জম্মু-কাশ্মীরের ‘বিশেষ মর্যাদা’ প্রত্যাহারের দাবি, চলছে বিতর্ক

বিজয়া দশমীর ভাষণে মৌলবাদী হিন্দু সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ আরএসএসের প্রধান জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের ‘বিশেষ মর্যাদা’ রদ করতে সংবিধান সংশোধনের দাবি জানিয়েছেন৷ এ নিয়ে চলছে রাজনৈতিক বিতর্ক৷

বিজয়া দশমী উপলক্ষ্যে বিজেপির তাত্ত্বিক সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের প্রধান মোহন ভাগবত মোদী সরকারের তিন বছরের কাজের মূল্যায়নের পাশাপাশি দু-একটি স্পর্শকাতর ইস্যু তুলে নতুন করে বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন৷ তিনি বলেছেন, অবশিষ্ট ভারতের সঙ্গে জম্মু-কাশ্মীরের পূর্ণ সংহতির জন্য অবিলম্বে সংবিধানে প্রয়োজনীয় সংশোধন জরুরি৷ সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদে জম্মু-কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেওয়া হয়েছে আর সংবিধানের ৩৫(এ) অনুচ্ছেদে রাজ্যের স্থায়ী নাগরিকদের বিশেষ সুবিধা দেবার কথা বলা হয়েছে৷ এসব সংস্থান রদ করে জম্মু-কাশ্মীরকে ভারতের বাকি অংশের মতো একই সুযোগ-সুবিধা দেবার জন্য মোদী সরকারের ওপর চাপ বাড়াচ্ছে সংঘ-পরিবার৷ মোহন ভাগবতের মতে, এটা করতে পারলেই জম্মু-কাশ্মীরের মানুষ ভারতের বাকি অংশের সঙ্গে মিলে- মিশে যাবে সহজেই৷ আরএসএস প্রধানের কথায়, ১৯৪৭ সালে পাক-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর থেকে চলে আসা উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব সমস্যা যেমন রয়েছে, তেমনি ৯০-এর দশকে বাধ্য হয়ে কাশ্মীর উপত্যকা থেকে চলে আসা কাশ্মীরি পণ্ডিতদের সমস্যাও রয়েছে৷ তাঁদের পুনর্বাসনের কাজ এখনো অসম্পূর্ণ৷ রাজ্যের তিনটি অ়ঞ্চল জম্মু, কাশ্মীর ও লাদাখের জন্য একই মাপের উন্নয়ন৷ রোহিঙ্গা ইস্যুতে সংঘ পরিবার মোদী সরকারের সঙ্গে গলা মিলিয়ে রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসবাদী তকমা দিয়েছে৷ আরএসএস মনে করে, রোহিঙ্গারা ভারতের নিরাপত্তার জন্য বিপদের কারণ৷ কাজেই তাঁদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো দরকার৷ মানবিকতার খাতিরে দেশের মানুষের বিপদ ডেকে আনা কাজের কথা নয়৷

সমাজ-সংস্কৃতি

আম্বানির রাজত্ব

বিখ্যাত শিল্পপতি ধীরুভাই আম্বানি যে সাম্রাজ্য গড়ে গিয়েছিলেন, উত্তরাধিকারসূত্রে তার সম্রাট বনেছেন মুকেশ এবং অনীল আম্বানি৷ বাবার রাজ্য বেশ ভালোভাবেই সামলাচ্ছেন তাঁরা৷ কোনো কোনো ক্ষেত্রে এগিয়েও নিচ্ছেন বহুদূর৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বচ্চন, দ্য বচ্চন

অমিতাভ বচ্চন সম্পর্কে নতুন করে কাউকে কিছু বলার নেই৷ গত শতাব্দীর ৭০-এর দশক থেকে যে বচ্চন রাজত্ব শুরু হয় বলিউডে, এখনও তা টলাতে পারেনি কেউই৷ তাঁর নামের অংশীদার হয়েই বড় পর্দায় এসেছেন অভিষেক বচ্চন৷ অনেকেই মনে করেন, অমিতাভের ছেলে না হলে বর্তমান অবস্থানে আসা কঠিনই হতো জুনিয়র বচ্চনের৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ছোট দেওল, বড় দেওল

বলিউডের আরেক শীর্ষ অভিনেতা ধর্মেন্দ্র৷ জনপ্রিয় এই অভিনেতার বংশধরেরা অন্তত কিছু সময়ের জন্য হলেও নাম কামিয়েছেন ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে৷ সানি দেওল ও ববি দেওলের কিছু ছবি হিট হলেও তুখোড় অভিনয়শিল্পীদের সাথে প্রতিযোগিতায় বেশ পিছিয়েই পড়েন তাঁরা৷ চলচ্চিত্রে অভিনেত্রী হিসেবে নাম কামিয়েছেন ধর্মেন্দ্রর মেয়ে ইশা দেওলও৷

সমাজ-সংস্কৃতি

কাপুর খানদান

কাপুরদের রাজত্বের ইতিহাস অন্য অনেকের চেয়ে বেশ লম্বা৷ ব্রিটিশ শাসনামলে যখন নির্বাক চলচ্চিত্রের যুগ ছিল, তখন হিন্দি সিনেমার পথিকৃৎদের একজন ছিলেন পৃথ্বিরাজ কাপুর৷ চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য পদ্মভূষণ দেয়া হয় তাঁকে৷ তাঁকে দিয়েই শুরু কাপুর বংশের চার প্রজন্মের রাজত্ব৷ রাজকাপুর, তাঁর ছেলে ঋষি কাপুর এবং সর্বশেষ এখন রণবীর কাপুর আনন্দ দিয়ে চলেছেন বলিউড ভক্তদের৷

