সুপারবাগ: অ্যান্টিবায়োটিক্স যাকে রুখতে পারে না

ব্রিটিশ সরকারের ফরমায়েশি একটি রিপোর্টে সুপারবাগদের ভবিষ্যৎ দৌরাত্ম্যের যে ছবি তুলে ধরা হয়েছে, তা ভীতিকর৷ ২০৫০ সাল থেকে বছরে এক কোটি মানুষ প্রাণ হারাবে সুপারবাগ ইনফেকশনে, যদি কিছু করা না হয়৷

রিপোর্টটির নাম হলো ‘রিভিউ অন অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্টান্স'৷ রিপোর্টটি সেই ধরনের সব ‘সুপারবাগ'-দের নিয়ে, প্রচলিত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করে যাদের কাবু করা যায় না; যার ফলে ছোটখাটো ইনফেকশন থেকেও রোগীর প্রাণসংশয় ঘটতে পারে, বড় বড় অপারেশনের তো কথাই নেই৷ এমনকি সন্তানের জন্মদান প্রসূতির পক্ষে অতীতের মতোই একটা মরণ-বাঁচনের প্রশ্ন হয়ে দাঁড়াতে পারে, কেননা কোনো অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করবে না৷

মনে রাখা দরকার,গত শতাব্দীর আশির দশকের পর আর কোনো নতুন ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কৃত হয়নি৷ অপরদিকে পশুপালনে যেমন অ্যান্টিবায়োটিক্সের ব্যবহার বেড়েছে, তেমনই ডাক্তাররাও যে কোনো ইনফেকশনে কারণে-অকারণে – যেমন ভাইরাল ইনফেকশনে – অ্যান্টিবায়োটিক্স প্রেসক্রাইব করার ফলে সাধারণ জীবাণুগুলো অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্টান্স বা এএমআর, অর্থাৎ ওষুধ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা গড়ে তোলার সুযোগ পেয়েছে৷ ২০১৪ সালের মাঝামাঝি যাবৎ দশ লাখ মানুষ অ্যান্টিবায়োটিক্স প্রতিরোধী জীবাণুর প্রকোপে প্রাণ হারিয়েছে, বলে জানাচ্ছে এই রিপোর্ট৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

মাংসের দোকান থেকে বাড়িতে

বাজারে যে কাঁচা মাংস বিক্রি হয় তাতে ব্যাকটিরিয়া থাকতে পারে৷ তাই এ থেকে মানুষের দেহে সংক্রমিত হলে ব্যাকটিরিয়াগুলো মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়৷ ফলে মানুষ সহজেই অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হয়৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

হিমায়িত খাবার

ফ্রিজে দীর্ঘদিন ধরে বেশি মাংস সংরক্ষণ করা উচিত না৷ কেননা যে তাপমাত্রায় অল্প মাংস রাখা উচিত, সে তাপমাত্রায় বেশি পরিমাণ মাংস সংরক্ষণ করলে রান্না করার সময় ব্যাকটিরিয়া মরে যাওয়ার বদলে গাণিতিক হারে তা বৃদ্ধি পেতে থাকে৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

সঠিক আসবাব

বিশেষজ্ঞদের মতে, যে বোর্ডে সবজি বা মাংস কাটা হয় সেটি কাচের হলে ভালো৷ প্লাস্টিক বা কাঠের বোর্ড থেকে সহজেই ব্যাকটিরিয়া অন্য খাবারে চলে যায়৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

কাঁচা দ্রব্যের জন্য আলাদা যন্ত্র

কাঁচা মাংস, মাছ, সবজি বা সালাদের জন্য আলাদা বাসন-পত্র ব্যবহার করা উচিত৷ রান্না হলে জীবাণুগুলো যেমন মরে যায়, তেমনই কাঁচা খাবার থেকে ছড়িয়ে পড়া ব্যাকটিরিয়া সুপার ব্যাকটিরিয়ার পরিণত হয়৷ আসলে এ সব খাবার রান্নার পর আবারো যদি কাঁচা খাবার নাড়ার কোনো আসবাব দিয়ে খাবার নাড়া-চাড়া করা হয়, তবে ব্যাকটিরিয়া রান্না করা খাবারে প্রবেশ করে৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

খাবার সঠিকভাবে রান্না করা

বেশিরভাগ জীবাণু ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াম তাপামাত্রায় মরে যায়৷ তাই কাঁচা মাংস সঠিকভাবে রান্না করা হয়েছে কিনা, তা ভালোভাবে দেখে নিতে হবে৷ মাইক্রোওয়েভে রান্না করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সব জীবাণু মরে যাবে কিনা তার কিন্তু কোনো নিশ্চয়তা নেই৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

হাত ধোয়া

রান্নার আগে এবং পরে গরম পানি এবং সাবান দিয়ে হাত ভালো করে ধোয়া উচিত৷ এছাড়া মাছ, মাংস কাটা এবং ডিম ফাটানোর পর সাথে সাথে হাত ভালো করে ধোয়া জরুরি৷ তা না হলে গ্লাভস ব্যবহার করলে ভালো হয়৷

কাঁচা মাছ-মাংস থেকে সাবধান!

