রাজ্য নির্বাচনের আগে ম্যার্কেলের নেতৃত্ব প্রশ্নের মুখে

গতমাসে জার্মান সংসদে নিজের অন্যতম ঘনিষ্ঠ সহচর ফল্কার কাউডারকে হারিয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ শনিবার তাঁর সিডিইউ দলের তরুণ কর্মীদের সংগঠন ‘ইয়ুঙ্গে উনিয়ন' বা জেইউ-র সম্মেলনেও সমালোচনার মুখে পড়তে হয় তাঁকে৷

তারপরও ডিসেম্বরে দলের সম্মেলনেম্যার্কেলের নেতৃত্ব কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে পারে – এই কথা বিশ্বাস করার মতো রাজনৈতিক বিশ্লেষকের সংখ্যা কমই হবে৷

জেইউ-র সম্মেলনেও সেই ধারণা পরিষ্কার হয়েছে৷ বক্তারা ম্যার্কেলের সমালোচনা করলেও দলের জন্য এখনো যে নতুন নেতৃত্বের সময় আসেনি, তা-ও বুঝিয়ে দিয়েছেন৷

জেইউ নেতা পাউল সিমিয়াক ম্যার্কেলের প্রতি দলকে আধুনিক করার আহ্বান জানিয়েছেন৷ তাঁর এই আহ্বানের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন সম্মেলনে উপস্থিত কর্মীরা৷

জার্মানির বাভারিয়া রাজ্যে ম্যার্কেলের ‘খ্রিস্টীয় গণতন্ত্রী দল' সিডিইউর সহযোগী দল হচ্ছে সিএসইউ৷ আগামী রবিবার ঐ রাজ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ তবে সবশেষ জরিপে দেখা গেছে, সিএসইউ-র জনপ্রিয়তা এবার রেকর্ড পরিমাণ কমে গেছে৷

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে সিএসইউ দল একাই বাভারিয়ার সরকার পরিচালনা করেছে৷ কারণ, দলটি প্রায় ৫০ শতাংশের মতো ভোট পেতো৷ কিন্তু সবশেষ জরিপ বলছে, সিএসইউ এবার ৩৩ শতাংশ ভোট পেতে পারে৷ রবিবারের নির্বাচনে যদি জরিপের ফলাফলের প্রতিফলন ঘটে, তাহলে এবার জোট সরকারের দিকে যেতে হতে পারে৷

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

উদ্বাস্তুদের জন্য ভাষাশিক্ষার পাঠক্রম

জার্মানিতে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়া এক কথা, এখানে স্থায়ীভাবে বসবাস করা আরেক কথা৷ কারণ তার জন্য প্রয়োজন জার্মান ভাষা শেখা৷ সেটা তো শুধু ক্লাসরুমের বেঞ্চিতে বসেই নয়, বাস্তব ও ব্যবহারিক জীবনেও জার্মান ভাষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে অনেক কিছু শেখা যায় – যেমন বন শহরের পথেঘাটে৷

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

‘ইন্টেগ্রেশন কোর্স’

বিদেশি-বহিরাগতকে সমাজে অন্তর্ভুক্ত করা, সমাজের অংশ করে তোলাকে জার্মানে বলে ‘ইন্টেগ্রেশন’৷ এসিবি লিঙ্গুয়া ল্যাঙ্গুয়েজ স্কুল রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের জন্য একটি বিশেষ ইন্টেগ্রেশন কোর্স চালু করেছে৷ সেই কোর্স অনুযায়ী পড়ুয়াদের মাঝেমধ্যে ক্লাসরুম ছেড়ে পথে বেরিয়ে অচেনা পথচারী বা দোকানিদের জার্মানে প্রশ্ন করতে বলা হয়েছে: ‘আচ্ছা, এটা কী ফল? ঐ সবজিটার নাম কী?’

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

আনারসের আর্বি যেন কী?

দেখলে চিনতে পারার কথা৷ দামটা না লিখলেও চলে, কিন্তু ভবিষ্যতে কাজে লাগতে পারে...৷

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

পরীক্ষায় নকল নয়, তবে শর্টকাট চলে

ছাত্রদের বলে দেওয়া হয়েছে মোবাইল ব্যবহার না করতে, বরং রাস্তা বা অন্যান্য খোঁজখবরের জন্য মানুষজনকে জার্মানে প্রশ্ন করতে৷ কিন্তু ধরুন যদি বাসাম-এর মতো কাউকে পাওয়া যায়, যে জার্মান আর আর্বি, দু’টো ভাষাই জানে, তাহলে তো পোয়াবারো!

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

বেটোফেন যেন কবে জন্মেছেন?

