মুসলিমদের ওপর হামলার কারণে শ্রীলঙ্কায় ৮০ জন গ্রেপ্তার

সোমবার মুসলমানদের মসজিদ ও দোকানপাটে সহিংস হামলা হয়েছিল৷ তবে শ্রীলঙ্কার সামরিক বাহিনীর এক মুখপাত্র জানান, পরিস্থিতি এখন ‘পুরো নিয়ন্ত্রণে'৷ মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ৮০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

২১ এপ্রিল তিনটি গির্জা ও তিনটি অভিজাত হোটেলে হামলার পর শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়৷ এর মধ্যে সোমবার উত্তর-পশ্চিমের বিঙ্গিরিয়া এলাকায় প্রায় দুই হাজার দাঙ্গাকারী মুসলমানদের মসজিদ ও দোকানপাটে হামলা চালায়৷ এই ঘটনায় একজন  প্রাণ হারান৷

ঘটনার পর মুসলমানদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে৷ ঐ এলাকার মুসলিম নেতা এমআইএম সিদ্দিক এএফপিকে জানিয়েছেন, ‘‘আমাদের মানুষরা এখনো বাইরে যেতে ভয় পাচ্ছেন৷''

তবে পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে জানিয়ে বুধবার সামরিক মুখপাত্র সুমিথ আতাপাত্তু বলেন, ‘‘গতরাতে কোথাও কোনো সহিংস ঘটনা ঘটেনি৷ এছাড়া আমরা সোমবারের হামলার সঙ্গে জড়িতদের আটক করছি৷''

এদিকে, পুলিশের মুখপাত্র রুয়ান গুনাসেকেরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ৮০ জনের বেশি জনকে আটক করা হয়েছে৷ তাদের জরুরি আইনের আওতায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ ফলে অভিযুক্ত হলে তাদের সর্বোচ্চ দশ বছরের জেল হতে পারে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

ভয়াবহ ইস্টার সানডে

খ্রিষ্টানদের অন্যতম পবিত্র দিন ইস্টার সানডে৷ এমন দিনেই কলম্বো, নেগোম্বো ও বাট্টিকালোয়া শহরের বেশ কয়েকটি গির্জা ও হোটেলে ঘটে সিরিজ বোমা হামলা৷ শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এই হামলায় নিহতের সংখ্যা ২৯০, আহত হয়েছেন ৫০০ জনেরও বেশি৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

কোথায় হামলা

বোমা হামলার শিকার গির্জাগুলির মধ্যে রয়েছে উত্তর কলম্বোর সেইন্ট অ্যান্থনি'স শ্রাইন, নেগোম্বো শহরের পাশে সেইন্ট সেবাস্টিয়ান চার্চ ও পূর্বে বাট্টিকালোয়া শহরের জিয়ন চার্চ৷ এছাড়া তিনটি ফাইভ স্টার হোটেল সিনামন গ্রান্ড, কিংসবুরি ও দ্য সাংরিলাতেরও হামলা হয়৷ তিনটিই রাজধানী কলম্বোর কেন্দ্রে অবস্থিত৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

শ্রীলঙ্কায় খ্রিষ্টান যারা...

পঞ্চদশ শতাব্দীতে পর্তুগিজ পাদ্রীদের আগমনের পর থেকে শ্রীলঙ্কায় বাড়তে থাকে খ্রিষ্টান জনসংখ্যা৷ বর্তমানে, দেশটির জনসংখ্যার ৭ শতাংশ মানুষ খ্রিষ্টধর্মের অনুসারী৷ এর মধ্যে রয়েছেন রোমান ক্যাথলিক, মেথডিস্ট ও প্রটেস্টান্ট ধারার মানুষ৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

বিদেশিরাও হামলার শিকার

সংবাদসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় ইতিমধ্যে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৩৫ জন বিদেশি নাগরিক৷ হামলার শিকার হোটেলগুলিতে ছিলেন তাঁরা৷ নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতা শেখ ফজলুল করিম সেলিমের আট বছর বয়সি নাতি জায়ান চৌধুরীও রয়েছে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

সহিংসতার ধারা

শ্রীলঙ্কায় মাত্র এক দশক আগেই থেমেছে গৃহযুদ্ধ৷তার আগে সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সিনহালিজ ও সংখ্যালঘু হিন্দু তামিলদের মধ্যে দীর্ঘদিন চলে সশস্ত্র লড়াই৷বিগত দশকে গৃহযুদ্ধ থামার পর রবিবারের এ হামলাই সাম্প্রতিক কালে শ্রীলঙ্কায় সবচেয়ে ভয়াবহ সহিংসতার ঘটনা৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

হামলার পেছনে কারা?

শ্রীলঙ্কার সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, এই হামলার পেছনে রয়েছে স্থানীয় ইসলামী সংগঠন ন্যাশনাল তৌফিক জামাত৷ দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজিথা সেনারত্নে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, ৭ আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীই শ্রীলঙ্কার নাগরিক এবং তারা তৌফিক জামাতের সাথে জড়িত৷ হামলার পেছনে বিদেশি শক্তির হাত থাকার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেননি তিনি৷হামলায় জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত ২৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

বর্তমান পরিস্থিতি

রবিবার হামলার পর দেশজুড়ে কার্ফু জারি করেছিল শ্রীলঙ্কা সরকার৷ তবে সোমবার সকালে কার্ফু তুলে নেওয়া হয়৷ সোমবার রাত থেকে জরুরি অবস্থা জারি হতে পারে৷ ওপরের ছবিতে বিস্ফোরণের পর বিধ্বস্ত এক গির্জার পাশে স্থানীয় যাজকদের দেখা যাচ্ছে৷

শ্রীলঙ্কায় এই হামলা কি এড়ানো যেতো ?

এ হামলা কি এড়ানো যেতো?

শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনারত্নে জানিয়েছেন, পুলিশের কাছে এমন হামলার আশঙ্কার আগাম তথ্য থাকা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরকে তা জানানো হয়নি৷ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে এখনো এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য না এলেও প্রশ্ন উঠেছে – সত্যিই কি পুলিশ এমন তথ্য আগে পেয়েছিল? তাহলে আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিলে এই ভয়াবহ হামলা তো কিছুটা হলেও এড়ানো যেতো!

সংসদের স্পিকার কারু জয়সুরিয়া মুসলমানদের উপর হামলার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন এবং সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন৷

এদিকে, সহিংসতা উসকে দিতে পারে এমন বার্তার প্রসার ঠেকাতে ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইউটিউব ও ইন্সটাগ্রাম আগেই ব্লক করেছিল সরকার৷ মঙ্গলবার এ তালিকায় টুইটারও যুক্ত করা হয়েছে৷

তবে সরকারের এসব উদ্যোগ সত্ত্বেও মুসলমানরা আতঙ্কে ভুগছেন৷ বুধবারও তাঁরা ঘরে থাকাকেই শ্রেয় মনে করছেন৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি)

আমাদের অনুসরণ করুন