রোহিঙ্গাদের নিয়ে উভয় সংকটে বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত না করে তাঁদের মিয়ানমারে পাঠানোর বিরোধিতা করেছে জাতিসংঘ৷ অন্যদিকে ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপ(আইসিজি) রোহিঙ্গাদের অবস্থানের কারণে নিরাপত্তা সংকটের আশঙ্কা করছে৷ তাহলে বাংলাদেশ কোন দিকে যাবে?

জাতিসংঘ বলছে, বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের জোর করে মিয়ানমারে পাঠানো যাবে না৷ যখন তাঁরা নিরাপদ বোধ করবেন, কেউ যখন তাঁদের জোর করে কোথাও যেতে বাধ্য করবে না, কেবল তখনই তাঁরা নিজের দেশে ফিরে যাবেন৷ জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক নিউইয়র্কে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেছেন৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

এর আগে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান জেইদ রাদ আল হোসাইন জেনেভায় বিশেষ মানবাধিকার অধিবেশনে বলেছেন, কোনোভাবেই তাড়াহুড়ো করে পূর্ণ প্রস্ততি ছাড়া রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরত পাঠানো ঠিক হবে না৷ কাউকেই ইচ্ছার বিরুদ্ধে ফেরত পাঠানো যাবে না৷ যদি সেখানে তাঁদের নিরাপত্তা, সম্মান, অধিকার নিশ্চিত না হয় এবং মুক্ত বোধ না করেন, তাহলে তাঁদের ফেরত পাঠানো যায় না৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘আমি জাতিসংঘ মহাসচিবকে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন, তাদের দু:খ কষ্ট নিয়ে আরো উচ্চকিত হতে বলব৷ তাঁরা মিয়ানমারে যে নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হয়েছেন, একই সঙ্গে বাংলাদেশে যে করুণ অবস্থায় আছে, দুটোই তুলে ধরতে হবে৷''

সমাজ

একবছরের শিশু

মনকে নাড়া দেয়া ব্যান্ডেজে মোড়ানো তুলতুলে ছোট্ট এই দু’টি পা শহিদের৷ বয়স মাত্র এক বছর৷ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হামলা থেকে বাঁচতে দাদি তাহেরা যখন পালাচ্ছিলেন, তখন তাঁর কোল থেকে পড়ে যায় ছোট্ট শহিদ৷ ছবিটি কক্সবাজারে রেডক্রসের এক হাসপাতালে ২৮ অক্টোবর তোলা৷

সমাজ

কালাবারো, ৫০

রাখাইনের মংদুতে তাঁদের গ্রামে আগুন ধরিয়ে দেয় সেনা সদস্যরা৷ এতে স্বামী, মেয়ে ও এক ছেলেকে হারান কালাবারো৷ তাঁর ডান পায়ে আঘাত করা হয়৷ যেখানে পড়ে গিয়েছিলেন সেখানেই কয়েক ঘণ্টা মারা যাওয়ার ভান করে ছিলেন তিনি৷

সমাজ

সেতারা বেগম, ১২

নয় ভাই-বোনের মধ্যে একজন সে৷ সেনারা যখন তাদের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়, তখন বাকি আটজন বের হয়ে যেতে পারলেও সে আগুনের মধ্যে আটকা পড়ে গিয়েছিল৷ পরে তাকে উদ্ধার করা হয়৷ তবে পা পুড়ে যায়৷ এই অবস্থায় বাংলাদেশে পৌঁছেছে সে৷ বাংলাদেশেই তার চিকিৎসা করা হয়৷ এখন তার দুই পা থাকলেও নেই কোনো আঙুল৷

সমাজ

নূর কামাল, ১৭

নিজের ঘরে লুকিয়ে ছিল সে৷ সেখান থেকে সৈন্যরা তাকে খুঁজে বের করে প্রথমে রাইফেলের বাট, পরে ছুরি দিয়ে মাথায় আঘাত করে৷ ছবিতে সেটিই দেখা যাচ্ছে৷

সমাজ

আনোয়ারা বেগম, ৩৬

ঘরে আগুনের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘুম থেকে উঠে পালাতে গিয়েছিলেন তিনি৷ তবে এর মধ্যেই পুড়ে যাওয়া ছাদ তাঁর মাথায় ভেঙে পড়ে৷ ফলে শরীরে থাকা নাইলনের কাপড় গলে হাত পুড়িয়ে দেয়৷ ‘‘আমি মনে করেছিলাম, মরে যাব৷ তবে আমার সন্তানদের জন্য বেঁচে থাকার চেষ্টা করছি,’’ রয়টার্সকে বলেন তিনি৷

সমাজ

মমতাজ বেগম, ৩০

সেনারা তাঁর বাড়িতে ঢুকে মূল্যবান জিনিসপত্র দিতে বলেছিল৷ তখন মমতাজ তাঁদের দারিদ্র্যের কথা জানালে সৈন্যরা বলেছিল, ‘‘যদি তোমার কোনো অর্থ না থাকে, তাহলে আমরা তোমাকে হত্যা করব৷’’ এই বলে, সৈন্যরা তাঁকে ঘরে বন্দি করে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল৷ কোনোরকমে সেখান থেকে মুক্তি পেয়ে বের হয়ে দেখেন তাঁর তিন ছেলে মৃত, আর মেয়েকে প্রহার করা হয়েছে, তার রক্ত ঝরছে৷

