রামপালে তাহলে ভারতের ‘নিম্নমানের' কয়লা পোড়ানো হবে?

রামপালে ভারতের কয়লা পোড়ানো নিয়ে আগে থেকেই কানাঘুষা চলছিল৷ বাংলাদেশ এ বিষয়ে পরিষ্কার কিছু জানায়নি৷ তবে ভারতের গণমাধ্যম ইঙ্গিত দিচ্ছে, ভারতের কয়লাই রামপালে পোড়ানো হতে পারে৷ এটা সত্যি হলে উদ্বেগের কারণ আছে৷

বাংলাদেশের সুন্দরবনের কাছে ভারতের সহায়তায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের বিরোধিতা করছেন পরিবেশবাদী অ্যাক্টিভিস্টরা৷ তাদের বক্তব্য হচ্ছে, নির্মাণাধীন কয়লা খনিটির কার্যক্রম শুরু হলে তা সুন্দরবনের জন্য হবে বিপর্যয়কর৷ পরিবেশ দূষণের কারণে সুন্দরবন একসময় ধ্বংস হয়ে যাবে – এই বক্তব্যের পক্ষে অনলাইনে এবং অফলাইনে নানারকম যুক্তি দিয়েছেন তাঁরা৷ এসব যুক্তির একটি হচ্ছে, রামপালে ব্যবহারের জন্য ভারতের কয়লা আমদানি করা হতে পারে, আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে যা অত্যন্ত নিম্নমানের৷ এই কয়লা পোড়ালে মাত্রাতিরিক্ত সালফার উৎপন্ন হয়, যা পরিবেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি রামপালের ইতিবাচক দিকগুলো নিয়ে এবং কেন সেটি সুন্দরবনের জন্য ক্ষতিকর হবে না – তা জানাতে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন৷

সেখানে তিনি বিভিন্ন বক্তব্য দিলেও ভারত থেকে কয়লা আমদানি করা হবে না এমন কোনো বক্তব্য দেননি৷ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিকদের বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করার সুযোগ থাকলেও তারা তা করার বদলে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেই সময় কাটিয়েছেন৷ ফলে ব্যাপারটি নিয়ে ধোঁয়াশা রয়ে গিয়েছিল৷

ভারতীয় গণমাধ্যম অবশ্য মঙ্গলবার বিষয়টি পরিষ্কার করে দিয়েছে৷ সে দেশের কয়লা বিষয়ক সচিব অনিল স্বরুপ জানিয়েছেন, কয়লা রপ্তানির ব্যাপারে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত সরকারের ‘গভীর আলোচনা' চলছে৷ ভারতে কয়লার চাহিদা কমে যাওয়ায় এবং রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র হওয়ায় রপ্তানির ব্যাপারটি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন স্বরূপ৷ তিনি আশা করেছেন, পাশের দেশে রপ্তানি সম্ভব হলে ভারতীয় কয়লার বিক্রি বাড়বে৷

DW Bengali Arafatul Islam

আরাফাতুল ইসলঅম, ডয়চে ভেলে

এখানে বলে রাখা ভালো, রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধীতাকে ‘ভারত বিরোধীতা' বলে আখ্যা দিচ্ছে খোদ বাংলাদেশ সরকার৷ ফলে যাঁরা এই আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন, তাদের উপর এক ধরনের ‘সাম্প্রদায়িকতার' ছাপ এঁটে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে, যা এড়াতে বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ এই বিষয়ে কথা বলা থেকে বিরত থাকছেন৷ ডয়চে ভেলেকে এরকম একজন বিশেষজ্ঞ কিছুদিন আগে জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশ সরকার অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে রামপালের জন্য কয়লা আনার কথা বললেও কয়লা আসলে আনা হবে ভারত থেকে৷ আর আন্তর্জাতিকভাবেই ভারতের কয়লাকে ‘নিম্নমানের' বিবেচনা করা হয়, কেননা এতে সালফারের পরিমাণ বেশি৷

শুধু বাংলাদেশ নয়, ভারতের অনেক পরিবেশবাদীও রামপালে কয়লাভিত্তিক প্রকল্পের বিরোধিতা করেছেন সুন্দরবনের ক্ষতির বিষয়টি বিবেচনায় এনে৷ তাদের আলোচনায় এটাও উঠে এসেছে যে, সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে ট্রাকে করে কয়লা পরিবহণ করা হতে পারে, যা বনের ক্ষতির মাত্রা আরো বাড়াবে৷

