শ্রীলঙ্কায় হামলার পর কতটা সতর্ক বাংলাদেশ?

আইএস-এর পতনের পর এখন নতুন আতঙ্ক ‘ফরেন টেরোরিস্ট ফাইটার’ বা এফটিএফ৷ শ্রীলঙ্কায় হামলা সেই আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে দিয়েছে৷ বাংলাদেশেও বিদেশি দূতাবাস ও পাঁচতারা হোটেলে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে৷ কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, এসব যথেষ্ট কিনা?

এফটিএফ ফাইটাররা আইএস-এর বিদেশি যোদ্ধা নামেও পরিচিত৷ সময় যত যাচ্ছে, ততই নতুন তথ্য জানা যাচ্ছে৷ দেখা যাচ্ছে, শ্রীলঙ্কার হামলার সাথে বাংলাদেশের হোলি আর্টিজান হামলার কিছু মিল রয়েছে৷ বাংলাদেশে হোলি আর্টিজান হামলারও দায় স্বীকার করেছিল আইএস৷ হামলার পর আইএস তাদের নিজস্ব চ্যানেলে হামলায় জড়িতদের নাম ও পরিচয় প্রকাশ করে৷ বাংলাদেশের মতো শ্রীলঙ্কার হামলায় জড়িতরাও উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তান এবং ‘আধুনিক' শিক্ষায় শিক্ষিত৷ হোলি আর্টিজান হামলায় ব্যবহৃত হয়েছে আগ্নেয়াস্ত্র, কিন্তু শ্রীলঙ্কায় ব্যবহৃত হয়েছে বোমা৷ বালাদেশে হামলার সময় সিরিয়ায় আইএস-এর খেলাফত ছিল৷ এখন আর নেই৷ 

এখন লাইভ
01:07 মিনিট
বিষয় | 25.04.2019

‘সেই প্রতিক্রিয়া যাতে না হয় তার জন্য বাংলাদেশকে আগাম আরো সতর্...

কিন্তু এখন যেটা বড় আতঙ্কের হলো, আইএস-এর ফরেন টেরোরিস্ট ফাইটাররা ছড়িয়ে পড়েছে৷ তারা যার যার দেশে ঢোকার চেষ্টা করছে৷ চেষ্টা করছে নতুন হামলার মধ্য দিয়ে তাদের অস্তিত্বের জানান দিতে৷ তাদের সঙ্গে আছে ‘হোমগ্রোন' জঙ্গি, যাদের বড় একটি অংশ আইএস-এর অনুসারী৷ তাই সারাবিশ্বেই এনিয়ে আছে উদ্বেগ আর সতর্কতা৷ বাংলাদেশও আছে সতর্ক অবস্থানে৷

শ্রীলঙ্কার হামলার ঘটনার পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সংসদে এই ধরনের হামলার ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে বলেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের দেশে এ ধরনের বোমা হামলা, জঙ্গি হামলা আমরা কঠোর হাতে দমন করেছি৷ আমি দেশবাসীকে বলব সতর্ক থাকতে৷ কোথাও যদি অস্বাভাবিক কিছু পায়, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে যেন তারা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানায়৷''

বৃহস্পতিবার আরেক অনুষ্ঠানে তিনি একইভাবে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন৷ তিনি শ্রীলঙ্কার সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা উল্লেখ করে বলেন, ‘‘বাংলাদেশেও এধরনের ঘটনা ঘটানোর অনেক চেষ্টা চলছে৷ তবে আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বন করে যাচ্ছে৷ আমি দেশবাসীকে আহ্বান জানাব, এ ধরনের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত থাকবে, কে কোথায় জঙ্গিবাদী-সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত, সেটা শুধু গোয়েন্দা সংস্থাই না, আমাদের দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে এবং খুঁজে বের করতে হবে৷ এবং সঙ্গে সঙ্গে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানাতে হবে৷'' 

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

ভয়াবহ ইস্টার সানডে

খ্রিষ্টানদের অন্যতম পবিত্র দিন ইস্টার সানডে৷ এমন দিনেই কলম্বো, নেগোম্বো ও বাট্টিকালোয়া শহরের বেশ কয়েকটি গির্জা ও হোটেলে ঘটে সিরিজ বোমা হামলা৷ শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এই হামলায় নিহতের সংখ্যা ২৯০, আহত হয়েছেন ৫০০ জনেরও বেশি৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

কোথায় হামলা

বোমা হামলার শিকার গির্জাগুলির মধ্যে রয়েছে উত্তর কলম্বোর সেইন্ট অ্যান্থনি'স শ্রাইন, নেগোম্বো শহরের পাশে সেইন্ট সেবাস্টিয়ান চার্চ ও পূর্বে বাট্টিকালোয়া শহরের জিয়ন চার্চ৷ এছাড়া তিনটি ফাইভ স্টার হোটেল সিনামন গ্রান্ড, কিংসবুরি ও দ্য সাংরিলাতেরও হামলা হয়৷ তিনটিই রাজধানী কলম্বোর কেন্দ্রে অবস্থিত৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

শ্রীলঙ্কায় খ্রিষ্টান যারা...

