শরণার্থীদের বিরুদ্ধে নব্য নাৎসিদের নগ্ন নিষ্ঠুরতা

অভিবাসীদের বিষয় নিয়ে আবারো উদ্বিগ্ন জার্মানি৷ সপ্তাহান্তের দু-দু'টি ঘটনা প্রমাণ করে দিয়েছে যে জার্মানির একটা অংশ উদ্বাস্তুদের চায় না৷ তাই কখনও তারা শরণার্থীদের দুদর্দশায় হেসেছে, কখনও বা আঙুল তুলে বলেছে, ‘বাড়ি ফিরে যাও'৷

পূর্বাঞ্চলের স্যাক্সনি রাজ্যের ক্লাউসনিৎস শহরে অভিবাসন প্রত্যাশীদের একটা বাসকে আসতে দেখেই ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে জনতা৷ প্রায় একশ জন স্থানীয় বাসিন্দা চড়াও হয় শরণার্থীদের ওপর, চিৎকার করে বলতে থাকে, ‘আমরাই জার্মান নাগরিক', শরণার্থীদের উদ্দেশ্য করে স্লোগান দেয়, ‘বাড়ি ফিরে যাও', ‘বাড়ি যাও'৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

পরিস্থিতি সামলাতে হিমশিম খায় পুলিশ৷ এমনকি ভীতসন্ত্রস্ত এক শরণার্থী শিশুকে টেনে-হিচড়ে বাস থেকে নামিয়েও দেয় এক পুলিশ কর্মকর্তা৷ ‘পরিস্থিতি সামাল দিতেই এমনটা করতে হয়েছিল' – ক্লাউসনিৎস শহরের পুলিশ কর্মকর্তা উভে রাইসমান এ কথা বললেও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে খুব দ্রুত ছড়িয়ে যায় শরণার্থী-বিরোধী জনতার ঢলের কার্যকলাপ৷ ভিডিওতে খুব স্পষ্টভাবেই ধরা পড়ে পুলিশের অমানবিক আচরণ৷

অন্য ঘটনাটি আরো মর্মান্তিক৷ শনিবার জার্মানির আরেক পূর্বাঞ্চলীয় শহর বাউটজেনে প্রায় ৩০০ শরণার্থীর এক আশ্রয় শিবিরে আগুন লাগে৷ দাউদাউ করে জ্বলতে থাকে যুদ্ধের কারণে ভিটেমাটি হারিয়ে জার্মানিতে আশ্রয় নেয়া শরনার্থীদের শেষ সম্বল৷ তাদের আর্তনাদে দ্রুতই জমা হতে থাকে স্থানীয় মানুষ৷ কিন্তু কোনোরকম সাহায্য করা তো দূরের কথা, বরং আনন্দ-উল্লাসে ফেটে পড়ে তারা৷

Bautzen Brandanschlag auf geplantes Flüchtlingsheim

যা হোক, আগুন লাগার পরপরই দমকল বাহিনী ছুটে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে৷ আশ্রয় শিবিরের ছাদটি পুরো পুড়ে গেলেও তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি৷ পুলিশের ধারণা, দাঁড়িয়ে থাকা ঐ ব্যক্তিদের মধ্যেই কেউ হয়ত আগুন লাগিয়েছিল৷

এ দু'টি ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছেন জার্মানির বিচারমন্ত্রী হাইকো মাস৷ পুলিশের আচরণেরও দ্রুত তদন্তের দাবি করেছেন তিনি৷ কিন্তু ক্রমবর্ধমান শরণার্থী-বিরোধীতা কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে জার্মানি? অথচ ইউরোপকে কিন্তু কাঁটাতারের পেছনে দেখনে চাননি জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ শরণার্থী প্রশ্নে প্রথম থেকেই আন্তরিক তিনি৷ কিন্তু উদার উদ্বাস্তু নীতিকে কেন্দ্র করে বারে বারেই তাঁকে, তাঁর সরকারকে চাপের মধ্যে পড়তে হয়েছে, হচ্ছে এখনও৷