পরিষ্কার রাখা

রান্না ঘরের বাসন-পত্র ও আসবাব গরম পানি দিয়ে পরিষ্কার করা উচিত৷ এছাড়া কাঁচা মাছ, মাংস যেসব বাসনে রাখা হয়েছিল, সেগুলো ডিশওয়াশারের ভেতর ৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ধোয়া অত্যন্ত জরুরি৷

রিপোর্টটির দায়িত্বে ছিলেন গোল্ডম্যান স্যাক্স কোম্পানির সাবেক অর্থনীতিবিদ জিম ও'নিল, যিনি উত্থানশীল দেশগুলিকে ‘‘ব্রিক'' আখ্যা দেবার জন্য খ্যাত৷ ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ওনিল-কে এএমআর সুপারবাগ থেকে বিশ্বব্যাপি ঝুঁকির ব্যাপারটা তলিয়ে দেখতে বলেন৷ ওনিল-এর উত্তর হলো, বিষয়টিকে একটি অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তাগত ঝুঁকি হিসেবে গণ্য করা প্রয়োজন, যা কিনা ‘‘সন্ত্রাসবাদের মতোই একটা বড় ঝুঁকি''৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংগঠন ডাবলিউএইচও ইতিপূর্বেই সাবধান করে দিয়েছিল যে, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্টান্সের ফলে বিশ্ব প্রাক-অ্যান্টিবায়োটিক যুগে ফিরে যেতে পারে৷ ওদিকে মুশকিল এই যে, অ্যান্টিবায়োটিকের যে কোনো ধরনের ব্যবহারই সুপারবাগগুলির বিকাশ ও বিস্তার বাড়াতে পারে৷

জিম ও'নিল-এর নেতৃত্বাধীন গবেষক দল বিষয়টি নিয়ে দেড় বছর চর্চা করার পর এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, একদিকে যেমন অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমানো উচিত, অন্যদিকে তেমন নতুন ধরনের অ্যান্টিবায়োটিকের বিকাশ ঘটানো প্রয়োজন৷ নয়ত রিপোর্টে যে দশটি ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলা হয়েছে, তার মধ্যে যেমন একটি বিশ্বব্যাপী সচেতনতা কর্মসূচি পড়ে, তেমনি পড়ে বিশুদ্ধ পানীয় জল, সাধারণ স্বাস্থ্যবিধান ও হাসপাতালে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা৷ অ্যান্টিবায়োটিক্স ব্যবহারের চেয়ে টিকাদানের উপরও বেশি জোর দেওয়া যেতে পারে৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

হাত ধোয়া

গাড়ি, রিক্সা, কোনো কিছুর দরজা বা হ্যান্ডেল সাধারণত আমরা হাত দিয়েই ধরি৷ অথচ সেগুলোতে কতজন হাত দিয়েছে, তার কোনো ঠিক নেই৷ তার ওপর বাতাসেও ছড়িয়ে নানা জীবাণু৷ তাই বাইরে থেকে এসে প্রথমেই খুব ভালো করে হাত ধুয়ে ফেলা প্রয়োজন৷ তা না হলে বাইরের জীবাণুগুলো খুব সহজেই ঢুকে পড়তে পারে আপনার শরীরে৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

কম্পিউটার

আজকের দিনে প্রায় সব জায়গাতেই রয়েছে কম্পিউটারের ব্যবহার৷ চাকরির প্রয়োজনে যাঁদের ভিন্ন ভিন্ন কম্পিউটার ব্যবহার করতে হয়, তাঁদের জন্য পরামর্শ – কাজ শুরুর আগে হাত দুটো ‘হ্যান্ড স্যানিটাইজার’ দিয়ে মুছে নেবেন এবং কাজ শেষ হওয়ার পর ঐ একই পদ্ধতিতে হাত পরিষ্কার করে ফেলবেন৷ এছাড়া বাড়িতে ঢুকেও প্রথম কাজ হতে হবে ভালো করে হাত মুখ ধুয়ে ফেলা৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

