হুয়াওয়ের ফোনে বন্ধ হচ্ছে অ্যান্ড্রয়েড

হুয়াওয়ের ম্মার্টফোনে গুগলের বিভিন্ন জনপ্রিয় অ্যাপসগুলো আর ব্যবহার করা যাবে না৷ পাওয়া যাবে না অ্যান্ড্রয়েডের লাইসেন্স সংস্করণও৷ তবে পুরাতন হ্যান্ডসেটে অ্যাপস ও অপারেটিং সিস্টেম আগের মতো চালু থাকবে৷  

হুয়াওয়ের মোবাইল ফোনে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারের লাইসেন্স বাতিল করেছে গুগল৷ এর ফলে চীনা প্রতিষ্ঠানটিকে অ্যান্ড্রয়েডের সেবা নিতে ওপেন সোর্স বা উন্মুক্ত সফটওয়্যারের উপর নির্ভর করতে হবে৷ রোববার গুগল এক ঘোষণায় হুয়াওয়ের অ্যান্ড্রয়েড লাইসেন্স বাতিলের এই ঘোষণা দিয়েছে৷

গত সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একটি নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে হুয়াওয়েকে যুক্তরাষ্ট্রে কালো তালিকাভুক্ত করেছেন৷ জাতীয় নিরাপত্তা ঝুঁকির কারণে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের যন্ত্রপাতি ব্যবহার থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে এতে৷ সেই সঙ্গে চীনের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি যুক্তরাষ্ট্রে এখন থেকে আর কোনো ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালাতে পারবে না৷ এর প্রেক্ষিতেই গুগল হুয়াওয়ের সাথে তাদের সফটওয়্যার লাইসেন্স বাতিলের ঘোষণা দিলো৷ সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে গুগলের একজন মুখপাত্রও নিশ্চিত করেছেন৷

কী প্রভাব পড়বে

বর্তমানে বিক্রির দিক থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ হ্যান্ডসেট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে৷ দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়ের পরেই তাদের অবস্থান৷ মোবাইলের পাশাপাশি টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রযুক্তির বাজারেও হয়াওয়ের অবস্থান শক্তিশালী৷ তবে প্রতিষ্ঠানটি তাদের বিভিন্ন ডিভাইসে চীনের গোয়েন্দা সংস্থার কাছে তথ্য সরবরাহের জন্য গোপন সফটওয়্যার ব্যবহার করছে বলে দাবি করে আসছে ট্রাম্প সরকার, যা বরাবরই অস্বীকার করেছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷

যুক্তরাষ্ট্রের এই চাপে হুয়াওয়ের বড় ধরনের কোনো ক্ষতি হবে না বলে মনে করেন এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী রেন ঝেংফেই৷  এজন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি৷ জাপানের বাণিজ্য বিষয়ক দৈনিক দ্য নিক্কেইকে তিনি বলেন, ‘‘আমরা এমন কিছু করিনি, যার মাধ্যমে আইনের বরখেলাপ হয়৷ এটা প্রত্যাশিত যে, এর ফলে হুয়াওয়ের প্রবৃদ্ধির গতি কিছুটা ধীর হয়ে যাবে৷ কিন্তু সেটা খুবই সামান্য৷''

চীন ও এশিয়ার বাইরে গত কয়েক বছরে হয়াওয়ে ইউরোপের স্মার্টফোনের বাজার ধরার চেষ্টা করছে৷ বিভিন্ন ফ্ল্যাগশিপ ফোন দিয়ে ধীরে ধীরে তারা ভালো একটি অবস্থানও করে নিচ্ছিলো৷ অ্যান্ড্রয়েডের লাইসেন্স বাতিল হওয়ার কারণে সেখানে তার বাজার বাধাগ্রস্থ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে৷

স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত, সমাধান খুঁজছেন?

‘মাল্টিটাস্কিং’ শুধু কথার কথা

জার্মানিতে টেলিভিশন দেখার সময় শতকরা ৮৫ জনই নাকি স্মার্টর্ফোন, ট্যাবলেট বা আইপ্যাড পাশে রাখেন৷ ‘‘আসলে যে কোনো মানুষ শুধু একটি বিষয়েই পুরোপুরি মনোযোগ দিতে পারে৷ মানে ‘মাল্টিটাস্কিং’ শুধু কথার কথা৷’’ জানান জার্মান মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. একার্ট ভন হির্শহাউজেন৷

স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত, সমাধান খুঁজছেন?

স্মার্টফোনের নেশা কতটা ভয়ংকর?

যাঁরা মোবাইল দেখতে দেখতে রাস্তায় হাঁটেন, তাঁদের দূর্ঘটনা ঘটার আশংকা অনেক বেশি৷ তাই তো জার্মানির কোলন শহরের বেশ কিছু রাস্তায় উজ্জ্বল সব লাইট বসানো হয়েছে, শুধুমাত্র মাথা নীচু করে হাঁটা স্মার্টফোনে অ্যাডিক্ট তরুণ প্রজন্মের জন্য৷

স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত, সমাধান খুঁজছেন?

হাত থেকে ফোন নামিয়ে রাখতে এত কষ্ট কেন?

মানুষ সামাজিক জীব, তাই কিছু মিস করা বা হারিয়ে যাওয়ার ভয় থেকেই এমনটা হয়ত হয়ে থাকে৷ জার্মানিতে ১৬-১৭ বছরের মেয়েরা দিনে প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা ‘হোয়াটসঅ্যাপ’ বা বিভিন্ন ‘অ্যাপ’ নিয়ে ব্যস্ত থাকেন৷ সমীক্ষা বলছে, মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা একটু কম তাকিয়ে থাকে স্মার্টফোনের দিকে!

