ বেশিরভাগ সাপ ডিম পাড়ার পর ডিম ফোটা পর্যন্ত তাদের জায়গা থেকে নড়ে না, একনাগাড়ে তা দিয়ে যায়৷

সরীসৃপদের মধ্যে সর্ববৃহৎ প্রজাতি এরা৷ এদের মিলনে অভিনবত্ব আছে, কেননা, পুরো একটি সন্ধ্যা ব্যাপী পুরুষ ও নারী কমোডো ড্রাগন মিলিত হয়৷ তাদের এই রোমান্টিক মিলনের ফলে ডিম থেকে বাচ্চাও বের হয় খুব সুন্দরভাবে, ধীরে সুস্থে৷

অন্বেষণ | 31.05.2013

মেগাসিটি মুম্বই-তে দু'কোটির বেশি মানুষ থাকেন৷ তাদের অর্ধেকের বেশি থাকেন ঝুগ্গি, অর্থাৎ বস্তিতে৷ আবার মুম্বইতে এ ধরনের অসাধারণ প্রাকৃতিক দৃশ্যও দেখতে পাওয়া যায়, কেননা থানে ক্রিকে প্রতিবছর ত্রিশ হাজারের বেশি ফ্লেমিঙ্গো পাখি আসে উত্তরের গুজরাত রাজ্য থেকে; কিছু পাখি আসে এমনকি মধ্যপ্রাচ্য থেকে৷

খাঁড়ির উত্তর দিকটা গতবছর থেকে সংরক্ষিত এলাকা বলে ঘোষণা করা হয়েছে৷ এখানে ম্যানগ্রোভ অরণ্যের কোনো কমতি নেই৷ শুধুমাত্র নৌকো করে এখানে আসা যায়৷

মেরিন বায়োলজিস্ট এন বাসুদেবন বনবিভাগের হয়ে কাজ করেন৷ মুম্বই-এর ম্যানগ্রোভ অরণ্যের সুরক্ষা তাঁর দায়িত্বে৷ বাসুদেবন বলেন, ‘‘বসন্তে জোয়ার এলে গোটা এলাকাটা নোনাজলে ভরে যায়৷ এ ধরনের পরিস্থিতিতে অন্য গাছ বাড়তে পারে না৷ কিন্তু ম্যানগ্রোভদের খাপ খাইয়ে নেওয়ার বিশেষ ক্ষমতা আছে, যে কারণে তারা সব সত্ত্বেও বাড়তে পারে৷ ম্যানগ্রোভদের সে ক্ষমতা না থাকলে, গোটা জঙ্গলটাই নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতো৷''

ভিডিও দেখুন 03:33
এখন লাইভ
03:33 মিনিট
অন্বেষণ | 02.08.2016

ভারতে মুম্বইয়ের পাশেই আছে ম্যানগ্রোভ অরণ্য

থানে ক্রিকের ম্যানগ্রোভ অরণ্যে নানাধরনের উদ্ভিদ ও প্রাণী থাকে৷ খাদ্যের কোনো অভাব নেই৷ ফ্লেমিঙ্গোরা যে অ্যালজি বা সমুদ্রশৈবাল খায়, তা গজায় খাঁড়ির কাদায়; ভাটা এলে সেগুলো বেরিয়ে পড়ে৷ এছাড়া কাদার মধ্যে অনেক ঝিনুক, শামুক, কাঁকড়া লুকিয়ে থাকে - তাও খায় ফ্লেমিঙ্গোরা৷ বহু মাছ ও কাঁকড়া ম্যানগ্রোভ অরণ্যে ডিম পাড়ে৷

তবে মুম্বই শহরের মাঝখানে এই বায়োটোপ যে একেবারে প্রকৃতির স্বর্গ, এমন নয়৷ শৌচাগার আর নিষ্কাশন পদ্ধতির অভাবে ময়লা জল সরাসরি সাগরে গিয়ে পড়ে, যেমন পড়ে প্লাস্টিক ও অন্যান্য বর্জ্য৷ তার ফলে ম্যানগ্রোভ অরণ্যের শ্বাসমূল বুজে আসে৷ পরিবেশের ক্ষণভঙ্গুর ভারসাম্য ব্যাহত হয়৷ বাসুদেবন জানালেন, ‘‘আমরা সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করছি, তার মধ্যে নগর কর্তৃপক্ষও আছেন৷ কয়েক বছরের মধ্যেই তা কার্যকরী হবে বলে আমার বিশ্বাস৷ একটি বড় সিউয়েজ ট্রিটমেন্ট ফেসিলিটি বসাতে হবে, শুধু এক জায়গায় নয়, বিভিন্ন জায়গায়৷''

উট পাখি

পাখিদের মধ্যে সবচেয়ে বড় প্রজাতি অস্ট্রিচ বা উট পাখি, মাটিতে সবচেয়ে দ্রুতগতির পাখিও এটি৷ একটি মেয়ে পাখি কেবল একটি পুরুষ পাখির সঙ্গে মিলিত হয়, তবে একটি পুরুষ পাখি বহুগামী৷ মা পাখিটি আরও অন্তত চার জন মা পাখির সঙ্গে একটি বাসা বানিয়ে সেখানে ডিম পাড়ে৷ প্রত্যেকে সাধারণত ১৫টি করে ডিম পাড়ে৷

