শরণার্থীদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছিল লিবিয়ার কোস্ট গার্ড?

ভূমধ্যসাগরে ক্ষতিগ্রস্ত একটি রাবার বোটে এক নারী ও শিশু শরণার্থীর মৃত্যুর জন্য লিবিয়ার কোস্ট গার্ড ও ইটালির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দায়ী করেছে একটি সাহায্য সংস্থা৷ অভিযুক্তরা এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷

সমুদ্র থেকে উদ্ধারকারী স্পেনের সংস্থা প্রোঅ্যাক্টিভা ওপেন আর্মস মঙ্গলবার জানিয়েছে, লিবিয়া সমুদ্র উপকূল থেকে ৮০ নটিক্যাল মাইল দূরে একটি বিধ্বস্ত রাবার বোট থেকে একজন জীবিত নারীকে উদ্ধার করা গেছে৷ এছাড়া তারা আরো এক নারী ও প্রায় পাঁচ বছর বয়সি এক শিশুকে মৃত অবস্থায় পেয়েছে৷

সংস্থাটি সামাজিক গণমাধ্যমে বিধ্বস্ত নৌকাটির ছবি ও ভিডিও প্রকাশ করেছে৷ এমনকি সেখান দিয়ে যাওয়া একটি বাণিজ্যিক জাহাজের ছবিও দিয়েছে তারা এবং অভিযোগ করেছে, জাহাজটি শরণার্থীদের সাহায্যে এগিয়ে আসেনি৷

শরণার্থী শিল্পীরা

ফ্রেডি মার্কারি

কুইন ব্যান্ডের প্রধান গায়ক ফ্রেডি মার্কারি ১৯৪৬ সালে জানজিবার রাজ্যে (এখন তানজানিয়ার অংশ) জন্মান৷ মার্কারির শৈশব পুরোটা কাটে ভারতের একটি বোর্ডিং স্কুলে৷ ১৯৬৩ সালে তিনি তাঁর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে জানজিবার যান৷ কিন্তু এর ঠিক একবছর পর জানজিবারে বিপ্লব শুরু হলে, সপরিবারে ইংল্যান্ডে পালিয়ে আসেন মার্কারি৷ 

শরণার্থী শিল্পীরা

গ্লোরিয়া এস্তেফান

জন্মেছিলেন কিউবায়৷ কিউবার বিপ্লবের সময় তাঁর পরিবার অ্যামেরিকার মায়ামিতে পালিয়ে আসতে বাধ্য হন৷ তিনবার গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন গ্লোরিয়া৷ এছাড়া অ্যামেরিকার সঙ্গীতাঙ্গণে ভূমিকার জন্য ২০১৫ সালে তাঁকে প্রেসিডেন্সিয়াল পদকেও সম্মানিত করা হয়৷

শরণার্থী শিল্পীরা

বব মার্লে 

১৯৭৬ সালে জামাইকার রাজনৈতিক দলগুলো যখন নিজেদের মধ্যে সংঘাতে ব্যস্ত ছিল, তখন এক অজ্ঞাতনামা বন্দুকধারী গুলি করে বব মার্লেকে৷ তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও নিজ দেশ জামাইকা ছেড়ে চলে আসেন৷ এরপর অনেকটা স্বেচ্ছা নির্বাসনেই ছিলেন বব মার্লে৷ 

শরণার্থী শিল্পীরা

আর্নল্ড শোয়েনবর্গ

অস্ট্রিয়ার ইহুদি বংশোদ্ভূত মিউজিক কম্পোজার ১৯৩৪ সালে নাৎসি জার্মানি থেকে পালিয়ে অ্যামেরিকায় আসেন৷ তাঁর আধুনিক ও গৎবাঁধা স্কেলের বাইরে সুর করা গানগুলো হিটলার বাহিনীর কোপানলে পড়ে৷ আর্নল্ড শোয়েনবর্গকে ২০ শতকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও প্রতিভাবান মিউজিশিয়ান বলা হয়৷

শরণার্থী শিল্পীরা

এম.আই.এ

ব্রিটিশ র‌্যাপার মাথাঙ্গি ‘মায়া’ আরুলপ্রাগাসাম এম.আই.এ নামেই বেশি পরিচিত৷ যদিও তিনি জন্ম নিয়েছেন ব্রিটেনে, তবুও তাঁর পরিবার কিন্তু  শ্রীলঙ্কার৷ এম.আই.এ-র যখন মাত্র ছ’মাস বয়স, তখন তার পরিবার শ্রীলঙ্কা ফিরে গেলেও তাঁর বাবা উগ্রপন্থি এলটিটিই-এর সদস্য বলে মাতৃভূমিতে থাকতে পারেননি৷ ফলে এম.আই.এ-র মা তাঁকেসহ অন্যান্য সন্তানদের নিয়ে আবারো ব্রিটেন পালিয়ে আসতে বাধ্য হন৷

