ম্যার্কেলের নতুন প্রতিদ্বন্দ্বীর নাম মার্টিন শুলৎস

বার্লিনের জোট সরকারের ভাইস চ্যান্সেলর ও অর্থমন্ত্রী সিগমার গাব্রিয়েল সামাজিক গণতন্ত্রী দলের সভাপতিত্ব ও আগামী সংসদীয় নির্বাচনে চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী হবার দায়িত্ব এক ‘নবাগতের' হাতে তুলে দিচ্ছেন৷

কে কোন দায়িত্ব নিচ্ছেন?

সিগমার গাব্রিয়েলের এই পদত্যাগ তিন-দফা, কেননা তিনি এসপিডি দলের সভাপতিত্ব, সেপ্টেম্বরের সংসদীয় নির্বাচনে দলের চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী হবার সুযোগ ও ম্যার্কেল মন্ত্রীসভায় অর্থনীতি তথা জ্বালানি মন্ত্রীর পদ, তিনটিই একসঙ্গে ছেড়ে দিলেন৷ তাঁর জায়গায় এসপিডি দলের সভাপতি ও চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী হতে চলেছেন ইউরোপীয় সংসদের সাবেক সভাপতি মার্টিন শুলৎস৷

সাবেক আইনমন্ত্রী ও এসপিডি দলের প্রবীণ সদস্যা ব্রিগিটে সুইপ্রিস চলতি সংসদীয় কর্মকালের জন্য অর্থনীতি মন্ত্রী হতে চলেছেন৷ সাত মাস পরে সংসদীয় নির্বাচন; তার পর সুইপ্রিস বুন্ডেস্টাগে তাঁর আসন ছেড়ে দেবেন বলে জানিয়েছেন৷

অপরদিকে গাব্রিয়েল হবেন জার্মানির নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী, কেননা বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাংক-ভাল্টার স্টাইনমায়ার আগামী ১২ই ফেব্রুয়ারি তারিখে জার্মানির পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হবেন – যদি না কোনো অভাবনীয় অঘটন ঘটে, কেননা তিনি এসপিডি, সিডিইউ ও সিএসইউ দলের যৌথ প্রার্থী৷ বর্তমান প্রেসিডেন্ট ইওয়াখিম গাউক একটি কর্মকালের পর আর দ্বিতীয়বার প্রার্থী হতে চাননি৷

ম্যার্কেলের নতুন প্রতিদ্বন্দ্বীর মার্টিন শুলৎস

গাব্রিয়েল পদত্যাগ করলেন কেন?

সকলেই প্রত্যাশা করছিলেন যে, গাব্রিয়েল চ্যান্সেলর পদের জন্য ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে প্রতিযোগিতায় নামবেন৷ কিন্তু গাব্রিয়েল বলেছেন যে, তাঁর ম্যার্কেলকে হারানোর কোনো সম্ভাবনা নেই দেখেই তিনি পদত্যাগ করেছেন৷

অন্যভাবে দেখতে গেলে, তিনি চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী হবেন না, এ কথা ঘোষণা করার পর গাব্রিয়েলের পক্ষে আর দলের সভাপতি থাকা সম্ভব ছিল না; কাজেই সে পদটিও তিনি শুলৎসের হাতেই তুলে দিতে চান৷

সেপ্টেম্বরে নির্বাচন; সে অবধি গাব্রিয়েল রাজনীতি থেকে বিদায় নিতে পারেন না, যদি তাঁর ভবিষ্যতের জন্য কোনো ধরনের রাজনৈতিক উচ্চাশা থাকে৷ এক্ষেত্রে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদটি যে খালি হচ্ছে, সেটা তাঁর পক্ষে একটি সুবর্ণ সুযোগ৷ আগামী সাত মাস তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকবেন; সেপ্টেম্বরের নির্বাচনের পর যদি ‘বড় জোট', অর্থাৎ সিডিইউ/সিএসইউ-এসিপিডি দলের জোট সরকারই বজায় থাকে – ও সেই সঙ্গে ম্যার্কেল আবার চ্যান্সেলর হন – তাহলে গাব্রিয়েল পররাষ্ট্রমন্ত্রীই থেকে যাচ্ছেন৷

শুলৎস আসার ফলে কি এসপিডির সম্ভাবনা বাড়বে?

