যুক্তরাষ্ট্রের জলবায়ু পরিকল্পনা নিয়ে ইইউ-র প্রশংসা

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার লক্ষ্যে ‘ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান' ঘোষণা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ দেশে সমালোচনা এবং প্রতিবাদের মুখে পড়লেও যুক্তরাষ্ট্রের এ উদ্যোগের প্রশংসা করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন৷

সোমবার জলবায়ুর ক্ষতিকর পরিবর্তন মোকাবিলার জন্য ‘ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান' ঘোষণা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ তাঁর ঘোষণা করা স্বচ্ছ বা পরিচ্ছন্ন বিদ্যুৎ পরিকল্পনার মূল লক্ষ্য, ১৫ বছরের মধ্যে দেশের সব বিদ্যুৎ কেন্দ্রে গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমন প্রায় এক-তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনা৷ ‘ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান' ঘোষণার সময় ওবামা বলেন, ‘‘আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য জলবায়ু পরিবর্তনের চেয়ে বড় কোনো হুমকি নেই৷''

‘ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান' অনুযায়ী আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র বিদ্যুৎ খাত থেকে কার্বন ডাই-অক্সাইডের নিঃসরণ ৩২ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে আনবে৷ এই ঘোষণা অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রে সব মহলের প্রশংসা কুড়ায়নি৷ রিপাবলিকান মনে করে, এই পরিকল্পনা যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব ফেলবে৷

মোরি আর মিলা

জার্মানির বিদ্যুৎ কোম্পানি আরডাব্লিউই একটি কয়লা খনির পরিধি বাড়ানোর জন্য প্রাচীন একটি বনের গাছপালা কাটতে চায়৷ কিন্তু মোরি আর মিলা এবং তাঁদের সহযোগীরা তা হতে দিতে চান না৷ তাই ঐ বনের কয়েকটি গাছে বাসা বানিয়ে সেখানে অবস্থান করছেন তাঁরা৷ এমনকি মাঝেমধ্যে কয়লা খনিতে থাকা ‘এক্সকাভেটর’-এ ঢুকে তাঁরা তালা লাগিয়ে দেন, যেন কেউ সেটা চালাতে না পারে৷

প্লাস্টিক বোতল দিয়ে নৌকা

আমস্টারডামের স্মিট শহরের খালগুলোতে পড়ে থাকা প্লাস্টিক বোতল সংগ্রহ করেন৷ পরে সেগুলো দিয়ে নৌকা তৈরি করেন, যেগুলো ঐ খালেই চলে৷

নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহার

গাস ফান ডেয়ার ফেন আমস্টারডামের পুরনো একটি শিপ ইয়ার্ড এলাকা পরিষ্কার করে সেখানে একটি অফিস ভবন তৈরি করেছেন, যেটা চলে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও রিসাইকেল করা জিনিস-পত্র দিয়ে৷ এমনকি নিজেদের মলমূত্র থেকে সার তৈরি করে সেই সার দিয়ে সবজি চাষ করেন গাস ফেন ও তাঁর সহকর্মীরা৷

সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

বৈশ্বিক উষ্ণতা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে রাখাতে সম্মত হয়ে ১৯৫টি দেশ ২০০৯ সালে একটি চুক্তি সই করেছিল৷ বেলজিয়ামও সেই অঙ্গীকার করেছিল৷ কিন্তু সরকার সেটা পূরণে যথেষ্ট পদক্ষেপ না নেয়ায় সরকারের উপর নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করে যাচ্ছেন ইগনাসে শোপস ও তাঁর সহকর্মীরা৷

সৌরশক্তি দিয়ে নৌকা

জার্মানির টোবিয়াস পাসুটলকা নৌকা চালাতে ও মাছ ধরতে খুব পছন্দ করেন৷ তিনি তাঁর মাছ ধরার পুরনো নৌকাকে সৌরশক্তি দিয়ে চালানোর উপযোগী করেছেন৷ সূর্য কম থাকা দিনগুলোতেও সেটা চলে৷ মাছ ধরার পাশাপাশি তিনি তাঁর নৌকায় পর্যটক সহ বন্ধুবান্ধব ও শিক্ষার্থীদের বার্লিন ঘুরিয়ে দেখান৷

দৈহিক শক্তি দিয়ে রিকশা চালানো

বার্লিনে পর্যটকদের আকর্ষণ করতে কয়েক বছর ধরে রিকশার আবির্ভাব হয়েছে৷ তবে সেগুলো চলে বৈদ্যুতিক শক্তিতে৷ কিন্তু গিডো বোর্গার্স ব্যতিক্রম৷ তিনি কোনো জ্বালানি ব্যবহার না করে শারীরিক শক্তি দিয়েই রিকশা চালিয়ে নিয়ে যান৷ প্লাস্টিক ব্যাগ ছাড়া দোকান!

ব্যাগহীন দোকান

বাজারে জিনিস-পত্র কিনে প্লাস্টিকের ব্যাগে ভরেই বাসায় ফেরেন বেশিরভাগ জার্মান৷ কিন্তু মিলেনা গ্লিমবোভস্কির প্রশ্ন, এত প্লাস্টিকের কী দরকার? তাই নিজের দোকানে তিনি কোনো প্লাস্টিকের ব্যাগই রাখেননি৷ এভাবে তিনি ক্রেতাদের জলবায়ু সম্মত উপায়ে কেনাকাটায় উৎসাহিত করেন৷

যুক্তরাষ্ট্রের জ্বালানি খাতের কয়েকটি সংগঠন বলেছে, তারা মনে করে, ওবামার এই পরিকল্পনা এক অর্থে ‘কয়লার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা'৷

তবে যুক্তরাষ্ট্রে সরকার বিরোধী এবং জ্বালানি শিল্প সংশ্লিষ্টদের কারো কারো সমালোচনার মুখে পড়লেও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ওবামা প্রশাসনের এই জলবায়ুর ক্ষতিকর পরিবর্তন রোধের এই পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়েছে৷ টুইটারে ওবামা প্রশাসনের প্রশংসা করে ইইউ-র জলবায়ু বিষয়ক কমিশনার আরিয়াস মিগেল কানিয়েটে লিখেছেন, ‘আগামীর দিকে এ এক ইতিবাচক পদক্ষেপ৷'

ডিসেম্বরে প্যারিসে অনুষ্ঠিত হবে জলবায়ু বিষয়ক বিশ্ব সম্মেলন৷ তার আগে ওবামার ঘোষণা করা এই পরিকল্পনাকে জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা খুব তাৎপর্যপূর্ণ মনে করছেন৷ বিশ্বের সবচেয়ে বেশি কার্বন নিঃসরণকারী দেশ চীন৷ তারপরই যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স, এপি)

সোমবার জলবায়ুর ক্ষতিকর পরিবর্তন মোকাবিলার জন্য ‘ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান' ঘোষণা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ তাঁর ঘোষণা করা স্বচ্ছ বা পরিচ্ছন্ন বিদ্যুৎ পরিকল্পনার মূল লক্ষ্য, ১৫ বছরের মধ্যে দেশের সব বিদ্যুৎ কেন্দ্রে গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমন প্রায় এক-তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনা৷ ‘ক্লিন পাওয়ার প্ল্যান' ঘোষণার সময় ওবামা বলেন, ‘‘আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য জলবায়ু পরিবর্তনের চেয়ে বড় কোনো হুমকি নেই৷''