প্রশ্ন হচ্ছে, এত ক্ষতির কথা জেনেও বাংলাদেশ সরকার রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে মরিয়া কেন? আপনার মতামত লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

মোশাহিদা সুলতানা, শিক্ষক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয়ের শিক্ষক মোশাহিদা সুলতানা ঋতুর মতে, সুন্দরবনের পাশে এত বড় একটা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করে একে ঝুঁকির মধ্যে ফেলা কোনোভাবেই ঠিক হবে না৷ তাঁর মতে, সুন্দরবনের কোনো বিকল্প নেই, কিন্তু বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিকল্প আছে৷

সায়েম ইউ চৌধুরী, পাখি ও বন্যপ্রাণী গবেষক

৪০ বারেরও বেশি সুন্দরবনে গেছেন সায়েম৷ তিনি জানান, সম্প্রতি চট্টগ্রামের একটি সার কারখানা থেকে অ্যামোনিয়া গ্যাস নিঃসরণ হয়ে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হয়৷ পুকুরের মাছ, গাছপালা, প্রাণী – সব মারা পড়ে৷ এ রকম ছোট একটা সার কারখানার দুর্ঘটনা থেকে আমাদের পরিবেশ রক্ষা করার সক্ষমতা যেখানে নেই, সেখানে এত বড় একটি বিদ্যুৎকেন্দ্রে কোনো দুর্ঘটনা হলে আমাদের সরকার কী-ই বা করার থাকবে?

মারুফ বিল্লাহ, স্থানীয় বাসিন্দা

মারুফ বিল্লাহর জন্ম রামপালেই৷ ছোটবেলা থেকেই তিনি সুন্দরবনকে ধ্বংস হতে দেখে আসছেন৷ আর এখন সুন্দরবন ঘেঁষে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করে একে ধ্বংসের আরেক পায়তারা করছে সরকার৷ তিনি জানান, সিডর আর আইলার পরে আমরা দেখেছি ঐ জনপদকে সে যাত্রায় বাঁচিয়েছিল সুন্দরবন৷ এখন যদি আমরাই তাকে মেরে ফেলি, তাহলে জনগণ কোথায় যাবে? তাই তাঁর প্রশ্ন, জীবন আগে, নাকি বিদ্যুৎ আগে?

সাইমুম জাহান হিয়া, শিক্ষার্থী

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইমুম জাহান হিয়া মনে করেন, সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশের পরিচয় বহন করে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই ম্যানগ্রোভ বন৷ এর পাশে বিশাল আকারের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে যে কখনো কোনো দুর্ঘটনা হবে না – এটা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারবে না৷ তাঁর মতে, দেশের উন্নয়নের জন্য বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রয়োজন আছে, এটা ঠিক, তবে সেটা সুন্দরবনকে ধ্বংস করে নয়৷

হাসিব মোহাম্মদ, শিক্ষার্থী

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হাসিব মোহাম্মদ কয়েকবার সুন্দরবনে গেছেন৷ আসলে এই বনাঞ্চলের জীববৈচিত্র তাঁকে সবসময় টানে৷ তাই এ বনের কোনোরকম ক্ষতি করে তিনি এর কাছাকাছি রামপালের মতো কোনো বিদ্যুৎকেন্দ্র চান না৷ গত বছরের কয়েকটি ছোট ছোট জাহাজ সুন্দরবনে ডোবার পর যে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল, সে কথাও মনে করিয়ে দেন তিনি৷ তাঁর আশঙ্কা, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু হলে জাহাজ চলাচল বেড়ে গিয়ে দুর্ঘটনাও বাড়বে৷

মিমু দাস, শিক্ষার্থী

লেদার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র মিমু দাসও মনে করেন, সুন্দরবনের এত কাছে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করা ঠিক হবে না৷ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার খবর পড়ে তাঁর মনে হয়েছে যে, এই বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি করবে৷ মিমু বিদ্যুৎকেন্দ্র চান, তবে সেটা অন্য কোথাও৷

আদনান আজাদ আসিফ, মডেল ও অভিনেতা

মডেল ও অভিনেতা আদনান আজাদ আসিফ একজন ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফারও৷ কয়েক বছর ধরে সময় পেলেই তিনি সুন্দরবনে ছুটে যান৷ বিশ্বের সবেচেয়ে বড় এই ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট বেঙ্গল টাইগারের একমাত্র আবাসস্থল৷ তাঁর মতে, সুন্দরবন বাংলাদেশের ফুসফুস৷ আর এমনিতেই নানা কারণে এখানে বাঘের সংখ্যা অস্বাভাবিক হারে হ্রাস পেয়েছে৷ তাই এর কাছাকাছি পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর এমন কোনো প্রকল্প করে এ বনকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়া ঠিক হবে না৷