রান্নাঘর

রান্নাঘরেই লুকিয়ে থাকতে পারে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ জীবাণু৷ কাঁচা মাংস কাটার পর সেই কাটিং বোর্ডে অন্য কিছু কাটাকাটি করা হলে, যা তার সংস্পর্শে আসবে, তাতেই মাংসের জীবাণু ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ তাই কাঁচা মাছ, মাংস কাটার জন্য আলাদা বোর্ড ব্যবহার করুন৷ আর তা ব্যবহারের পর বোর্ড, ছুড়ি, দা এবং অবশ্যই হাত দুটো ভালো করে ধুয়ে ফেলুন৷ এছাড়া রান্নাঘরের কাঁচা আবর্জনা পরিষ্কার করুন প্রতিদিন৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

বাথরুম

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোয় বেশিরভাগ বাড়িতেই বসার ঘর কিংবা শোবার ঘর যতটা পরিষ্কার বা সুন্দর করে সাজানো থাকে, রান্নাঘর বা বাথরুমের ক্ষেত্রে কিন্তু তেমনটা দেখা যায় না৷ অথচ বাথরুম এবং রান্নাঘরই হচ্ছে জীবাণু ছড়ানোর ঝুঁকিপূর্ণ জায়গা৷ তাই বাথরুম সব সময় শুকনো এবং পরিষ্কার রাখুন৷ তার সঙ্গে ব্যবহৃত টয়লেট পেপার বা কসমেটিক পেপার সহ সব ময়লা নিয়মিত সরিয়ে ফেলুন৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

ব্যবহৃত যে কোনো ব্রাশ

রান্নাঘর, বাথরুম অথবা বাড়ির অন্য কোনো ঘরই বলুন, সেই সব জায়গা পরিষ্কার বা মোছার জন্য ব্যবহার করা ব্রাশটিতে কিন্তু থাকে অসংখ্য জীবাণু৷ তাই ব্রাশগুলো ব্যবহারের পর প্রতিবারই ধুয়ে এবং পানি চিপে ফেলে দিয়ে পরেরবার ব্যবহারের জন্য রেখে দিন৷ এছাড়া মাসে অন্তত একবার পুরনো ব্রাশ ফেলে দিয়ে নতুন ব্রাশ কিনে আনুন৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

টুথ ব্রাশ

দাঁত মাজার ব্রাশের ভেতরও জমে থাকতে পারে নানা রকম ব্যাকটেরিয়া৷ তাই সময়মতো, অর্থাৎ মাসে অন্তত একবার টুথব্রাশ পরিবর্তন করা উচিত৷ তা না হলে নিজের ব্রাশের জীবাণুই আবারো নিজেরই ক্ষতি করতে পারে৷ এছাড়া ‘‘প্রতিবার ব্যবহারের পর টুথব্রাশটি গরম পানি দিয়ে ধুয়ে রাখা অত্যন্ত জরুরি৷’’ একথা বলেন কোলন শহরের দাঁত বিশেষজ্ঞ ডা. আইকার৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

ঘরের ভেতরের গাছের পানি

অনেকেই সখ করে ঘরে গাছ লাগিয়ে থাকেন৷ এ সব গাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পানি দেওয়া হলে, তা জমে জীবাণুর জন্ম হয়, যা কিনা সে’সব জায়গায় বসা মশা, মাছি বা পোকামাকড়ের মাধ্যমে মানুষের শরীরেও ছড়িয়ে পড়তে পারে৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

ইনজেকশনের সিরিঞ্জ

নানা কারণেই মানুষকে ইঞ্জেকশন দিতে হয়৷ তবে ইনজেকশন দেওয়ার আগে অবশ্যই পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত সিরিঞ্জটি নতুন কিনা৷ কারণ সিরিঞ্জটি আগে যে ব্যবহার করেছেন, তাঁর কোনো ছোঁয়াচে রোগ থাকলে এর মধ্য দিয়ে অন্য আরেকজন আক্রান্ত হতে পারেন সহজেই৷ বলা বাহুল্য, এইচআইভি ভাইরাসের মতো বিপজ্জনক ভাইরাসও কিন্তু এভাবে ছড়াতে পারে৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