পঞ্চদশ শতাব্দীতে পর্তুগিজ পাদ্রীদের আগমনের পর থেকে শ্রীলঙ্কায় বাড়তে থাকে খ্রিষ্টান জনসংখ্যা৷ বর্তমানে, দেশটির জনসংখ্যার ৭ শতাংশ মানুষ খ্রিষ্টধর্মের অনুসারী৷ এর মধ্যে রয়েছেন রোমান ক্যাথলিক, মেথডিস্ট ও প্রটেস্টান্ট ধারার মানুষ৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

বিদেশিরাও হামলার শিকার

সংবাদসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় ইতিমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৩৫ জন বিদেশি নাগরিক৷ হামলার শিকার হোটেলগুলিতে ছিলেন তাঁরা৷ নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতা শেখ ফজলুল করিম সেলিমের আট বছর বয়সি নাতি জায়ান চৌধুরীও রয়েছে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

সহিংসতার ধারা

শ্রীলঙ্কায় মাত্র এক দশক আগেই থেমেছে গৃহযুদ্ধ৷তার আগে সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সিনহালিজ ও সংখ্যালঘু হিন্দু তামিলদের মধ্যে দীর্ঘদিন চলে সশস্ত্র লড়াই৷বিগত দশকে গৃহযুদ্ধ থামার পর রবিবারের এ হামলাই সাম্প্রতিক কালে শ্রীলঙ্কায় সবচেয়ে ভয়াবহ সহিংসতার ঘটনা৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

হামলার পেছনে কারা?

শ্রীলঙ্কার সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, এই হামলার পেছনে রয়েছে স্থানীয় ইসলামী সংগঠন ন্যাশনাল তৌফিক জামাত৷ দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজিথা সেনারত্নে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, ৭ আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীই শ্রীলঙ্কার নাগরিক এবং তারা তৌফিক জামাতের সাথে জড়িত৷ হামলার পেছনে বিদেশি শক্তির হাত থাকার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেননি তিনি৷হামলায় জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত ২৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

বর্তমান পরিস্থিতি

রবিবার হামলার পর দেশজুড়ে কার্ফু জারি করেছিল শ্রীলঙ্কা সরকার৷ তবে সোমবার সকালে কার্ফু তুলে নেওয়া হয়৷ সোমবার রাত থেকে জরুরি অবস্থা জারি হতে পারে৷ ওপরের ছবিতে বিস্ফোরণের পর বিধ্বস্ত এক গির্জার পাশে স্থানীয় যাজকদের দেখা যাচ্ছে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

এ হামলা কি এড়ানো যেতো?

শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনারত্নে জানিয়েছেন, পুলিশের কাছে এমন হামলার আশঙ্কার আগাম তথ্য থাকা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরকে তা জানানো হয়নি৷ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এখনো এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য না এলেও প্রশ্ন উঠেছে – সত্যিই কি পুলিশ এমন তথ্য আগে পেয়েছিল? তাহলে আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিলে এই ভয়াবহ হামলা তো কিছুটা হলেও এড়ানো যেতো!

সতর্ক ব্যবস্থা

গোয়েন্দাসূত্র জানায়, সিরিয়ায় আইএস-এর পতনের আগে থেকেই বাংলাদেশ সতর্ক ছিল৷ সেই সতর্কতা এখন আরো বাড়ানো হয়েছে৷ বাংলাদেশ থেকে যারা সিরিয়া বা অন্য কোনো দেশে গিয়ে আইএস-এ যোগ দিয়েছে তারা যাতে দেশের ভেতরে ঢুকতে না পারে সেজন্য বিমানবন্দরকে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে৷ তাদের একটি তালিকাও পাঠানো হয়েছে বন্দরগুলোতে৷

সূত্র জানায়, ৪০ জনের একটি তালিকা বিমানবন্দরসহ সীমান্ত এলাকার বন্দরগুলোতে পাঠানো হয়েছে৷ তথ্য সংগ্রহ এবং নজরদারির জন্য বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাকেও ওই তালিকা দেয়া হয়েছে৷

তবে তারা সবাই যে সরাসরি বাংলাদেশ থেকে গিয়েছে তা নয়৷ একটি অংশ অন্যদেশ থেকেও গিয়েছে৷ তারা বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত৷ সরাসরি বাংলাদেশ থেকে গেছে এমন সংখ্যা ৩০-৩৫ জন হবে৷