প্রায় সব জরিপেই শুলৎস গাব্রিয়েলের চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে ছিলেন৷ এমনকি ‘‘বিল্ড'' ট্যাবলয়েডের একটি সাম্প্রতিক জরিপ অনুযায়ী চ্যান্সেলর হিসেবে ৩৮ শতাংশ জার্মান শুলৎসকে দেখতে চান, যেখানে ম্যার্কেলকে চান ৩৯ শতাংশ – অর্থাৎ শুধু এক শতাংশ বেশি৷ ম্যার্কেল আর গাব্রিয়েলের মধ্যে তুলনায় ম্যার্কেল পাচ্ছিলেন ৪৬ শতাংশ, গাব্রিয়েল ২৭ শতাংশ সমর্থন৷

বামদল বা সবুজদের মতো সম্ভাব্য জোট সহযোগীদের কাছে শুলৎস গাব্রিয়েলের চেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য – এসপিডি দলের সদস্য ও বিশ্বস্ত এসপিডি ভোটারদের ক্ষেত্রেও যা প্রযোজ্য৷ অপরদিকে শুলৎস এতদিন ব্রাসেলসে থাকার পরে জার্মান ভোটারদের কাছে অতটা পরিচিত না হলেও, চলতি জোট সরকারের কোনো দোষত্রুটি তাঁর ঘাড়ে চাপানো চলে না৷ ম্যার্কেল মন্ত্রীসভার সদস্য না থাকার ফলে শুলৎস গাব্রিয়েলের চেয়ে অনেক বেশি খোলাখুলিভাবে ম্যার্কেলের সমালোচনা করতে পারবেন৷

শুলৎস আসার ফলে এসপিডির নীতি কী দাঁড়াবে?

শুলৎসকে আনার অর্থ, এসপিডি একটি শক্তিশালী ইউরোপীয় ইউনিয়নের সপক্ষে মতপ্রকাশ করছে৷ কাজেই এএফডি প্রমুখ দক্ষিণপন্থি দলগুলির মতো এসপিডি দলের ইইউ বা অভিবাসনের বিরোধী হবার সম্ভাবনা আরো দূরাহত হলো৷

শুলৎসের আগমন এসপিডিকে আরো এক বা দুই শতাংশ ভোট এনে দেবে, বলে পর্যবেক্ষকরা ধরে নিচ্ছেন৷ অপরদিকে এএফডি যদি ১০ থেকে ২০ শতাংশ ভোট সংগ্রহ করে, তাহলে চলতি ‘বড় জোট' ছাড়া আর কোনো পন্থা বাকি থাকবে না৷ এবং আঙ্গেলা ম্যার্কেল যে সেই ‘নতুন' জোট সরকারেরও চ্যান্সেলর হবেন, তা ধরে নেওয়া যেতে পারে৷

জেফারসন চেজ/এসি

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

সুবিখ্যাত ম্যার্কেল মুদ্রা

ব্রীড়া থেকেই হোক, বা ঝানু রাজনীতিকের পরিশীলিত ভঙ্গিই হোক, ম্যার্কেল যে হাতের আঙুলগুলো জোড়া দিয়ে কী বলতে চাইছেন, তা তিনি নিজেই জানেন...

