‘সিরীয়দের দেশে ফেরত পাঠানো নিরাপদ নয়'

জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক গোপন প্রতিবেদন বলছে, সিরিয়ায় মানুষ ফেরত পাঠানো এখনো নিরাপদ নয়৷ এদিকে, সিরীয়দের প্রত্যাবর্তন স্থগিত থাকার মেয়াদ ডিসেম্বরে শেষ হচ্ছে৷

এইমেয়াদ আরো বাড়ানো হবে কিনা তা নিয়ে আলোচনা করতে জার্মানির সব রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের চলতি মাসের শেষদিকে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে৷ সব রাজ্য যদি সময় বাড়াতে একমত হয় তাহলেই সেটি কার্যকর হবে৷

জার্মানির চার গণমাধ্যম - স্যুডডয়চে সাইটুং, রিডাকসিয়ুনসনেৎসভ্যার্ক ডয়েচলান্ড, এনডিআর ও ডাব্লিউডিআর - পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনটি দেখেছে৷

প্রতিবেদনে যা বলা হয়েছে:


  • নির্যাতিত মানুষদের জন্য সিরিয়ার কোথাও দীর্ঘমেয়াদি ও বিশ্বস্ত নিরাপত্তার জায়গা নেই৷
  • ১৮ থেকে ৪২ বছর বয়সি সিরীয়রা ফেরত যাওয়ার পর তাদের সামরিক বাহিনীতে যোগ দিতে বাধ্য করা হতে পারে কিংবা জেল দেয়া হতে পারে৷
  • ২০১৪ সাল থেকে শিশুদের জোর করে সামরিক বাহিনীতে নিয়োগ দেয়ার সংখ্যা প্রতিবছর বাড়ছে৷
  • অনেকে ফেরত যাওয়া সিরীয়দের ভীতু, দেশদ্রোহী কিংবা সন্ত্রাসীদের সমর্থক হিসেবে দেখে থাকে৷
  • সরকারবিরোধীদের পরিবারের সদস্য, বিশেষ করে নারী ও শিশুদের আটক ও নির্যাতন করার অসংখ্য উদাহরণ আছে৷
  • ২০১১ সালের পর থেকে নির্যাতনের কারণে প্রায় ১৩ হাজার জনের মৃত্যুর নিশ্চিত তথ্য আছে৷
  • সিরিয়ার সামরিক বাহিনীর সদস্য ও তাদের সমর্থিত গোষ্ঠীর সদস্যরা নারীদের ধর্ষণ ও নির্যাতন করে থাকে৷

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে জার্মানির দুটি রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিরীয়দের মধ্যে যারা অপরাধ করেছে এবং যারা সন্ত্রাসী হামলা চালাতে পারে বলে সন্দেহ করা হয়, তাদের ফেরত পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছেন৷

জাতিসংঘ বলছে, সিরিয়ায় সংঘাত কমে এলেও শরণার্থীদের দেশে ফিরে যেতে বাধ্য করা উচিত হবে না৷

সাত বছর ধরে চলা যুদ্ধে তিন লক্ষ ৬০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে৷ লক্ষ লক্ষ মানুষ গৃহচ্যুত হয়েছেন৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

থেরাপি

বৈরুতের এই স্কুলে যে শিক্ষার্থীদের দেখছেন তারা সিরিয়ার শরণার্থী৷ স্কুলে গান গাইছে তারা৷ এটা একটা থেরাপি যাতে যুদ্ধের ভয়াবহ স্মৃতি এবং আতঙ্ক কাটাতে পারে তারা৷ এছাড়া এখানে নিজেদের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করে তারা৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

দ্বিতীয় জীবন

শিশুদের এমনভাবে শিক্ষা দেয়া হচ্ছে যেন তারা লেবাননের সরকারি স্কুলে পড়তে পারে৷ এদের মধ্যে একজন সুজানে৷ বড় হয়ে শিল্পী হতে চায় সে৷ স্কুলে পড়ালেখা ছাড়া এই স্বপ্ন পূরণ হবে না, তাই শিক্ষাগ্রহণকে সুজানে ‘দ্বিতীয় জীবন’ বলে মনে করছে৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