জাতিসংঘের হিসেবে আইএস-এর হয়ে যুদ্ধ করতে ১১০ দেশ থেকে ৪০ হাজারেরও বেশি যোদ্ধা সিরিয়া এবং ইরাক গিয়েছে৷ এরমধ্যে ইন্দোনেশিয়া থেকে ৮০০, মালয়েশিয়া থেকে ১৫৪, ফিলিপাইন থেকে ১০০ এবং বাংলাদেশ থেকে গিয়েছে ৪০ জন৷

সিরিয়া গিয়ে যুদ্ধে তাজউদ্দিন নামে একজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন৷ তার বাংলাদেশ ও ফিনল্যান্ড দুই দেশেরই পাসপোর্ট ছিল৷ সে ফিনল্যান্ড থেকে সিরিয়ায় গিয়েছিলেন৷

কাজী সোহান নামে একজন বাংলাদেশে ফিরে আসার পর গ্রেপ্তার করা হয়৷ ২০১৫ সালে তিনি ফিরে আসেন৷ এছাড়া আরো যারা সেখানে গিয়েছেন তাদের মধ্যে আছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জাপানি নাগরিক ওজাকি, জুন্নুন শিকদার, দুই ভাই ইব্রাহিম শিকদার ও জোনায়েদ শিকদার, ডা. আরাফাত, তাজউদ্দিন৷

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগম লন্ডন থেকে ২০১৫ সালে সিরিয়া গিয়ে আইএস যোদ্ধাকে বিয়ে করেন এবং এখন ব্রিটেনে ফিরতে চেয়ে খবরের শিরোনাম হয়েছেন৷ তার প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘‘সে কখনোই বাংলাদেশে ছিলনা৷ সে বাংলাদেশের নাগরিক না৷''

‘আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই'

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘২০১৬ সালে হোলি আর্টিজান হামলার পর বাংলাদেশে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কার্যকর অভিযান পরিচালনা করা হয়৷ তারপরও আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই যে তারা শেষ হয়ে গেছে৷ তাদের কিছু এখনো বাইরে আছে৷ তারা যাতে নতুন করে সংগঠিত হতে না পারে সেজন্য আমাদের গোয়েন্দা তৎপরতা ও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে৷ আর বাইরে যেসব জঙ্গি এখনো আছে তাদেরও আটকের জন্য ধারাবাহিক তৎপরতা চলছে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘বাংলাদেশ থেকে যারা সিরিয়া গিয়েছেন তারা ২০১৪ সালের আগে গিয়েছেন৷ তাদের মধ্যে যারা বেঁচে আছেন তাদের পাসপোর্টের মেয়াদ এরইমধ্যে শেষ হয়ে গেছে৷ তাই তাদের দেশে ফিরতে হলে ট্রাভেল ডকুমেন্ট লাগবে৷ সেটা যাতে তারা না করতে পারে সেজন্য দূতাবাসগুলোকে সতর্ক করা হয়েছে৷ তারপরও তারা কোনোভাবে বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করলে তাদের গ্রেপ্তার করা হবে৷'' 

এখন লাইভ
02:18 মিনিট
বিষয় | 25.04.2019

‘তারপরও আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই যে তারা শেষ হয়ে গেছে’

‘আগাম আরো সতর্ক হতে হবে'

নিরাপত্তা বিশ্লেষক এয়ার কমোডর (অব.) ইশফাক ইলাহী চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতির উপর সতর্ক নজর রাখতে হবে৷ ওখানে যদি কোনোভাবে ধর্মীয় সংঘাত, বিশেষ করে মুসলামানদের ওপর প্রতিশোধমূলক হামলা হয় তাহলে তার প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশে পড়তে পারে৷ সেই প্রতিক্রিয়া যাতে না হয় তার জন্য বাংলাদেশকে আগাম আরো সতর্ক হতে হবে৷''

তিনি বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী এরইমধ্যে দেশের মানুষকে সতর্ক থাকতে বলেছেন৷ আমার মনে হয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও যথেষ্ট সতর্ক আছে৷ তবে বাইরে থেকে জঙ্গিরা যাতে বাংলাদেশে প্রবেশ না করতে পারে সেটা কঠোর নজরদারিতে রাখতে হবে৷ এখন থেকে যারা সিরিয়া গেছে তাদের সবাই হয়ত নেই৷ কিন্তু যারা আছে তারা ঢোকার চেষ্টা করতে পারে৷ তারা ছাড়াও বাইরের জঙ্গিরাও আসতে পারে৷ এজন্য এয়ারপোর্ট, বর্ডারে বিজিবিকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রাখতে হবে৷ বাংলাদেশ থেকে যারা গেছে তাদের পক্ষে হয়তো এখন পাসপোর্ট করা কঠিন হবে৷ তাই তারা বিকল্প কোনো উপায়ে ঢুকতে চাইতে পারে৷ তাই স্থল সীমান্তে কড়া নজরদারি রাখতে হবে৷''

আমাদের অনুসরণ করুন