ডিজি/এসিবি

‘নব্য নাৎসি’ আর পুলিশদের এমন নিষ্ঠুর আচরণ দেখে আপনার অনুভূতি কী? জানান নীচের ঘরে৷

‘বিশ্বাসঘাতক’ ম্যার্কেল

জার্মানির ইসলাম ও অভিবাসী বিরোধী গোষ্ঠী পেগিডার হাজার হাজার সমর্থক সোমবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে৷ শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাবের কারণ তারা ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে ‘উচ্চ পর্যায়ের বিশ্বাসঘাতকতা’ ও ‘জার্মানির মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধ’-এর অভিযোগ আনেন৷

শরণার্থীদের নিয়ে কটূক্তি

পেগিডার (প্যাট্রিয়টিক ইউরোপিয়ান অ্যাগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ দ্য অক্সিডেন্ট) প্রতিষ্ঠাতা লুটৎস বাখমান সম্প্রতি শরণার্থীদের ‘পশু’, ‘আবর্জনা’ ও ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতা’ বলে আখ্যায়িত করেন৷ এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার৷

সমাজে অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

জার্মান সরকারের অস্বীকার

জার্মানির জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিল্ড’ সরকারের গোপন ডকুমেন্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চলতি বছর জার্মানিতে প্রায় দেড় মিলিয়ন শরণার্থী আসবে বলে মনে করছে সরকার৷ যদিও প্রকাশ্যে সরকার বলছে সংখ্যাটা এক মিলিয়ন হতে পারে৷ তবে জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র এ ধরনের কোনো গোপন ডকুমেন্টের কথা তিনি জানেন না বলে সাংবাদিকদের বলেছেন৷

শরণার্থীর মৃত্যু

জার্মানির পূর্বাঞ্চলের এক শরণার্থীদের বাসস্থানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ইরিত্রিয়া থেকে আসা ২৯ বছরের এক শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি৷ এদিকে, জার্মান সরকারের হিসেবে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছর শরণার্থী ও তাদের বাসস্থানের উপর হামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ এ বছরের প্রথম ছয় মাসেই এরকম ২০২টি ঘটনা ঘটেছে বলে সরকার জানিয়েছে, যেখানে গত বছর সংখ্যাটি ছিল ১৯৮৷

বিপদে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷

পূর্বাঞ্চলের স্যাক্সনি রাজ্যের ক্লাউসনিৎস শহরে অভিবাসন প্রত্যাশীদের একটা বাসকে আসতে দেখেই ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে জনতা৷ প্রায় একশ জন স্থানীয় বাসিন্দা চড়াও হয় শরণার্থীদের ওপর, চিৎকার করে বলতে থাকে, ‘আমরাই জার্মান নাগরিক', শরণার্থীদের উদ্দেশ্য করে স্লোগান দেয়, ‘বাড়ি ফিরে যাও', ‘বাড়ি যাও'৷

পরিস্থিতি সামলাতে হিমশিম খায় পুলিশ৷ এমনকি ভীতসন্ত্রস্ত এক শরণার্থী শিশুকে টেনে-হিচড়ে বাস থেকে নামিয়েও দেয় এক পুলিশ কর্মকর্তা৷ ‘পরিস্থিতি সামাল দিতেই এমনটা করতে হয়েছিল' – ক্লাউসনিৎস শহরের পুলিশ কর্মকর্তা উভে রাইসমান এ কথা বললেও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে খুব দ্রুত ছড়িয়ে যায় শরণার্থী-বিরোধী জনতার ঢলের কার্যকলাপ৷ ভিডিওতে খুব স্পষ্টভাবেই ধরা পড়ে পুলিশের অমানবিক আচরণ৷