বাতাসে জীবাণু ছড়ায়

সার্দি-কাশি বা হাঁচিতে জীবাণু ছড়ায় – সেকথা কম-বেশি আমরা অনেকেই জানি৷ তাই এ ধরণের রোগীদের থেকে খানিকটা দূরে থাকাই ভালো৷ এ সব অসুখ ছড়ায় সাধারণত, বাস, ট্রেন, মিটিং, মিছিল বা সেই সব জায়গায় যেখানে অনেক মানুষের যাতায়াত৷ যাঁরা শারীরিকভাবে কিছুটা দুর্বল বা যাঁদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, তাঁরা সহজেই এভাবে আক্রান্ত হয়ে পরতে পারেন৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

পানি

পানির আরেক নাম জীবন৷ পানি পান করা ছাড়াও প্রায় সব কাজেই প্রয়োজন হয় পানির৷ তবে যে কোনো জায়গার পানি পান না করাই ভালো৷ পানি বাহিত রোগের কথা কে না জানে? তাই প্রয়োজনে এক বোতল ফুটন্ত পানি বাড়ি থেকে সাথে নিয়ে বের হন৷ অথবা পথেই ‘মিনারেল ওয়াটার’-এর বোতল কিনে নিন৷ গোসলের সময়ও লক্ষ্য রাখা উচিত যাতে পানি পেটে না চলে যায়৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

সতর্কতা

জীবাণু সম্পর্কে শিশুদের ছোটবেলা থেকেই সতর্ক করে দেওয়া উচিত৷ বিশেষ করে, অন্য কোথাও টয়লেট ব্যবহারের পর অবশ্যই হাত ধোয়া উচিত, সেই ছোট থেকেই৷ বাইরের খাবারের ব্যাপারেও ভলোভাবে সতর্ক হওয়ার কথা শিশুদের বুঝিয়ে বলতে হবে৷ আর সতর্ক না হলে তার ফল যে ভয়ংকর হতে পারে – সেটারও একটা ধারণা দেয়া উচিত সেই ছোটবেলাতেই৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

রাস্তার খাবার

রাস্তা বা ফুটপাথে মজার মজার লোভনীয় খাবারের দোকানগুলো আমাদের কেমন যেন হাতছনি দিয়ে ডাকে৷ তাই না? কিন্তু খাবারগুলো লোভনীয় হলেও এ সব থেকে যতটা সম্ভব দূরে থাকা উচিত৷ বাইরে খোলা অবস্থায় রাখা খাবারগুলোয় মাছি, ধুলোবালি পড়ে৷ অনেকক্ষণ আগে কেটে রাখা ফল বা সালাদ তো একেবারেই খাওয়া উচিত নয়৷ তবে ফুটন্ত বা রান্না করা খাবার গরম অবস্থায় খাওয়া যেতে পারে৷

জীবাণুমুক্ত থাকার ১৩টি উপায়

ভ্রমণ

অনেককেই দেখা যায় ভ্রমণ বা বেড়ানোর পর ফিরে এসে অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ এর কারণ নিয়ে কি কেউ খুব বেশি মাথা ঘামায়? জায়গা, পরিবেশ, খাবার সবই তো ছিল ভিন্ন৷ বিশেষ করে দূরে কোথাও গেলে তা এ কথা বেশ ভালোভাবেই টের পাওয়া যায়৷ কাজেই বেড়াতে গেলে ছোট থেকে বড় সবারই বিশেষভাবে সতর্ক থাকা উচিত৷

বিজ্ঞান পরিবেশ | 22.04.2014

নতুন অ্যান্টিবায়োটিক শুধু আবিষ্কার করলেই চলবে না – সবচেয়ে বড় কথা, এই নতুন অ্যান্টিবায়োটিক সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহার না করে, ‘আপৎকালীন অবস্থার' জন্য রেখে দিতে হবে৷ অর্থাৎ অন্য কোনো অ্যান্টিবায়োটিক যখন কাজ করছে না, তখন এই আনকোরা নতুন অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগ করা হবে৷ এক্ষেত্রে সমস্যা এই যে, ভেষজ কোম্পানিগুলি যদি এই নতুন অ্যান্টিবায়োটিক বাজারে ছাড়তে না পারে, বিক্রি না করতে পারে, তাহলে তারা সেই অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি করতে যাবে কেন?