লুডভিশ ফান বেটোফেন সম্ভবত বন শহরের সবচেয়ে বিখ্যাত সন্তান৷ জন্মেছিলেন ১৭৭০ সালে, শহরের মূল চত্বরের কাছের একটি গলিতে বেটোফেনের জন্মের বাড়ি না দেখলে, বন-এ কিছুই দেখা হলো না৷ রাদওয়ান আয়ুজ ও তাঁর ছেলে আলি অতিকষ্টে বেটোফেনের জন্মের তারিখটা খুঁজে বার করেছেন৷

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

রাস্তাঘাট চেনা

টিমকে হয়ত বলে দেওয়া হয়েছে, ‘ফ্রিডেন্সপ্লাৎস’, মানে শান্তির চত্বরে যাও৷ অথবা ৬০৮ নম্বর বাস কোথায় যাচ্ছে? পরের বাসটা আসবে কখন? বাসটা আবার থামে একটি উদ্বাস্তু আবাসের কাছে, যেখানে দলের অনেকের বাস৷

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

বন থেকে চিঠি

কোথাও বসে পোস্টকার্ড লেখা হলো ক্লাসের নতুন কাজ৷ তার জন্যে পোস্ট অফিসে গিয়ে স্ট্যাম্প কিনে, পোস্টকার্ডে সেঁটে পোস্ট করতে হবে৷ স্ট্যাম্পের ‘রিসিট’ রেখে দিতে হবে৷

যেভাবে জার্মান শিখছেন উদ্বাস্তুরা

পয়েন্ট মানেই ‘প্রাইজ’

এরপরেও ডয়চে ভেলের রিপোর্টার যে দলটির সাথে ছিলেন, তাঁরা খুব ভালো ফলাফল করতে পারেনি – সম্ভবত রিপোর্টারের কচকচানি, তার ওপর আবার রিপোর্টারকে কোনো প্রশ্নের উত্তর জিগ্যেস করা চলবে না, এই কারণে৷

বাভারিয়া রাজ্যে সিএসইউ দলের এই খারাপ পরিস্থিতির জন্য দলের অনেক কর্মী ম্যার্কেলকেই দায়ী করেন৷ তাই জেইউ-র সম্মেলনে ম্যার্কেল যখন বক্তব্য দিতে মঞ্চে উঠছিলেন তখন সিডিইউ-র তরুণ কর্মীরা দাঁড়িয়ে অভ্যর্থনা জানালেও সিএসইউ'র কর্মীরা বসেই থাকেন৷ শুধু তাই নয়, ম্যার্কেলের আধ ঘণ্টার বক্তব্যের সময় সিএসইউ'র কর্মীদের কেউ মোবাইলে চোখ রেখেছেন, আর কেউ সংবাদপত্র পড়েছেন৷

এমনকি মাটিয়াস ব্যুটগ্যার নামে সিএসইউ দলের এক কর্মী উঠে দাঁড়িয়ে ম্যার্কেলকে বলেন যে, তাঁর (ম্যার্কেল) নেতৃত্বে দল এগিয়ে যাবে বলে তিনি আর মনে করছেন না৷

সম্মেলন শেষে ব্যুটগ্যার ডয়চে ভেলেকে বলেন, সবশেষ সংসদ নির্বাচনে সিডিইউ-সিএসইউ জোটের খারাপ ফলাফলের পর গত এক বছর ধরে দলের অনেকেই বিষয়টি (ম্যার্কেলের নেতৃত্ব) নিয়ে খোলাখুলি মন্তব্য করছেন৷

সিএসইউ-র আরেক কর্মী টোমাস হাসলিঙ্গার ডয়চে ভেলেকে বলেন,ম্যার্কেলের প্রতি হতাশার কারণ তাঁর নেয়া শরণার্থী নীতি৷ ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে তাঁর নীতির কারণেই অস্ট্রিয়া থেকে অনেক শরণার্থী বাভারিয়ায় প্রবেশ করেছিল৷ ‘‘তাঁর সিদ্ধান্ত ঠিক, না ভুল ছিল, সে মূল্যায়ন আমি করব না৷ কিন্তু বাস্তব হচ্ছে, ঐ নীতির কারণে মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছে,'' বলেন তিনি৷ শরণার্থীবিরোধী দল ‘জার্মানির প্রতি বিকল্প' বা এএফডি দলের আজকের উত্থানের জন্যও ম্যার্কেলকে দায়ী করেন হাসলিঙ্গার৷

সিএসইউ'র মতো সিডিইউ'র তরুণ কর্মীরাও ম্যার্কেলের সমালোচনা করেছেন৷ তবে তারপরও নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের সময় এখন নয় বলেও মনে করেন তাঁরা৷

বেন নাইট/জেডএইচ

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

সমালোচনা ও চাপের মুখে ম্যার্কেল

অভিবাসন প্রত্যাশীদের ব্যাপারে ম্যার্কেল সরকারের উদ্যোগ ইইউভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি৷ তারপরও জার্মানিতে ম্যার্কেল সমালোচিত৷ সরকার বিরোধীদের একটা অংশ মনে করে, ম্যার্কেল প্রশাসন ধীরে চলো নীতি অবলম্বন করে সংকট ঘণীভূত করছে৷ জার্মানিতে শরণার্থী বিরোধী ক্ষোভও দেখা দিয়েছে৷ সব মিলিয়ে শরণার্থী ইস্যু নিয়ে বেশ চাপে আছে ম্যার্কেল সরকার৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

সবচেয়ে বড় সংকট!