স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত, সমাধান খুঁজছেন?

স্ক্রিন টাচ বা মোবাইলের তথ্য অনেকটা চিপস খাওয়ার মতো

স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা দিনে ৫০০০ বার স্মার্টফোনের স্ক্রিন টাচ করেন, জানান ডা. একার্ট ভন হির্শহাউজেন৷ তিনি বলেন, ‘‘সকলেই জানেন চিপস স্বাস্থ্যকর খাবার নয়, তা সত্ত্বেও একবার খাওয়া শুরু করলে থামানো যায় না৷ স্ক্রিনের তথ্যগুলোও তেমনি মস্তিষ্কের জন্য চিপসের মতো, যা নিয়মিত দেখলে যে কেউ অসুস্থ হতে পারেন৷’’

স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত, সমাধান খুঁজছেন?

নেশা বোঝা যায় কী উপায়ে?

প্রথমেই ঠিক করে নিতে হবে যে কতক্ষণ নিজেকে সময় দেবেন এবং কতটা সময় পরিবারের জন্য বরাদ্দ করবেন৷ অর্থাৎ সে সময়টুকু মোবাইলটি দূরে রাখতে হবে৷ স্মার্টফোন ‘অফ’ করার পর যাঁদের নার্ভাসনেস, মাথা ব্যথা কিংবা চিন্তাগুলো এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে বলে মনে হয়, তাঁদের বুঝতে হবে যে তাঁরা স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত৷

স্মার্টফোনের নেশায় আসক্ত, সমাধান খুঁজছেন?

চিন্তা এবং অনুভূতি বাঁধাগ্রস্ত হয়

কারো সাথে সরাসরি আলাপ করার সময় স্মার্টফোন শুধু বন্ধই নয়, চোখের আড়াল করে রাখুন৷ ফোনটি সর্বক্ষণ টেবিলের ওপর থাকলে স্বাভাবিকভাবেই সেদিকে চোখ চলে যায়৷ তখন যে শুধু আলাপের গভিরতা হারিয়ে যায়, তা নয়, মানুষের চিন্তাকেও অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয় মুঠোফোন৷ তাই সাবধান!

তবে এই সিদ্ধান্তে ব্যবসায়িক ক্ষতিতে শুধু যে হুয়াওয়ে পড়বে তা নয়, ক্ষতিগ্রস্থ  হবে যুক্তরাষ্ট্রের কিছু প্রতিষ্ঠানও৷ ফাইভ জি প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন অবকাঠামো ও ডিভাইস তৈরিতে প্রতি বছর বিশ্ব বাজার থেকে ৬৭০০ কোটি ডলারের যন্ত্রাংশ সংগ্রহ করে হুয়াওয়ে৷ তার  ১১০০ কোটি ডলারই কেনা হয় যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে৷ নতুন আদেশের ফলে তাদের জন্য এই বড় অঙ্কের ব্যবসাও বন্ধ হয়ে যাবে৷ 

হুয়াওয়ের ফোনে যা আর ব্যবহার করা যাবে না

অ্যান্ড্রয়েডের লাইসেন্স বাতিল হওয়ায় সামনের দিনে বাজারে আসতে যাওয়া হুয়াওয়ের স্মার্টফোনেজি-মেল, গুগল ম্যাপ, প্লে স্টোর এবং ইউটিউবের মতো জনপ্রিয় অ্যাপসগুলো আর ব্যবহার করা যাবে না৷ সেই সঙ্গে পাওয়া যাবে না নিরাপত্তা আপডেটও৷

তবে এজন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নেয়া আছে বলে দাবি করেছে হুয়াওয়ে৷ গত কয়েক বছর ধরেই তারা অ্যান্ড্রয়েডের বিকল্প সফটওয়্যার নিয়ে কাজ করছে বলে রয়টার্সকে জানিয়েছে এর রোটেটিং চেয়ারম্যান এরিক ঝু৷ পাশাপাশি গুগল হুয়াওয়ের জন্য অ্যান্ড্রয়েডের ওপেন সোর্স সফটওয়্যার বন্ধ করতে পারবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি৷

গুগলের মুখপাত্র অবশ্য জানিয়েছেন, হুয়াওয়ের বিদ্যমান ডিভাইসগুলোতে আগের মতোই অ্যান্ড্রয়েড সেবা মিলবে৷ প্লে স্টোরের মাধ্যমে ডাউনলোড করা অ্যাপসগুলো তারা ব্যবহার করতে পারবেন এবং আপডেটও পাবেন৷ তবে অপারেটিং সিস্টেমের আপডেট যেহেতু হ্যান্ডসেট নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সরবরাহ করে থাকে, সেটি আর ব্যবহারকারীরা না-ও পেতে পারেন বলে জানিয়েছেন এই মুখপাত্র৷

এফএস/এসিবি (রয়টার্স, এপি, এএফপি)

আরো প্রতিবেদন...

10 ছবি
মিডিয়া সেন্টার | 6 ঘণ্টা আগে

বনে গরম বাড়ছে, বাড়ছে আনন্দ

সমাজ সংস্কৃতি | 9 ঘণ্টা আগে

শেষবেলার পরাজয় থেকে কি এবার মুক্তি?

10 ছবি
সমাজ সংস্কৃতি | 9 ঘণ্টা আগে

উৎসবমুখর বাভারিয়া

আমাদের অনুসরণ করুন