আমিনুর রহমান, চাকুরিজীবী

ঢাকার একটি পরিবহন সংস্থায় কাজ করেন আমিনুর রহমান৷ তাঁর মতে, দেশের উন্নয়নের জন্য বিদ্যুৎ দরকার৷ তাই বড় কোনো বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে দেশের জন্য ভালোই হবে৷ তাছাড়া তিনি শুনেছেন যে, রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে তা সুন্দরবনের কোনো ক্ষতিই করবে না৷

আব্দুল আজীজ ঢালী, মধু চাষি

সুন্দরবনে গত ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মধু আহরণ করেন সাতক্ষীরার আব্দুল আজীজ ঢালী৷ জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এ বনের সঙ্গে থাকতে চান তিনি৷ সুন্দরবনে থাকলেও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র সম্পর্কে কিছুই জানেন না আব্দুল আজীজ৷

ভবেন বিশ্বাস, মাছ শিকারি

ভবেন বিশ্বাসের জীবিকার অন্যতম উৎস সুন্দরবন৷ উদবিড়াল দিয়ে এ বনে তিনি মাছ ধরেন ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে৷ তাঁর বাবা ও ঠাকুরদাদার এ পেশা এখনো তিনি ধরে রেখেছেন৷ রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে এ খবর তিনি শুনে থাকলেও, এর ভালো বা খারাপের দিকগুলো – কিছুই জানা নেই তাঁর৷ তবে সুন্দরবনকে তিনি ভালোবাসেন, খুব ভালোবাসেন৷

মারুফ বিল্লাহর জন্ম রামপালেই৷ ছোটবেলা থেকেই তিনি সুন্দরবনকে ধ্বংস হতে দেখে আসছেন৷ আর এখন সুন্দরবন ঘেঁষে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করে একে ধ্বংসের আরেক পায়তারা করছে সরকার৷ তিনি জানান, সিডর আর আইলার পরে আমরা দেখেছি ঐ জনপদকে সে যাত্রায় বাঁচিয়েছিল সুন্দরবন৷ এখন যদি আমরাই তাকে মেরে ফেলি, তাহলে জনগণ কোথায় যাবে? তাই তাঁর প্রশ্ন, জীবন আগে, নাকি বিদ্যুৎ আগে?

লেদার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র মিমু দাসও মনে করেন, সুন্দরবনের এত কাছে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করা ঠিক হবে না৷ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার খবর পড়ে তাঁর মনে হয়েছে যে, এই বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি করবে৷ মিমু বিদ্যুৎকেন্দ্র চান, তবে সেটা অন্য কোথাও৷

সুন্দরবনে গত ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মধু আহরণ করেন সাতক্ষীরার আব্দুল আজীজ ঢালী৷ জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এ বনের সঙ্গে থাকতে চান তিনি৷ সুন্দরবনে থাকলেও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র সম্পর্কে কিছুই জানেন না আব্দুল আজীজ৷

বাংলাদেশের সুন্দরবনের কাছে ভারতের সহায়তায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের বিরোধিতা করছেন পরিবেশবাদী অ্যাক্টিভিস্টরা৷ তাদের বক্তব্য হচ্ছে, নির্মাণাধীন কয়লা খনিটির কার্যক্রম শুরু হলে তা সুন্দরবনের জন্য হবে বিপর্যয়কর৷ পরিবেশ দূষণের কারণে সুন্দরবন একসময় ধ্বংস হয়ে যাবে – এই বক্তব্যের পক্ষে অনলাইনে এবং অফলাইনে নানারকম যুক্তি দিয়েছেন তাঁরা৷ এসব যুক্তির একটি হচ্ছে, রামপালে ব্যবহারের জন্য ভারতের কয়লা আমদানি করা হতে পারে, আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে যা অত্যন্ত নিম্নমানের৷ এই কয়লা পোড়ালে মাত্রাতিরিক্ত সালফার উৎপন্ন হয়, যা পরিবেশের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর৷

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি রামপালের ইতিবাচক দিকগুলো নিয়ে এবং কেন সেটি সুন্দরবনের জন্য ক্ষতিকর হবে না – তা জানাতে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন৷