শরণার্থী শিল্পীরা

মিকা

বিখ্যাত গীতিকার ও গায়ক মিকার জন্ম লেবাননের বৈরুতে, ১৯৮৩ সালে৷ তবে তাঁর পরিবার ১৯৮৪ সালে প্যারিস চলে আসতে বাধ্য হয়৷ কেননা তখন লেবাননে গৃহযুদ্ধ চলছে৷ শোনা যায় সেসময় অ্যামেরিকার দূতাবাসে আক্রমণও চালানো হয়েছিল৷

টুইটারে সংস্থাটির প্রতিষ্ঠাতা অস্কার ক্যাম্পস অভিযোগ করে বলেন, লিবিয়ান নৌকাটি ধ্বংস করেছে এবং এই তিনজনকে সেখানে মৃত্যুর মুখে ফেলে রেখেছে৷

কিন্তু লিবিয়ান কোস্ট গার্ড তা অস্বীকার করে দাবি করেছে, তারা ত্রিপোলির পূর্ব উপকূলে একটি রাবার বোট থেকে ১৬৫ জন শরণার্থীকে উদ্ধার করেছে, যাদের মধ্যে ছিলেন ৩৪ জন নারী ও ১২ শিশু৷ তাদের দাবি সেই বোটে তারা কাউকে ফেলে আসেনি৷

‘‘সমুদ্রে এ ধরনের যত দুর্যোগ হচ্ছে, তার দায় মানবপাচারকারীদের, যারা পয়সা ছাড়া আর কিছু চিন্তা করে না এবং সেসব এনজিও'র, যারা অত্যন্ত দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিচ্ছে৷'' কোস্ট গার্ডের মুখপাত্র আইয়ুব গাসিম বলেন৷

সাম্প্রতিক সময়ে এসব উদ্ধারকারী এনজিও জাহাজগুলোর প্রতি ক্ষোভ ঝাড়ছে অনেক দেশ৷ বিশেষ করে ইটালি ও মাল্টা বলেই দিয়েছে যে,তাদের বন্দরে এমন জাহাজ ভেড়ানো যাবে না৷

মঙ্গলবার ইটালির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ম্যাটেও সালভিনির দিকেও আঙুন তুলেছেন ক্যাম্পস৷ সালভিনি এর জবাবে বলেছেন, ‘‘কয়েকটি বিদেশি এনজিও'র মিথ্যাচার প্রমাণ করে যে, আমরা ঠিক কাজটি করছি৷''

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম-এর হিসেব বলছে, ইউরোপে পাড়ি দিতে গিয়ে এ বছর এই পর্যন্ত ভূ-মধ্যসাগরেই মারা গেছেন ১ হাজার ৪শ' ৪০ জন শরণার্থী৷

জেডএ/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স, এপি)

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

লক্ষ্য: টিকে থাকা

অনিশ্চিত যাত্রার ধকল সামলাতে হয় শারীরিক এবং মানসিকভাবে৷ ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে গৃহযুদ্ধ থেকে বাঁচতে হাজার হাজার সিরীয় নাগরিক তুরস্ক হয়ে গ্রিসে জড়ো হয়েছেন৷ সে দেশের তিনটি দ্বীপে এখনো দশ হাজারের মতো শরণার্থী বসবাস করছেন৷ চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাস অবধি ছয় হাজার নতুন শরণার্থী এসেছে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

পায়ে হেঁটে ইউরোপে

২০১৫ এবং ২০১৬ সালে এক মিলিয়নের বেশি মানুষ গ্রিস ও তুরস্ক থেকে পশ্চিম ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টা করেছে৷ ম্যাসিডোনিয়া, সার্বিয়া, হাঙ্গেরি, অর্থাৎ বলকান রুট ব্যবহার করে তাদের এই যাত্রার অধিকাংশই ছিল পায়ে হেঁটে৷ অভিবাসীদের এই যাত্রা বন্ধ হয়ে যায়, যখন রুটটি আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয় এবং কয়েকটি দেশ সীমান্তে বেড়া দিয়ে দেয়৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

