শরণার্থী শিল্পীরা

শরণার্থী শিল্পীরা

ফ্রেডি মার্কারি

কুইন ব্যান্ডের প্রধান গায়ক ফ্রেডি মার্কারি ১৯৪৬ সালে জানজিবার রাজ্যে (এখন তানজানিয়ার অংশ) জন্মান৷ মার্কারির শৈশব পুরোটা কাটে ভারতের একটি বোর্ডিং স্কুলে৷ ১৯৬৩ সালে তিনি তাঁর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে জানজিবার যান৷ কিন্তু এর ঠিক একবছর পর জানজিবারে বিপ্লব শুরু হলে, সপরিবারে ইংল্যান্ডে পালিয়ে আসেন মার্কারি৷ 

শরণার্থী শিল্পীরা

গ্লোরিয়া এস্তেফান

জন্মেছিলেন কিউবায়৷ কিউবার বিপ্লবের সময় তাঁর পরিবার অ্যামেরিকার মায়ামিতে পালিয়ে আসতে বাধ্য হন৷ তিনবার গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন গ্লোরিয়া৷ এছাড়া অ্যামেরিকার সঙ্গীতাঙ্গণে ভূমিকার জন্য ২০১৫ সালে তাঁকে প্রেসিডেন্সিয়াল পদকেও সম্মানিত করা হয়৷

শরণার্থী শিল্পীরা

বব মার্লে 

১৯৭৬ সালে জামাইকার রাজনৈতিক দলগুলো যখন নিজেদের মধ্যে সংঘাতে ব্যস্ত ছিল, তখন এক অজ্ঞাতনামা বন্দুকধারী গুলি করে বব মার্লেকে৷ তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও নিজ দেশ জামাইকা ছেড়ে চলে আসেন৷ এরপর অনেকটা স্বেচ্ছা নির্বাসনেই ছিলেন বব মার্লে৷ 

শরণার্থী শিল্পীরা

আর্নল্ড শোয়েনবর্গ

অস্ট্রিয়ার ইহুদি বংশোদ্ভূত মিউজিক কম্পোজার ১৯৩৪ সালে নাৎসি জার্মানি থেকে পালিয়ে অ্যামেরিকায় আসেন৷ তাঁর আধুনিক ও গৎবাঁধা স্কেলের বাইরে সুর করা গানগুলো হিটলার বাহিনীর কোপানলে পড়ে৷ আর্নল্ড শোয়েনবর্গকে ২০ শতকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও প্রতিভাবান মিউজিশিয়ান বলা হয়৷

শরণার্থী শিল্পীরা

এম.আই.এ

ব্রিটিশ র‌্যাপার মাথাঙ্গি ‘মায়া’ আরুলপ্রাগাসাম এম.আই.এ নামেই বেশি পরিচিত৷ যদিও তিনি জন্ম নিয়েছেন ব্রিটেনে, তবুও তাঁর পরিবার কিন্তু  শ্রীলঙ্কার৷ এম.আই.এ-র যখন মাত্র ছ’মাস বয়স, তখন তার পরিবার শ্রীলঙ্কা ফিরে গেলেও তাঁর বাবা উগ্রপন্থি এলটিটিই-এর সদস্য বলে মাতৃভূমিতে থাকতে পারেননি৷ ফলে এম.আই.এ-র মা তাঁকেসহ অন্যান্য সন্তানদের নিয়ে আবারো ব্রিটেন পালিয়ে আসতে বাধ্য হন৷

শরণার্থী শিল্পীরা

মিকা

বিখ্যাত গীতিকার ও গায়ক মিকার জন্ম লেবাননের বৈরুতে, ১৯৮৩ সালে৷ তবে তাঁর পরিবার ১৯৮৪ সালে প্যারিস চলে আসতে বাধ্য হয়৷ কেননা তখন লেবাননে গৃহযুদ্ধ চলছে৷ শোনা যায় সেসময় অ্যামেরিকার দূতাবাসে আক্রমণও চালানো হয়েছিল৷

বিখ্যাত বেশ কিছু শিল্পী বাধ্য হয়ে দেশান্তরি হয়েছিলেন৷ চলুন ছবিঘরে জেনে আসি তাদের জীবনের গল্প৷

এইচআই/ডিজি

আমাদের অনুসরণ করুন