কিউই পাখি

নিউজিল্যান্ডেই বেশি দেখা যায় এই ধরণের পাখি৷তাই কিউই পাখির কথা প্রসঙ্গ এলেই চলে আসে নিউজিল্যান্ডের নাম৷ কিউইর ডিম সব পাখির মধ্যেই দেহের অনুপাতে সর্ববৃহৎ৷ তাই তার কদরও বেশি৷ এক একটি ডিমের ওজন প্রায় ৫০০ গ্রাম৷ মা পাখি ডিম পাড়ার আগে দেখে মনে হয় তার শরীরের প্রায় পুরো অংশই যেন ডিম৷ আর ডিম থেকে বাচ্চা বের হওয়ার সাথে সাথেই তারা বেশ স্বাবলম্বী হয়ে ওঠে৷

পেঙ্গুইন

অ্যান্টার্কটিকা মহাদেশের পেঙ্গুইনদের মতো কষ্টসাধ্য কাজ হয়ত আমাদের বাবা-মা’ও করতে পারবেন না৷ পেঙ্গুইনদের একটি প্রজনন কলোনি আছে৷ নিজের বাসা থেকে সেখানে যেতে তাদের ৫০ থেকে ১২০ কিলোমিটার পথ হাঁটতে হয়৷ প্রতি বছর মাত্র একটি ডিমে তা দিতে পারে মা পেঙ্গুইন৷ তাই ডিম থেকে যখন বাচ্চা বের হয়, সেটা খুবই মূল্যবান মুহূর্ত৷

হাতি পাখি

পাখি প্রজাতির মধ্যে একসময় সর্ববৃহৎ ছিল এলিফেন্ট বার্ড বা হাতি পাখি, যেটি চার শতক আগে বিলুপ্ত হয়ে গেছে৷ ২০১৫ সালে এর একটি ডিমের খোঁজ পান বিজ্ঞানীরা৷ একটি মুরগীর ডিমের চেয়ে তা প্রায় ২০০ গুণ বড়৷

সাপ

মুরগি আগে না ডিম আগে- এ নিয়ে প্রচুর বিবাদ আছে৷ আমরা ভুলে যাই যে সরীসৃপরাও ডিম পাড়ে, যেমন সাপ৷ বেশিরভাগ সাপ ডিম পাড়ার পর ডিম ফোটা পর্যন্ত তাদের জায়গা থেকে নড়ে না, একনাগাড়ে তা দিয়ে যায়৷

সামুদ্রিক কচ্ছপ

সম্প্রতি জলবায়ু পরিবর্তন, অবৈধ বাণিজ্য ও পর্যটনের কারণে সমুদ্রের মা কচ্ছপদের ডিম পাড়াটা খুব কঠিন হয়ে গেছে৷ তাই ডিম পাড়ার জন্য দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে তারা নিরাপদ আশ্রয় বেছে নেয়৷ বালিতে ডিম পাড়ে তারা৷ কিন্তু যদি মানুষ, শব্দ বা অন্য কোনো কারণে বিরক্ত হয়, তাহলে ডিমে তা না দিয়ে তারা সাগরে ঝাঁপিয়ে পড়ে৷

ব্যাঙ

প্রথমে ছবিটি দেখলে মনে হতে পারে, ব্যাঙটি বিষন্ন৷ ব্যাপারটা তা না, একটু লক্ষ্য করলেই বোঝা যাবে ডিমের ওপরে বসে আছে ব্যাঙটি৷ প্রাণীজগতে অন্যান্য প্রাণীদের চেয়ে এরা ভিন্ন৷ বাবা ব্যাঙটি যাকে, মিড ওয়াইফ বলা হয়, সে স্থলে মা ব্যাঙটির সঙ্গে মিলিত হয়৷ তারপর এই ডিমগুলোকে বাবা ব্যাঙটি ৩০ দিন পর্যন্ত বহন করে এবং তা দেয়৷

কমোডো ড্রাগন

সরীসৃপদের মধ্যে সর্ববৃহৎ প্রজাতি এরা৷ এদের মিলনে অভিনবত্ব আছে, কেননা, পুরো একটি সন্ধ্যা ব্যাপী পুরুষ ও নারী কমোডো ড্রাগন মিলিত হয়৷ তাদের এই রোমান্টিক মিলনের ফলে ডিম থেকে বাচ্চাও বের হয় খুব সুন্দরভাবে, ধীরে সুস্থে৷

পরিবেশ দূষণ একমাত্র বিপদ নয়৷ গোটা মুম্বই জুড়ে বেআইনি বসতি একটা বড় সমস্যা৷ কোথাও কোথাও নতুন বস্তি তৈরি জন্য ম্যানগ্রোভ অরণ্য কেটে ফেলা হয়েছে৷ এও এক কঠিন বাস্তব৷