কাজেই ও'নিল ও তাঁর সতীর্থদের রিপোর্টের একটি মূল প্রস্তাব হল, অ্যান্টিবায়োটিক্স সংক্রান্ত প্রাথমিক গবেষণার জন্য একটি দুই বিলিয়ন ডলারের ‘গ্লোবাল ইনোভেশন ফান্ড' সৃষ্টি করা হোক৷ এছাড়া ভেষজ কোম্পানিগুলিকে তাদের আবিষ্কৃত প্রতিটি নতুন অ্যান্টিবায়োটিকের জন্য এক বিলিয়ন ডলার দেওয়া হবে৷ টাকার অঙ্কগুলো বেশি শোনালে মনে রাখতে হবে, রিপোর্টই বলেছে যে, ২০৫০ সালের মধ্যে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী জীবাণুর কারণে বিশ্বের অর্থনৈতিক ক্ষতি দাঁড়াবে বছরে ১০০,০০০,০০০,০০০,০০০ ডলার৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

বিজ্ঞান পরিবেশ | 02.10.2013

২০৫০ সাল থেকে বছরে এক কোটি মানুষ প্রাণ হারাবে সুপারবাগ ইনফেকশনে – বিশ্বাস করেন?

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

মোবাইল ফোন ও ট্যাবলেট

ব্রিটিশ ওয়াচডগ ‘হুইচ?’ ২০১৩ সালে ৩০টি ট্যাবলেট, ৩০টি মোবাইল ফোন এবং ৩০টি টয়লেট সিট পরীক্ষা করে দেখেছে, ট্যাবলেট আর মোবাইল ফোনে টয়লেট সিটের তুলনায় অনেক বেশি জীবাণু পাওয়া গেছে৷ ট্যাবলেটে পাওয়া ব্যাকটেরিয়ার পরিমাণ ছিল ৬০০ ইউনিট আর মোবাইল ফোনে ১৪০ ইউনিট৷ অন্যদিকে, টয়লেট সিটে ২০ ইউনিটেরও কম ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গেছে৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

পানির কল

বাথরুমে থাকা পানির কলে টয়লেট সিটের তুলনায় ২১ গুণ বেশি ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গেছে৷ আর রান্নাঘরের পানির কলেতো সেই সংখ্যা আরও বেশি, প্রায় ৪৪ গুণ! সুতরাং সবসময় বেসিন পরিষ্কার রাখুন, প্রয়োজনে জীবাণুনাশক ব্যবহার করুন৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

হাতব্যাগ

ব্রিটিশ কোম্পানি ‘ইনিশিয়াল ওয়াশরুম হাইজিন’-এর গবেষণায় দেখা গেছে নারীদের ব্যবহৃত হাতব্যাগ নাকি টয়লেট সিটের চেয়েও বেশি ব্যাকটেরিয়া থাকে! গড়পড়তা একটি ব্যাগে টয়লেট সিটের চেয়ে তিনগুণ বেশি ব্যাকটেরিয়া থাকে৷ আর যে ব্যাগ নিয়মিত ব্যবহার করা হয় সেখানে ব্যাকটেরিয়ার পরিমাণ প্রায় ১০ গুণ বেশি থাকে৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

লিফটের বোতাম

ক্যানাডার টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় লিফটের বোতামে টয়লেট সিটের চেয়েও বেশি ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গেছে৷ সৌদি আরবে করা আরেক গবেষণায়ও একই ফল পাওয়া গেছে৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

কম্পিউটার গেমস কন্ট্রোলার

ইউনিসেফ ও ডোমেসটস-এর উদ্যোগে পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, কম্পিউটার গেমস কন্ট্রোলারে টয়লেট সিটের তুলনায় পাঁচগুণ বেশি ব্যাকটেরিয়া থাকতে পারে৷ টয়লেট সিটের প্রতি ১০০ বর্গসেন্টিমিটারে যেখানে গড়ে প্রায় ১,৬০০ জীবাণু থাকে, কন্ট্রোলারে সেই সংখ্যাটা প্রায় ৭,৮৬৩৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

রেফ্রিজারেটর

ইউনিসেফের গবেষণায় বাসার ফ্রিজেও টয়লেট সিটের তুলনায় প্রায় পাঁচগুণ বেশি জীবাণু পাওয়া গেছে৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

সোফার হাতল

বাসার সোফাটি নিয়মিত পরিষ্কার করা প্রয়োজন৷ কেননা সোফার হাতলে টয়লেট সিটের চেয়ে প্রায় ১২ গুণ বেশি জীবাণুর সন্ধান পেয়েছেন গবেষকরা৷

যেগুলো ‘টয়লেট সিট’-এর চেয়েও নোংরা

বাচ্চাদের খেলনা

বাচ্চাদের খেলনা অবশ্য রেফ্রিজারেটর আর গেমস কন্ট্রোলারের চেয়ে পরিষ্কার৷ তারপরও সেখানে টয়লেট সিটের চেয়ে দ্বিগুণ বেশি জীবাণু শনাক্ত করেছেন গবেষকরা৷

আরো প্রতিবেদন...

আমাদের অনুসরণ করুন