সেখানে তিনি বিভিন্ন বক্তব্য দিলেও ভারত থেকে কয়লা আমদানি করা হবে না এমন কোনো বক্তব্য দেননি৷ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিকদের বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করার সুযোগ থাকলেও তারা তা করার বদলে প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেই সময় কাটিয়েছেন৷ ফলে ব্যাপারটি নিয়ে ধোঁয়াশা রয়ে গিয়েছিল৷

ভারতীয় গণমাধ্যম অবশ্য মঙ্গলবার বিষয়টি পরিষ্কার করে দিয়েছে৷ সে দেশের কয়লা বিষয়ক সচিব অনিল স্বরুপ জানিয়েছেন, কয়লা রপ্তানির ব্যাপারে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত সরকারের ‘গভীর আলোচনা' চলছে৷ ভারতে কয়লার চাহিদা কমে যাওয়ায় এবং রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র হওয়ায় রপ্তানির ব্যাপারটি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন স্বরূপ৷ তিনি আশা করেছেন, পাশের দেশে রপ্তানি সম্ভব হলে ভারতীয় কয়লার বিক্রি বাড়বে৷

DW Bengali Arafatul Islam

আরাফাতুল ইসলঅম, ডয়চে ভেলে

এখানে বলে রাখা ভালো, রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধীতাকে ‘ভারত বিরোধীতা' বলে আখ্যা দিচ্ছে খোদ বাংলাদেশ সরকার৷ ফলে যাঁরা এই আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন, তাদের উপর এক ধরনের ‘সাম্প্রদায়িকতার' ছাপ এঁটে দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে, যা এড়াতে বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ এই বিষয়ে কথা বলা থেকে বিরত থাকছেন৷ ডয়চে ভেলেকে এরকম একজন বিশেষজ্ঞ কিছুদিন আগে জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশ সরকার অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে রামপালের জন্য কয়লা আনার কথা বললেও কয়লা আসলে আনা হবে ভারত থেকে৷ আর আন্তর্জাতিকভাবেই ভারতের কয়লাকে ‘নিম্নমানের' বিবেচনা করা হয়, কেননা এতে সালফারের পরিমাণ বেশি৷

শুধু বাংলাদেশ নয়, ভারতের অনেক পরিবেশবাদীও রামপালে কয়লাভিত্তিক প্রকল্পের বিরোধিতা করেছেন সুন্দরবনের ক্ষতির বিষয়টি বিবেচনায় এনে৷ তাদের আলোচনায় এটাও উঠে এসেছে যে, সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে ট্রাকে করে কয়লা পরিবহণ করা হতে পারে, যা বনের ক্ষতির মাত্রা আরো বাড়াবে৷

প্রশ্ন হচ্ছে, এত ক্ষতির কথা জেনেও বাংলাদেশ সরকার রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে মরিয়া কেন? আপনার মতামত লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

মোশাহিদা সুলতানা, শিক্ষক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয়ের শিক্ষক মোশাহিদা সুলতানা ঋতুর মতে, সুন্দরবনের পাশে এত বড় একটা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করে একে ঝুঁকির মধ্যে ফেলা কোনোভাবেই ঠিক হবে না৷ তাঁর মতে, সুন্দরবনের কোনো বিকল্প নেই, কিন্তু বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিকল্প আছে৷

সায়েম ইউ চৌধুরী, পাখি ও বন্যপ্রাণী গবেষক

৪০ বারেরও বেশি সুন্দরবনে গেছেন সায়েম৷ তিনি জানান, সম্প্রতি চট্টগ্রামের একটি সার কারখানা থেকে অ্যামোনিয়া গ্যাস নিঃসরণ হয়ে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হয়৷ পুকুরের মাছ, গাছপালা, প্রাণী – সব মারা পড়ে৷ এ রকম ছোট একটা সার কারখানার দুর্ঘটনা থেকে আমাদের পরিবেশ রক্ষা করার সক্ষমতা যেখানে নেই, সেখানে এত বড় একটি বিদ্যুৎকেন্দ্রে কোনো দুর্ঘটনা হলে আমাদের সরকার কী-ই বা করার থাকবে?

মারুফ বিল্লাহ, স্থানীয় বাসিন্দা

মারুফ বিল্লাহর জন্ম রামপালেই৷ ছোটবেলা থেকেই তিনি সুন্দরবনকে ধ্বংস হতে দেখে আসছেন৷ আর এখন সুন্দরবন ঘেঁষে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করে একে ধ্বংসের আরেক পায়তারা করছে সরকার৷ তিনি জানান, সিডর আর আইলার পরে আমরা দেখেছি ঐ জনপদকে সে যাত্রায় বাঁচিয়েছিল সুন্দরবন৷ এখন যদি আমরাই তাকে মেরে ফেলি, তাহলে জনগণ কোথায় যাবে? তাই তাঁর প্রশ্ন, জীবন আগে, নাকি বিদ্যুৎ আগে?