অন্য ঘটনাটি আরো মর্মান্তিক৷ শনিবার জার্মানির আরেক পূর্বাঞ্চলীয় শহর বাউটজেনে প্রায় ৩০০ শরণার্থীর এক আশ্রয় শিবিরে আগুন লাগে৷ দাউদাউ করে জ্বলতে থাকে যুদ্ধের কারণে ভিটেমাটি হারিয়ে জার্মানিতে আশ্রয় নেয়া শরনার্থীদের শেষ সম্বল৷ তাদের আর্তনাদে দ্রুতই জমা হতে থাকে স্থানীয় মানুষ৷ কিন্তু কোনোরকম সাহায্য করা তো দূরের কথা, বরং আনন্দ-উল্লাসে ফেটে পড়ে তারা৷

Bautzen Brandanschlag auf geplantes Flüchtlingsheim

যা হোক, আগুন লাগার পরপরই দমকল বাহিনী ছুটে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে৷ আশ্রয় শিবিরের ছাদটি পুরো পুড়ে গেলেও তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি৷ পুলিশের ধারণা, দাঁড়িয়ে থাকা ঐ ব্যক্তিদের মধ্যেই কেউ হয়ত আগুন লাগিয়েছিল৷

এ দু'টি ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছেন জার্মানির বিচারমন্ত্রী হাইকো মাস৷ পুলিশের আচরণেরও দ্রুত তদন্তের দাবি করেছেন তিনি৷ কিন্তু ক্রমবর্ধমান শরণার্থী-বিরোধীতা কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে জার্মানি? অথচ ইউরোপকে কিন্তু কাঁটাতারের পেছনে দেখনে চাননি জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ শরণার্থী প্রশ্নে প্রথম থেকেই আন্তরিক তিনি৷ কিন্তু উদার উদ্বাস্তু নীতিকে কেন্দ্র করে বারে বারেই তাঁকে, তাঁর সরকারকে চাপের মধ্যে পড়তে হয়েছে, হচ্ছে এখনও৷

ডিজি/এসিবি

‘নব্য নাৎসি’ আর পুলিশদের এমন নিষ্ঠুর আচরণ দেখে আপনার অনুভূতি কী? জানান নীচের ঘরে৷

‘বিশ্বাসঘাতক’ ম্যার্কেল

জার্মানির ইসলাম ও অভিবাসী বিরোধী গোষ্ঠী পেগিডার হাজার হাজার সমর্থক সোমবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে৷ শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাবের কারণ তারা ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে ‘উচ্চ পর্যায়ের বিশ্বাসঘাতকতা’ ও ‘জার্মানির মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধ’-এর অভিযোগ আনেন৷

শরণার্থীদের নিয়ে কটূক্তি

পেগিডার (প্যাট্রিয়টিক ইউরোপিয়ান অ্যাগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ দ্য অক্সিডেন্ট) প্রতিষ্ঠাতা লুটৎস বাখমান সম্প্রতি শরণার্থীদের ‘পশু’, ‘আবর্জনা’ ও ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতা’ বলে আখ্যায়িত করেন৷ এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার৷

সমাজে অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

জার্মান সরকারের অস্বীকার

জার্মানির জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিল্ড’ সরকারের গোপন ডকুমেন্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চলতি বছর জার্মানিতে প্রায় দেড় মিলিয়ন শরণার্থী আসবে বলে মনে করছে সরকার৷ যদিও প্রকাশ্যে সরকার বলছে সংখ্যাটা এক মিলিয়ন হতে পারে৷ তবে জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র এ ধরনের কোনো গোপন ডকুমেন্টের কথা তিনি জানেন না বলে সাংবাদিকদের বলেছেন৷

শরণার্থীর মৃত্যু

জার্মানির পূর্বাঞ্চলের এক শরণার্থীদের বাসস্থানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ইরিত্রিয়া থেকে আসা ২৯ বছরের এক শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি৷ এদিকে, জার্মান সরকারের হিসেবে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছর শরণার্থী ও তাদের বাসস্থানের উপর হামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ এ বছরের প্রথম ছয় মাসেই এরকম ২০২টি ঘটনা ঘটেছে বলে সরকার জানিয়েছে, যেখানে গত বছর সংখ্যাটি ছিল ১৯৮৷

বিপদে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