ক’দিন আগেও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সবচেয়ে বড় সংকট মনে করা হতো গ্রিসের অর্থনৈতিক বিপর্যয়কে৷ সেই বিপর্যয় এখনো কাটেনি৷ তবে আতঙ্কে আরো বড় হয়ে উঠেছে শরণার্থী সংকট৷ জার্মানিতে প্রতিদিনই আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সংখ্যা বৃদ্ধির চাপ৷ জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল একাধিকবার বলেছেন, ইউরোপে গ্রিসের চেয়ে বড় সংকট হয়ে দেখা দিতে পারে শরণার্থী ইস্যু৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

করণীয়

বর্তমান হারে চলতে থাকলে ২০১৫ সালে আগত শরণার্থীর সংখ্যা যে বছর শেষে ৮ থেকে ১০ লাখ দাঁড়াবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই৷ রবিবার ম্যার্কেল বলেছেন, এতদিন শরণার্থীদের স্বাগত জানিয়ে এলেও এ হারে চাপ বাড়তে থাকলে আগামীতে জার্মানির পক্ষে খুব বেশি ভূমিকা রাখা সম্ভব হবে না৷ ইইউভুক্ত অন্য সব দেশকে তাই দ্রুত আরো উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷ এ লক্ষ্যে জরুরি বৈঠক আয়োজনের জন্য ইইউ-র প্রতি আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

নড়েচড়ে বসছে ইইউ

ইউরোপীয় ইউনিয়ন শরণার্থী সংকট মোকাবিলার জন্য দু’সপ্তাহের মধ্যে সদস্য দেশগুলোর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি বৈঠকের আয়োজন করবে৷ ইইউ-ও মনে করে, ব্যাপক হারে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আগমন সংকটকে ভয়াবহ করে তুলছে৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

জার্মানিতে শরণার্থী বিরোধী ক্ষোভ

জার্মানির কিছু অঞ্চলে শরণার্থীদের প্রতি ক্ষোভ, অসন্তোষ বেশ বেড়েছে৷ শরণার্থী শিবিরে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেই চলেছে৷ এ পর্যন্ত ১০০টি এমন ঘটনা ঘটেছে৷ গত সপ্তাহান্তে ড্রেসডেনের কাছের হাইডেনাউ শহরে শরণার্থীবিরোধীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে৷ সংঘর্ষে ৩০ জন পুলিশ আহত হয়৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

সাধারণ মানুষ শরণার্থীদের পাশে

জার্মানির অধিকাংশ মানুষই শরণার্থীদের প্রতি সহানুভূতিশীল৷ নানা স্থানে সাধারণ মানুষ স্বেচ্ছায় শরণার্থীদের সহায়তায় এগিয়ে আসছে৷ ড্রেসডেনে শরণার্থীবিরোধী বিক্ষোভের পর ৫ হাজার মানুষ নেমে আসে রাস্তায়৷ শান্তিপূর্ণ পদযাত্রায় যুদ্ধ কিংবা অভাবের তাড়ণায় মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা এবং এশিয়া থেকে আসা অসহায় মানুষদের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেছেন তাঁরা৷ ওপরে শরণার্থীদের জন্য আয়োজিত এক মেলার ছবি৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

কেউ খাওয়াচ্ছেন স্যুপ

ভিলহাইমের এই তরুণী ঘরে তৈরি ভেজিটেবল স্যুপ নিয়ে হাজির হয়েছিলেন শরণার্থী শিবিরে৷ নিজে উপস্থিত থেকে সেই স্যুপ খাইয়েছেন শরণার্থীদের৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

কেউ শেখাচ্ছেন ভাষা

ছবির এই দুই অভিবাসনপ্রত্যাশী এসেছেন সোমালিয়া থেকে৷ বায়ার্নের থানহাউসেনে পৌঁছানোর পর জার্মান ভাষাও শিখতে শুরু করেছেন৷ সাবেক এক জার্মান শিক্ষক নিজের উদ্যোগে স্কুল খুলে ভাষা শেখাচ্ছেন শরণার্থীদের৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

নাচো-গাও

ড্রেসডেনে নব্যনাৎসি বিরোধী সংগঠন ‘ড্রেসডেন নাৎসিফ্রাই’ শরণার্থীদের জন্য অভিবনব এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল৷ অনুষ্ঠানে অভিবাসনপ্রত্যাশী এবং তাঁদের প্রতি সহানুভূতিশীল জার্মানরা একসঙ্গে নেচেছেন, গেয়েছেন৷

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নিয়ে উদ্বেগ এবং উদ্যোগ

প্রবাসেই সুখী

অনেক শরণার্থীই শুরু করেছেন নতুন জীবন৷ শঙ্কা, উৎকণ্ঠা, অনিশ্চয়তা সরিয়ে সুযোগ পেলে পরিবারের সবাইকে নিয়ে আনন্দও করছেন তাঁরা৷ সিরিয়া থেকে আসা এই পরিবারটি অবসর সময়ে চলে যায় সমুদ্র সৈকতে৷ প্রবাসেও তাঁরা বেশ সুখী৷

আমাদের অনুসরণ করুন