সাইমুম জাহান হিয়া, শিক্ষার্থী

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইমুম জাহান হিয়া মনে করেন, সারা পৃথিবীতে বাংলাদেশের পরিচয় বহন করে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই ম্যানগ্রোভ বন৷ এর পাশে বিশাল আকারের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে যে কখনো কোনো দুর্ঘটনা হবে না – এটা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারবে না৷ তাঁর মতে, দেশের উন্নয়নের জন্য বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রয়োজন আছে, এটা ঠিক, তবে সেটা সুন্দরবনকে ধ্বংস করে নয়৷

হাসিব মোহাম্মদ, শিক্ষার্থী

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হাসিব মোহাম্মদ কয়েকবার সুন্দরবনে গেছেন৷ আসলে এই বনাঞ্চলের জীববৈচিত্র তাঁকে সবসময় টানে৷ তাই এ বনের কোনোরকম ক্ষতি করে তিনি এর কাছাকাছি রামপালের মতো কোনো বিদ্যুৎকেন্দ্র চান না৷ গত বছরের কয়েকটি ছোট ছোট জাহাজ সুন্দরবনে ডোবার পর যে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল, সে কথাও মনে করিয়ে দেন তিনি৷ তাঁর আশঙ্কা, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু হলে জাহাজ চলাচল বেড়ে গিয়ে দুর্ঘটনাও বাড়বে৷

মিমু দাস, শিক্ষার্থী

লেদার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র মিমু দাসও মনে করেন, সুন্দরবনের এত কাছে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করা ঠিক হবে না৷ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার খবর পড়ে তাঁর মনে হয়েছে যে, এই বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি করবে৷ মিমু বিদ্যুৎকেন্দ্র চান, তবে সেটা অন্য কোথাও৷

আদনান আজাদ আসিফ, মডেল ও অভিনেতা

মডেল ও অভিনেতা আদনান আজাদ আসিফ একজন ওয়াইল্ডলাইফ ফটোগ্রাফারও৷ কয়েক বছর ধরে সময় পেলেই তিনি সুন্দরবনে ছুটে যান৷ বিশ্বের সবেচেয়ে বড় এই ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট বেঙ্গল টাইগারের একমাত্র আবাসস্থল৷ তাঁর মতে, সুন্দরবন বাংলাদেশের ফুসফুস৷ আর এমনিতেই নানা কারণে এখানে বাঘের সংখ্যা অস্বাভাবিক হারে হ্রাস পেয়েছে৷ তাই এর কাছাকাছি পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর এমন কোনো প্রকল্প করে এ বনকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়া ঠিক হবে না৷

আমিনুর রহমান, চাকুরিজীবী

ঢাকার একটি পরিবহন সংস্থায় কাজ করেন আমিনুর রহমান৷ তাঁর মতে, দেশের উন্নয়নের জন্য বিদ্যুৎ দরকার৷ তাই বড় কোনো বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে দেশের জন্য ভালোই হবে৷ তাছাড়া তিনি শুনেছেন যে, রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে তা সুন্দরবনের কোনো ক্ষতিই করবে না৷

আব্দুল আজীজ ঢালী, মধু চাষি

সুন্দরবনে গত ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মধু আহরণ করেন সাতক্ষীরার আব্দুল আজীজ ঢালী৷ জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এ বনের সঙ্গে থাকতে চান তিনি৷ সুন্দরবনে থাকলেও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র সম্পর্কে কিছুই জানেন না আব্দুল আজীজ৷

ভবেন বিশ্বাস, মাছ শিকারি

ভবেন বিশ্বাসের জীবিকার অন্যতম উৎস সুন্দরবন৷ উদবিড়াল দিয়ে এ বনে তিনি মাছ ধরেন ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে৷ তাঁর বাবা ও ঠাকুরদাদার এ পেশা এখনো তিনি ধরে রেখেছেন৷ রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র হচ্ছে এ খবর তিনি শুনে থাকলেও, এর ভালো বা খারাপের দিকগুলো – কিছুই জানা নেই তাঁর৷ তবে সুন্দরবনকে তিনি ভালোবাসেন, খুব ভালোবাসেন৷