বৈশ্বিক আতঙ্ক

এই ছবিটি গোটা বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিয়েছে৷ তিন বছর বয়সি সিরীয় শিশু আয়লান কুর্দির মরদেহ তুরস্কে সমুদ্রতটে ভেসে ওঠে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে৷ ছবিটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ে এবং শরণার্থী সংকটের প্রতীকে পরিণত হয়৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

বিশৃঙ্খলা এবং হতাশা

শেষ সময়ের ভিড়৷ ইউরোপে প্রবেশের রাস্তা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে শুনে ক্রোয়েশিয়াতে এভাবে ট্রেনে এবং বাসে উঠতে দেখা যায় অসংখ্য শরণার্থীকে৷ ২০১৫ সালের অক্টোবরে হাঙ্গেরি সীমান্ত বন্ধ করে দেয় এবং শরণার্থীদের জন্য কন্টেইনার ক্যাম্প তৈরি করে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

বিবেকবর্জিত সাংবাদিকতা

হাঙ্গেরির এক সাংবাদিক এক শরণার্থীকে ল্যাং মেরে ফেলে দেয়ার ভিডিও নিয়ে ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে সমালোচনার ঝড় ওঠে৷ সার্বিয়ার সীমান্ত সংলগ্ন হাঙ্গেরির একটি এলাকার সেই ঘটনায় আলোচিত সাংবাদিকের চাকুরি চলে যায়৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

উন্মুক্ত সীমান্ত নয়

২০১৬ সালের মার্চে বলকান রুট আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ করে দেয়ার পর সীমান্তগুলোতে আরো আবেগপূর্ণ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়৷ হাজার হাজার শরণার্থী বিভিন্ন সীমান্তে আটকা পড়ে এবং তাদের সঙ্গে বর্বর আচরণের খবর পাওয়া যায় বিভিন্ন স্থান থেকে৷ অনেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এভাবে সীমান্ত পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

আতঙ্কের প্রতীক

ধুলা এবং রক্তে ঢাকা এক শিশু৷ পাঁচবছর বয়সি ওমরানের এই ছবিটি প্রকাশ হয় ২০১৬ সালে৷ আয়লান কুর্দির ছবির মতো এই ছবিটিও গোটা বিশ্বকে আরেকবার নাড়িয়ে দেয়৷ সিরীয়ায় গৃহযুদ্ধ কতটা বিভৎস পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে এবং সিরীয়রা কতটা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে, তার এক প্রতীক হয়ে ওঠে ছবিটি৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

অজানা নতুন ঠিকানা

গ্রিক-ম্যাসিডোনিয়া সীমান্তের ইডোমিনিতে নিজের মেয়েকে কোলে নিয়ে বৃষ্টির মধ্যে রাস্তায় হাঁটছেন এক সিরীয় নাগরিক৷ ইউরোপে তাঁর পরিবার নিরাপদ থাকবে, এমনটাই প্রত্যাশা ছিল তাঁর৷ ডাবলিন রেগুলেশন অনুযায়ী, একজন শরণার্থী প্রথম ইউরোপের যে দেশে প্রবেশ করেন, সে দেশে রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য আবেদন করতে হবে৷ ফলে যারা আরো ভেতরে প্রবেশ করেছিলেন, তাদের অনেককে ফেরত পাঠানো হয়েছে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

সহযোগিতার আশা

বিপুল সংখ্যক শরণার্থী প্রবেশের কারণে জার্মানি অভিবাসন নীতি আরো কড়া করে ফেললেও এখনো শরণার্থীদের প্রথম পছন্দ জার্মানি৷ ইউরোপের আর কোনো দেশ জার্মানির মতো এত বিপুল সংখ্যক শরণার্থী নেয়নি৷ ২০১৫ সালে সঙ্কট শুরুর পর থেকে দেশটি ১২ লক্ষ শরণার্থী নিয়েছে৷

শরণার্থী সংকটের কিছু আইকনিক ছবি

ভূমধ্যসাগরে ডুবে মরা

ইউরোপে শরণার্থী প্রবেশের সংখ্যা চলতি বছর কমেছে, তবে থেমে যায়নি৷ বরং জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে ডুবে মরছে অনেকে৷ বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা এবং সরকারের হিসেব অনুযায়ী, চলতি বছর এখন অবধি সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে মারা গেছে প্রায় দু’হাজার মানুষ৷ গতবছর এই সংখ্যা ছিল ৫ হাজার৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

আমাদের অনুসরণ করুন