শরণার্থীদের পরিবার আনার সংখ্যা নির্দিষ্ট করলো জার্মানি

আগামী আগস্ট মাস থেকে জার্মানিতে বসবাসরত ‘সাবসিডিয়ারি’ শরণার্থীরা তাঁদের পরিবারের সদস্যদের জার্মানিতে নিয়ে আসার সুযোগ পাবেন৷ তবে এক্ষেত্রে নির্দিষ্ট একটি সংখ্যা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে৷

বৃহস্পতিবার জার্মান সংসদে বিষয়টি নিয়ে উত্তপ্ত বিতর্কের পর একটি ভোট অনুষ্ঠিত হয়৷ শরণার্থীদের সুযোগ দেয়ার পক্ষে ভোট পড়ে ৩৭৬টি৷ আর বিপক্ষ ভোটের সংখ্যা ছিল ২৯৮৷

উল্লেখ্য, সাবসিডিয়ারি স্ট্যাটাসের শরণার্থীরা রাজনৈতিক বা যুদ্ধ শরণার্থী বলে বিবেচিত হন না৷ নিরাপত্তা ইস্যু বিবেচনা করে তাঁদের সাময়িকভাবে জার্মানিতে থাকার অনুমতি দেয়া হয়েছে৷

২০১৬ সালের মার্চে প্রণীত এক আইনের মাধ্যমে সাবসিডিয়ারি শরণার্থীদের পরিবারের সদস্যদের জার্মানিতে  নিয়ে আসার সুযোগ বন্ধ করা হয়েছিল৷

এর মাধ্যমে জার্মানিতে শরণার্থী আসার সংখ্যায় কিছুটা রাশ টানার চেষ্টা করা হয়েছিল৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

লক্ষ্য: টিকে থাকা

অনিশ্চিত যাত্রার ধকল সামলাতে হয় শারীরিক এবং মানসিকভাবে৷ ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে গৃহযুদ্ধ থেকে বাঁচতে হাজার হাজার সিরীয় নাগরিক তুরস্ক হয়ে গ্রিসে জড়ো হয়েছেন৷ সে দেশের তিনটি দ্বীপে এখনো দশ হাজারের মতো শরণার্থী বসবাস করছেন৷ চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাস অবধি ছয় হাজার নতুন শরণার্থী এসেছে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

পায়ে হেঁটে ইউরোপে

২০১৫ এবং ২০১৬ সালে এক মিলিয়নের বেশি মানুষ গ্রিস ও তুরস্ক থেকে পশ্চিম ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টা করেছে৷ ম্যাসিডোনিয়া, সার্বিয়া, হাঙ্গেরি, অর্থাৎ বলকান রুট ব্যবহার করে তাদের এই যাত্রার অধিকাংশই ছিল পায়ে হেঁটে৷ অভিবাসীদের এই যাত্রা বন্ধ হয়ে যায়, যখন রুটটি আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয় এবং কয়েকটি দেশ সীমান্তে বেড়া দিয়ে দেয়৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

বৈশ্বিক আতঙ্ক

এই ছবিটি গোটা বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিয়েছে৷ তিন বছর বয়সি সিরীয় শিশু আয়লান কুর্দির মরদেহ তুরস্কে সমুদ্রতটে ভেসে ওঠে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে৷ ছবিটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ে এবং শরণার্থী সংকটের প্রতীকে পরিণত হয়৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

বিশৃঙ্খলা এবং হতাশা

শেষ সময়ের ভিড়৷ ইউরোপে প্রবেশের রাস্তা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে শুনে ক্রোয়েশিয়াতে এভাবে ট্রেনে এবং বাসে উঠতে দেখা যায় অসংখ্য শরণার্থীকে৷ ২০১৫ সালের অক্টোবরে হাঙ্গেরি সীমান্ত বন্ধ করে দেয় এবং শরণার্থীদের জন্য কন্টেইনার ক্যাম্প তৈরি করে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

বিবেকবর্জিত সাংবাদিকতা

হাঙ্গেরির এক সাংবাদিক এক শরণার্থীকে ল্যাং মেরে ফেলে দেয়ার ভিডিও নিয়ে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে সমালোচনার ঝড় ওঠে৷ সার্বিয়ার সীমান্ত সংলগ্ন হাঙ্গেরির একটি এলাকার সেই ঘটনায় আলোচিত সাংবাদিকের চাকুরি চলে যায়৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

উন্মুক্ত সীমান্ত নয়

২০১৬ সালের মার্চে বলকান রুট আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ করে দেয়ার পর সীমান্তগুলোতে আরো আবেগপূর্ণ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়৷ হাজার হাজার শরণার্থী বিভিন্ন সীমান্তে আটকা পড়ে এবং তাদের সঙ্গে বর্বর আচরণের খবর পাওয়া যায় বিভিন্ন স্থান থেকে৷ অনেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এভাবে সীমান্ত পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