সমাজ

ইমাম হোসেন, ৪২

মাদ্রাসায় পড়িয়ে ফেরার পথে তিন ব্যক্তি ছুরি নিয়ে তাঁর উপর হামলা করেছিল৷ পরের দিনই তিনি তাঁর স্ত্রী ও দুই সন্তানকে গ্রামের অন্যদের সঙ্গে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেন৷ এরপর তিনিও কক্সবাজারে পৌঁছান৷

সমাজ

মোহাম্মদ জাবাইর, ২১

গ্রামের বাড়িতে এক বিস্ফোরণে তার শরীরের এই অবস্থা৷ ‘‘আমি কয়েক সপ্তাহ অন্ধ ছিলাম৷ কক্সবাজারের এক সরকারি হাসপাতালে ২৩ দিন চিকিৎসাধীন ছিলাম,’’ বলেছে সে৷

অন্যদিকে ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপ (আইসিজি) এক প্রতিবেদনে বলেছে, ‘‘বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বড় ধরনের নিরাপত্তার সংকট তৈরি করতে পারে৷'' তারা বলছে, ‘‘জঙ্গি দলে ভেড়ানোর জন্য উদ্বাস্তু রোহিঙ্গাদের টার্গেট করা হচ্ছে৷'' তারা রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের মধ্যে আরসা'র রিক্রুটমেন্টের কথাও বলেছে৷ বাংলাদেশকে ব্যবহার করে আরসা আন্তঃসীমান্ত হামলার দিকেও যেতে পারে৷
 

আইসিজি মনে করে, রোহিঙ্গাদের ওপর এই নির্যাতন মুসলমানদের ওপর নির্যাতন হিসেবে চিহ্নিত হচ্ছে৷ মিয়ানমারে আল কায়েদা , আইএস, জিহাদী গ্রুপগুলোকে হামলার আহ্বান জানাচ্ছে তারা৷

বংলাদেশের নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুর রশীদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশ কোনোভাবেই জোর করে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠাবে না৷ আমার সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর একদিন  আগেও কথা হয়েছে৷ বাংলাদেশ কোফি আনান কমিশনের আলোকেই রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে চায়৷ আর তাই এখানে শর্ত তিনটি৷ এটি নিরাপদ হতে হবে, স্থায়ী হতে হবে এবং দ্রুত হতে হবে৷ রোহিঙ্গাদের পুড়িয়ে দেয়া বাড়িঘর নির্মান করে দিতে হবে, তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিতে হবে এবং তাদের জন্য সেফ জোন তৈরি করতে হবে৷ বাংলাদেশ এই নীতি বাস্তবায়নের মাধ্যমেই রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে চায়৷''

তিনি রোহিঙ্গাদের মাধ্যমে বড় ধরনের নিরাপত্তা সংকট প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘যদি এরকম হয় তা শুধু বাংলাদেশ নয়, মিয়ানমার, চীন, ভারত সবার জন্যই হবে৷  তাই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত হবে তাদের জীবন মান এবং বর্তমান অবস্থার উন্নয়নে সহায়তা করা৷ তারা যাতে নিরাপদে নিজ দেশে ফেরত গিয়ে অধিকার নিয়ে থাকতে পারে, তার ব্যবস্থা করা৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘তবে এটা নিয়ে এক ধরনের প্রচারণা আছে৷ এখানে জঙ্গি তৎপরতা বাড়বে বলে যে কথা বলা হচ্ছে, সেটা অনেকটা বাড়িয়ে বলা হচ্ছে৷ বাংলাদেশে যেসব রোহিঙ্গা এসেছেন তাঁরা নিরীহ এবং সাধারণ৷ অল্পকিছু বিদ্রোহী বা আরসা থাকলেও থাকতে পারে৷ তবে তারা এখানে সক্রিয় হতে পারবে বলে মনে হয় না৷ বাংলাদেশের নজরদারী অত্যন্ত জোরালো৷''

এদিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. এস এম ইকবাল হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশের রোহিঙ্গা ক্যাম্পকে কেন্দ্র করে এখন পর্যন্ত কোনো নিরাপত্তা সংকট তৈরি হয়নি৷ আশা করি ভবিষ্যতেও হবে না৷ আর আমরা নানা ধরনের পদক্ষেপ ও নজরদারীর ব্যবস্থা নিয়েছি৷''

স্থানীয় পুলিশ সূত্র জানায়, গত এক মাসে টেকনাফ ও উখিয়া থানা পুলিশ রোহিঙ্গাদের সংঘটিত অন্তত ৩০টির মতো অপরাধের ঘটনা রেকর্ড করেছে৷ আর হত্যাসহ বিভিন্ন অপরাথে অন্তত ৩০ জন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

২৫ অগাস্ট থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ৬ লাখ ৩০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা মিয়ানমারের রাখাইন থেকেপালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে৷ তাদের ফেরত নিতে মিয়ানমার বাংলাদেশের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক সই করেছে৷