পরিবারের সহায়তা নেই

বৈরুতের ঐ স্কুলটিতে অঙ্কের ক্লাসে দেখা যাচ্ছে ডায়নাকে৷ ডায়নার মতো সিরিয়ার এই শরণার্থী শিশুদের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো পরিবারের কোনো সহায়তা পায় না তারা, এমনকি বাড়িতে পড়ানোর মতো কেউ নেই৷ স্কুলই পড়ার একমাত্র জায়গা৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

চিন্তার শক্তি

শিশুরা এই স্কুলে একবেলা খেতে পায়৷ যে বেসরকারি সংস্থাটি স্কুলটি পরিচালনা করছে, তার এক কর্মকর্তা জানালেন, একটি গির্জার সহায়তায় এই শিশুদের পড়ালেখার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ এই শিশুরা ঐ এলাকার আশপাশেই থাকে এবং সেখানকার বাড়ি ভাড়া প্রতি মাসে ৪০০ থেকে ৫০০ ডলার৷ ফলে পরিবারের উপার্জনের প্রায় পুরোটাই বাড়ি ভাড়ায় চলে যায়৷ খাবারের জন্য অর্থ থাকে না৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

বাড়ি থেকে বাড়ি

এই শরণার্থী পরিবারগুলো এমন অ্যাপার্টমেন্টে থাকে, যেখানে হয়ত সিঁড়ির নীচে বা ছাদের চিলেকোঠায় মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়েছে তারা৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

সৃজনশীলতা

১২ বছর বয়সি আশতাকে সৃজনশীল লেখা লিখতে বলা হয়েছে৷ তাই হয়ত জানলার বাইরে তাকিয়ে সে চিন্তা করছে কি লেখা যায়৷ এর মাধ্যমে নিজের মানসিক চাহিদাগুলোর বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারে তারা৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

হারিয়ে যাওয়ার পথে যে প্রজন্ম

নিজেদের ভাড়া বাড়িতে শিশুদের অঙ্ক বাড়ির কাজ নিয়ে বসেছেন বাবা-মা৷ সিরিয়ার কৃষক বাবা জানালেন, ‘‘আমি তাদের এখানে নিয়ে এসেছি৷ কারণ আমার ধারণা তারা সিরিয়ায় থাকলে অশিক্ষিতই থেকে যেত৷ এটা একটা বড় ধরনের ভুল৷ এর সমাধান করতে না পারলে একটা পুরো প্রজন্ম হারিয়ে যাবে৷’’

জীবনের জন্য শিক্ষা

সময়ের অপচয়

লেবাননে থাকা যেসব শরণার্থী শিশুরা স্কুলে যায় না, তাদের পুরো সময়টা কাটে টিভি দেখে বা খেলাধুলা করে৷ এনজিওটি জানালো বর্তমানে ৪ লাখ শরণার্থী শিশু রয়েছে৷ কিন্তু মাত্র ৯০ হাজার স্কুলে যায়৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

পথেই জীবন

নারিমান, বয়স ৭৷ এত অল্প বয়সেই সে জীবিকার পথ বেছে নিয়েছে৷ রাস্তায় রাস্তায় টিস্যু পেপার বিক্রি করে সে৷ তার চাচা তাকে এগুলো বিক্রি করতে দিয়েছে, তবে শর্ত হলো সন্ধ্যা ৬ টার আগে চাচার হাতে ১২,০০০ লেবানিজ পাউন্ড অর্থাৎ প্রায় ৮ ডলার তুলে দিতে হবে৷ তাই দিনের প্রায় পুরোটা সময় রাস্তাতেই কাটে তার৷

জীবনের জন্য শিক্ষা

লক্ষ্যভ্রষ্ট

লেবানন-সিরিয়া সীমান্তের কাছে আরো একটি স্কুল খুলেছে বেসরকারি সংস্থা সাওয়া৷ সংস্থার এক কর্মী বললেন, ‘‘এই শিশুগুলো এমন আতঙ্ক ও ভয়াবহ একটা পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে গেছে, এখন কোনো কিছুতেই তাদের কিছু যায় আসে না৷ পরোয়া করে না তারা৷

জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে,সিরিয়ায় এক কোটি ৮০ লক্ষ মানুষ বাস করে৷এর মধ্যে এক কোটি ৩০ লক্ষ মানুষের সহায়তা প্রয়োজন৷ আর ৫৬ লক্ষ মানুষের প্রয়োজন জরুরি সহায়তা৷

জেডএইচ/এসিবি (ডিপিএ, কেএনএ)

আমাদের অনুসরণ করুন