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

ইউরোপীয় রাজনীতিক

সার্বভৌম, উৎসাহী অথচ নিরুদ্বেগ অভিব্যক্তি নিয়ে ইউরোপীয় রাজনীতির মঞ্চে চলাফেরা করেন জার্মান চ্যান্সেলর৷ ছবিতে তিনি ব্রাতিস্লাভায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাম্প্রতিক শীর্ষবৈঠকে৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

চ্যান্সেলরের সঙ্গে সেলফি

উদ্বাস্তু সংকট ম্যার্কেলের রাজনৈতিক জীবনে একটা বড় প্রসঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ তবুও গতবছর বার্লিনের মারৎসান এলাকার একটি উদ্বাস্তু শিবিরে সিরিয়া থেকে আগত এক রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীকে তাঁর সঙ্গে সেলফি তোলার সুযোগ দেন ম্যার্কেল৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

সরকারপ্রধান

চ্যান্সেলর হিসেবে ম্যার্কেলকে দেখা যায় তাঁর স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিমা ও ভূমিকায়৷ সঙ্গে ভাইস চ্যান্সেলর সিগমার গাব্রিয়েল৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

নারীসুলভ

হঠাৎ কিছুটা অন্তরঙ্গতা ও একটি হাসি৷ ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রঁসোয়া ওলঁদকেও পার্ফেক্ট জেন্টলম্যান বলা চলে৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

জোট সরকার

ম্যার্কেলের দুই জোট সহযোগী, এসপিডি প্রধান সিগমার গাব্রিয়েল ও সিএসইউ প্রধান হর্স্ট জেহোফারকে দেখলে বোঝা যায়, ‘অ্যাঞ্জি’ মাথা ঠান্ডা না রাখলে বিপদ ঘটতে কতক্ষণ?

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

বৈজ্ঞানিক মনোবৃত্তি

পদার্থবিদ্যায় ডক্টরেট ডিগ্রির অধিকারিনী ম্যার্কেলের ইন্টারনেট বা ডিজিটাল মিডিয়াগুলোর জন্যে খুব একটা সময় থাকে না৷ তবে টুইট করতে ভালোবাসেন৷ ২০১৫ সালে জাতিসংঘের একটি ফোরামে ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক সাকারবার্গের সঙ্গে আগ্রহ নিয়েই আলোচনা করছেন!

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

যাজক তনয়া

২০১৬ সালে পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে ব্যক্তিগত সাক্ষাৎ প্রটেস্টান্ট যাজকের কন্যা ম্যার্কেলের পক্ষে একটি বিশেষ মুহূর্ত৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

শ্যাম্পেন পান করার মতো উপলক্ষ্য চাই

যেমন জার্মানি ও ফ্রান্সের মধ্যে এলিসি চুক্তির ৫০ বছর পূর্তি৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

ক্ষমতার নেশা চেনেন ম্যার্কেল

২০১১ সালে ডয়চে ব্যাংকের প্রধান ইয়োসেফ আকারমান-এর সঙ্গে বৈঠকে সম্ভবত চলতি আর্থিক সংকট নিয়েই কথা হয়েছিল৷

Flash-Galerie Merkel in Polen

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

ছুটিছাটায়

চ্যান্সেলরও মানুষ, তাঁরও ছুটি লাগে৷ তবে ছুটিতেও পাপারাৎসিদের হাত থেকে মুক্তি নেই আঙ্গেলা ম্যার্কেলের৷ ছবিতে তাঁর স্বামী ইওয়াখিম সাওয়ারকে দেখা যাচ্ছে (বাঁয়ে)৷

নানা মুডে আঙ্গেলা ম্যার্কেল

সে অনেকদিন আগের কথা

তরুণ সিডিইউ রাজনীতিক আঙ্গেলা ম্যার্কেল দলীয় সতীর্থ আনেট শাভান ও প্রবীণ সিডিইউ রাজনীতিক এর্ভিন টয়ফেল-এর সঙ্গে দক্ষিণ জার্মানিতে সাইকেল টুরে৷ তখনও তাঁর মুখে অভিজ্ঞতা ও ক্ষমতার ছাপ পড়েনি৷

আমাদের অনুসরণ করুন