শরণার্থী গ্রহণ না করলে শাস্তির প্রস্তাব

সোমবারও ইইউ সদস্য দেশগুলি শরণার্থী বণ্টনের প্রশ্নে ঐকমত্যে আসতে পারেনি৷ অনিচ্ছুক সদস্য দেশগুলির উপর চাপ বাড়াতে জার্মানি ইইউ সাহায্য তহবিলে কাটছাঁটের প্রস্তাবের পক্ষে সমর্থন জানিয়েছে৷

নামেই সংহতি, কাজে নয়৷ ইউরোপীয় পরিবারের দুর্দিনে সব সদস্য দেশ শরণার্থীদের বোঝা ভাগ করে নিতে এখনো প্রস্তুত নয়৷ সোমবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে এই প্রশ্নে ঐকমত্য অর্জন করা সম্ভব হয়নি৷ বিশেষ করে পূর্ব ইউরোপের দেশগুলি তাদের অবস্থানে অটল রয়েছে৷ হাঙ্গেরি, চেক প্রজাতন্ত্র, স্লোভাকিয়া ও রোমানিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন জুড়ে শরণার্থীদের বণ্টনের প্রস্তাব মেনে নিতে একেবারেই প্রস্তুত নয়৷

এই অবস্থায় ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট জঁ ক্লোদ ইয়ুংকার এই সব দেশের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করছেন৷ জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস ডেমেজিয়ের এমন প্রস্তাব সমর্থন করেন৷

জার্মানিতে আশ্রয় পাওয়া এক সিরীয় সাংবাদিকের বক্তব্যের এক ভিডিও শরণার্থীদের বণ্টনের বিষয়টির প্রতি বিশেষভাবে দৃষ্টি আকর্ষণ করছে৷

তিনি জার্মানি ও সে দেশের মানুষের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলির সরকারের বিরুদ্ধে আবেগপূর্ণ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন৷ তাঁর মতে, জার্মানি মুসলিম দেশ না হওয়া সত্ত্বেও মুসলিমদের আশ্রয় দিচ্ছে৷ অন্যদিকে সৌদি আরব ও কাতারের মতো দেশ সিরিয়ার মুসলিমদের জন্য দরজা বন্ধ রেখেছে৷

এ প্রসঙ্গে একটি প্রতিবেদন সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলছে৷ তাতে দাবি করা হচ্ছে যে, সৌদি আরবে ১ লক্ষ শীততাপ নিয়ন্ত্রিত তাঁবু খালি পড়ে রয়েছে৷ সেখানে সিরীয় শরণার্থীদের থাকতে দেওয়া যেত৷

এসবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)