রাজনীতি

টেকনাফের লম্বার বিল এলাকা দিয়ে দলে দলে রোহিঙ্গা শরণার্থী আসছে আশ্রয়ের সন্ধানে৷

রাজনীতি

রোহিঙ্গা শরণার্থীরা দীর্ঘ পথ পায়ে হেঁটে এসে পৌঁছান টেকনাফে৷

রাজনীতি

পরিবারের অসুস্থ ও বৃদ্ধ সদস্যদের এভাবে কাঁধে নিয়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে টেকনাফে এসেছেন অনেকেই৷

রাজনীতি

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে বেশিরভাগই নারী ও শিশু৷

রাজনীতি

শরণার্থীরা মিয়ামনমার থেকে অনেকটা খালি হাতেই পালিয়ে এসেছেন৷

রাজনীতি

শরণার্থীদের মধ্যে অনেকেই চোখের সামনে দেখেছেন স্বজন হত্যার বিভৎস দৃশ্য৷

রাজনীতি

রোহিঙ্গা শরণার্থী নারী ও শিশুরা বাংলাদেশে আসার দীর্ঘপথে নদী-খালও পাড়ি দিয়েছেন৷

রাজনীতি

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, ২৫ আগস্টের পর থেকে প্রায় ৪ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী এসেছে বাংলাদেশে৷

রাজনীতি

টেকনাফ ও নাইক্ষংছড়ির বিভিন্ন সীমান্ত থেকে আসা কমে গেলেও শাহপরীর দ্বীপ থেকে এখনও দলে দলে শরণার্থীরা আসছেন৷

রাজনীতি

টেকনাফের নাফ নদীর ওপারে প্রতিদিনিই দেখা যাচ্ছে রোহিঙ্গাদের বসতি জ্বালিয়ে দেয়ার দৃশ্য৷

রাজনীতি

তিন দিন ধরে আগুন দেয়া হচ্ছে মংডু ও রাসিডাং এলাকার রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর৷ শাহপরীর দ্বীপ থেকে তোলা ছবি৷

রাজনীতি

বাংলাদেশে আসা শরণার্থীদের অনেকেই নিয়ে আসছেন গবাদি পশু৷ এক্ষেত্রে তাঁরা ব্যবহার করছেন নাফ নদীকে৷

রাজনীতি

গত কয়েকদিন ধরে আসা মানুষদের বড় একটা অংশের শরণার্থী শিবিরে ঠাঁই মেলেনি৷ কক্সবাজার-টেকনাফ মহাসড়কের পাশেই দিন কাটছে তাঁদের৷

রাজনীতি

অনেকে আবার জায়গা করে নিয়েছেন সড়কের পাশের বিভিন্ন টিলার উপরে৷ সোখানে খোলা আকাশের নীচেই দিন রাত পার করছেন তাঁরা৷

রাজনীতি

টেকনাফের বালুখালীতে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নুতন ‍শিবির৷ বিশাল এ এলাকায় সব শরণার্থীরই জায়গা করে দিতে কাজ করছে বাংলাদেশ সরকার৷

রাজনীতি

মিয়ানমার থেকে আসা প্রায় ৪ লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে ২ লাখের বেশিই শিশু, যা এবার আসা মোট শরণার্থীর ৬০ শতাংশ৷ ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী, ২৫ শে আগস্টের পর থেকে ১১শ’রও বেশি শিশু অভিভাবক ছাড়া রাখাইন থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে৷

রাজনীতি

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হাতে ২৫ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত তিন হাজার রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে৷

রাজনীতি

বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তালিকাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ শুরু হয়েছে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধনের কাজ৷

রাজনীতি

২৫ আগস্টের পর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে নির্যাতনের মুখে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসা শুরু করলে প্রথমে সীমান্ত সিল করা দেয়া হয়েছিল৷

রাজনীতি

কিন্তু কয়েকদিন পরই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের প্রতি মানবিক আচরনের নির্দেশ দিলে সীমান্ত শিথিল হয় এবং ব্যাপকহারে নির্যাতিত রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে আসতে শুরু করে৷

রাজনীতি

কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ সীমান্ত এলাকায় আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা খাবারের তীব্র সংকটে ভুগছেন৷ কোনো গাড়ি থেকে শুকনা খাবার দিতে দেখলেই খাবার সংগ্রহ করতে তাঁদের মধ্যে শুরু হয় কঠিন প্রতিযোগিতা৷

রাজনীতি

২৫শে আগস্ট মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর দেয়া তথ্য অনুযায়ী, অস্ত্রধারী বিদ্রোহীরা ২৪টি পুলিশ চেকপোস্ট ও একটি সেনাঘাঁটিতে একযোগে হামলা চালায়৷ তাদের পাল্টা হামলা চালালে তা সহিংসতায় রূপ নেয়৷ দু’পক্ষের সংঘর্ষে সেইদিনই রাখাইন রাজ্যে অন্তত ৮৯ জন নিহত হয়৷

এ বিষয়ে আপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