আতঙ্কের প্রতীক

ধুলা এবং রক্তে ঢাকা এক শিশু৷ পাঁচবছর বয়সি ওমরানের এই ছবিটি প্রকাশ হয় ২০১৬ সালে৷ আয়লান কুর্দির ছবির মতো এই ছবিটিও গোটা বিশ্বকে আরেকবার নাড়িয়ে দেয়৷ সিরীয়ায় গৃহযুদ্ধ কতটা বিভৎস পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে এবং সিরীয়রা কতটা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে, তার এক প্রতীক হয়ে ওঠে ছবিটি৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

অজানা নতুন ঠিকানা

গ্রিক-ম্যাসিডোনিয়া সীমান্তের ইডোমিনিতে নিজের মেয়েকে কোলে নিয়ে বৃষ্টির মধ্যে রাস্তায় হাঁটছেন এক সিরীয় নাগরিক৷ ইউরোপে তাঁর পরিবার নিরাপদ থাকবে, এমনটাই প্রত্যাশা ছিল তাঁর৷ ডাবলিন রেগুলেশন অনুযায়ী, একজন শরণার্থী প্রথম ইউরোপের যে দেশে প্রবেশ করেন, সে দেশে রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য আবেদন করতে হবে৷ ফলে যারা আরো ভেতরে প্রবেশ করেছিলেন, তাদের অনেককে ফেরত পাঠানো হয়েছে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

সহযোগিতার আশা

বিপুল সংখ্যক শরণার্থী প্রবেশের কারণে জার্মানি অভিবাসন নীতি আরো কড়া করে ফেললেও এখনো শরণার্থীদের প্রথম পছন্দ জার্মানি৷ ইউরোপের আর কোনো দেশ জার্মানির মতো এত বিপুল সংখ্যক শরণার্থী নেয়নি৷ ২০১৫ সালে সঙ্কট শুরুর পর থেকে দেশটি ১২ লক্ষ শরণার্থী নিয়েছে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

ভূমধ্যসাগরে ডুবে মরা

ইউরোপে শরণার্থী প্রবেশের সংখ্যা চলতি বছর কমেছে, তবে থেমে যায়নি৷ বরং জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে ডুবে মরছে অনেকে৷ বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা এবং সরকারের হিসেব অনুযায়ী, চলতি বছর এখন অবধি সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে মারা গেছে প্রায় দু’হাজার মানুষ৷ গতবছর এই সংখ্যা ছিল ৫ হাজার৷

তবে শরণার্থীদের আবারও সেই সুযোগ দেয়ার ব্যাপারে মঙ্গলবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সিডিইউ ও সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি দলের মধ্যে ঐকমত্য হয়েছে৷ কারণ, দল দু'টি আবারও জোট সরকার গঠন করার ব্যাপারে আলোচনা চালাচ্ছে

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের পর থেকে জার্মানিতে দশ লক্ষেরও বেশি আশ্রয়প্রার্থী এসেছে৷ তবে এত শরণার্থীকে জার্মানিতে প্রবেশ করতে দেয়ায় বিতর্কের মুখে পড়েছিল ম্যার্কেলের সরকার৷

শরণার্থী বিরোধী দল ‘জার্মানির জন্য বিকল্প’ বা এএফডি ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির সমালোচনা করে সংসদ নির্বাচনে ভালো ফল করেছে৷

এদিকে, জোট সরকার গঠনে আলোচনারত সিডিইউ ও এসপিডি দলের নেতারা প্রতিবছর দুই লক্ষ শরণার্থীকে জার্মানিতে আসতে দেয়ার সুযোগ দিতে নীতিগতভাবে একমত হয়েছেন৷

সাবসিডিয়ারি শরণার্থীদের পরিবারের সদস্যদের জার্মানিতে নিয়ে আসার বিষয়টি রাজনৈতিকভাবে বেশ আলোচনার জন্ম দিয়েছিল৷ এখন সিডিইউ ও এসপিডি দলের মধ্যে এ ব্যাপারে ঐকমত্য হওয়ায় জার্মানি একটি সরকার পেতে যাচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ সেটি সম্ভব হলে চতুর্থবারের মতো জার্মান চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব নেবেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

শরণার্থীদের সহায়তা দেয় এমন সংগঠন ‘প্রো অ্যাসাইল’ নতুন এই আইনের সমালোচনা করে বলেছে, এই আইন ‘সম্পূর্ণ অপর্যাপ্ত’৷ একে তারা সিডিইউ'র ‘কট্টরপন্থি’ সহযোগী সংগঠন সিএসইউ'র জয় বলে উল্লেখ করেছে৷

তবে জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস ডেমেজিয়ের বলছেন, ‘‘এটি মানবতা ও দায়িত্বের মাঝে... উদারতা ও বাস্তবতার মধ্যে একটি আপোস৷’’

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ)

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

মারলেনে ডিটরিশ

১৯০১ সালে জার্মানিতে জন্ম নেয়া ডিটরিশ গায়িকা ও অভিনেত্রী হিসেবে বেশ নাম কুড়িয়েছিলেন৷ ১৯৩০ সালে তিনি হলিউডে কাজ করতে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান৷ সেখানে থাকলেও নাৎসি আমলের সমালোচনায় মুখর ছিলেন তিনি৷ ১৯৩৯ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় তিনি মার্কিন বাহিনীর জন্য গান গেয়েছেন৷ নাৎসি সরকার জার্মানিতে তাঁর মুভি প্রদর্শনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

হেনরি কিসিঞ্জার

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিসিঞ্জার জার্মানির বাভারিয়া রাজ্যে জন্মেছিলেন৷ নাৎসি সরকারের নিপীড়ন থেকে বাঁচতে ১৯৩৮ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে চলে গিয়েছিলেন৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

মেডেলিন অলব্রাইট

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম নারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী অলব্রাইট চেক প্রজাতন্ত্রে জন্মগ্রহণ করেছিলেন৷ ১৯৪৮ সালে সে দেশে কমিউনিস্ট সরকার ক্ষমতায় গেলে তিনি তাঁর পরিবারসহ যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

আলবার্ট আইনস্টাইন

জার্মান ইহুদি এই নোবেল বিজয়ী যখন ১৯৩৩ সালে যুক্তরাষ্ট্র সফরে ছিলেন তখনই বুঝতে পারেন যে, তাঁর পক্ষে আর জার্মানি ফেরা সম্ভব নয়৷ কারণ ঐ বছরই হিটলার জার্মানির চ্যান্সেলর হন৷ ফলে তিনি যুক্তরাষ্ট্রেই থাকার সিদ্ধান্ত নেন এবং ১৯৪০ সালে সে দেশের নাগরিকত্বও গ্রহণ করেন৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

গেওর্গ ভাইডেনফেল্ড

ইহুদি এই মানুষটির জন্ম অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায়, ১৯১৯ সালে৷ নাৎসিরা যখন অস্ট্রিয়া দখল করে নিলে তিনি লন্ডনে পাড়ি জমান৷ সেখানে তিনি একটি প্রকাশনা সংস্থা চালু করেন৷ ইসরায়েলের প্রথম প্রেসিডেন্টের ‘চিফ অফ স্টাফ’ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

বেলা বার্টোক

হাঙ্গেরির কম্পোজার, পিয়ানোবাদক ও লোক সংগীত সংগ্রাহক বার্টোক ইহুদি ছিলেন না৷ কিন্তু নাৎসিদের হাতে ইহুদিদের নিপীড়িত হওয়ার বিষয়টির ঘোর সমালোচক ছিলেন তিনি৷ ফলে ১৯৪০ সালে তাঁকে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যেতে হয়৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

ইসাবেল আলেন্দে

১৯৭৩ সালে এক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে চিলির তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সালভেদর আলেন্দেকে হটিয়ে দেয়া হয় এবং সেই সময়ই তাঁর মৃত্যু হয়৷ এরপর একসময় আলেন্দের এক কাজিনের মেয়ে ইসাবেলকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়৷ তা থেকে বাঁচতে প্রথমে ভেনেজুয়েলায়, তারপর যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান ইসাবেল৷ তাঁর লেখা কয়েকটি উপন্যাস আন্তর্জাতিকভাবে বেশ প্রশংসিত হয়েছে৷

৮ তারকা যাঁরা একসময় শরণার্থী ছিলেন

মিরিয়াম মাকেবা

‘মামা আফ্রিকা’ নামে পরিচিত দক্ষিণ আফ্রিকার সংগীত শিল্পী মাকেবা একবার গান গাইতে যুক্তরাষ্ট্র গিয়েছিলেন৷ সেই সময় দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার বর্ণবাদবিরোধিতার অভিযোগে তাঁর পাসপোর্ট বাতিল করে দেয়৷ ফলে তিনি আর দেশে ফিরতে পারেননি৷ কয়েক দশক পর অবস্থার পরিবর্তন হলে দেশে ফিরে যান মাকেবা৷

আমাদের অনুসরণ করুন