সমাজ-সংস্কৃতি

প্রযোজনা, পরিচালনা, অভিনয়

বাবা মহেশ ভাট বিখ্যাত চলচ্চিত্র প্রযোজক এবং পরিচালক৷ কিন্তু মেয়ে আলিয়া ভাট সেদিকে না গিয়ে সোজা অভিনয়ে৷ শুধু নাম নয়, মেধাতেও যে বাপের চেয়ে কোন অংশে কম না, তা এখনও প্রমাণ করে চলেছেন আলিয়া ভাট৷

সমাজ-সংস্কৃতি

গান্ধী বংশ

ভারতের রাজনীতি, নেহেরুর গড়ে যাওয়া রাজত্ব এবং কংগ্রেস দায়িত্ব এখন রাহুল গান্ধীর কাঁধে৷ কংগ্রেস পরবর্তীতে রাষ্ট্রক্ষমতায় আসলে রাহুলই হতে পারেন প্রধানমন্ত্রী৷

সমাজ-সংস্কৃতি

উত্তর প্রদেশের যাদব

মুলায়েম সিং যাদবের ‘বংশের সুনাম রক্ষা’ করছেন অখিলেশ যাদব৷ সভাপতি হিসেবে বাবার সমাজবাদী দলের হাল তো ধরেছেনই, বাবার মতো হয়েছেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীও৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বিহারের যাদব

বিহার প্রদেশের আরেক যাদব, রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবের ছোট ছেলে তেজস্বী যাদব৷ জোট সরকারের সময় উপমুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন তিনি৷

সমাজ-সংস্কৃতি

কাশ্মিরের মুফতি

জম্মু ও কাশ্মীরের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি৷ সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মুফতি মোহাম্মদ সাঈদের মেয়ে মেহবুবা৷ রাজ্যটিতে তিনিই প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী৷ সমর্থকরা তাঁকে সম্মান করে ‘বাজি’ বলে ডাকেন, উর্দুতে যার অর্থ ‘বড় বোন’৷

সমাজ-সংস্কৃতি

জম্মুর আবদুল্লাহ

জম্মু ও কাশ্মীরের আরেক নেতা ফারুক আবদুল্লাহর ছেলে ওমর আব্দুল্লাহ৷ তিনিও বাবার কাছ থেকে শুধু রাজনীতিই নয়, পেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর পদও৷

সমাজ-সংস্কৃতি

আল্লা রাখার উত্তরাধিকার

শুধু উপমহাদেশ নয়, তবলায় জাদু দেখিয়ে পুরো বিশ্বকেই তাক লাগিয়েছিলেন আল্লা রাখা৷ তাঁর সন্তান ওস্তাদ জাকির হোসেন ধরে রেখেছেন সেই বংশপরম্পরা, ছড়িয়ে যাচ্ছেন তবলার ম্যাজিক৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বাপ কা বেটি

উপমহাদেশের আরেক গর্ব পণ্ডিত রবিশংকর৷ এই সিতার মায়েস্ত্রোর যোগ্য কন্যা আনুশকা শংকর৷ বিশ্বের নামকরা সিতারবাদকদের মধ্যে অন্যতম স্থান দখলে নিয়েছেন আনুশকা৷

সমাজ-সংস্কৃতি

গীতা ফোগাট

আমির খানের চলচ্চিত্র দঙ্গল-এর সৌজন্যে মোটামোটি সবাই এখন জানেন গীতা ফোগাটের নাম৷ বিখ্যাত কুস্তিগীর মহাবীর ফোগাটের মেয়ে গীতা ভারতের হয়ে প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় কুস্তিতে স্বর্ণপদক পাওয়া নারী৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বিচারক চন্দ্রচূড়

ওয়াই ভি চন্দ্রচূড় ছিলেন ভারতে প্রখ্যাত প্রধান বিচারপতি৷ তাঁর ছেলে ধনঞ্জয় চন্দ্রচূড়ও আইনজ্ঞ হিসেবে ধরে রেখেছেন সুনাম৷ ধনঞ্জয়ও এখন ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি৷

জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদ করার বিষয়ে আরএসএসের নীতি অবস্থানের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে রাজ্যের বিরোধী দল ন্যাশনাল কনফারেন্স৷ তাদের মতে, বিজেপি রাজ্যের শাসকদল পিডিপির জোটসঙ্গী হওয়ায় মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি এখনও চুপচাপ আছেন৷ ন্যাশনাল কনফারেন্সের রাজ্য মুখপাত্র জুনেদ আজিম মাট্টু তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদাই বাকি ভারতের সঙ্গে একমাত্র সাংবিধানিক সেতুবন্ধ৷ আরএসএস প্রধানের উচিত হবে দেশের আর্থিক মন্থরতার সময় জনগণকে বিভ্রান্ত না করা এবং জনগণের আবেগে সুড়সুড়ি না দেওয়া৷ রাজ্যে যখন পিডিপি-বিজেপি জোট সরকার গঠন করা হয়, তখন পরিষ্কার সমঝোতা হয়েছিল যে, সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫(এ) অনুচ্ছেদে হাত লাগানো হবে না৷ এখন সেই পিডিপি মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির এই আত্মসমর্পণ বিশেষ উদ্বেগের কারণ৷ রাজ্যকে এভাবে বিজেপির হাতে বিকিয়ে দেওয়ার পরিণাম হবে মারাত্মক এবং সুদূরপ্রসারী৷ জুনেদ আজিম মাট্টুর মতে, মেহবুবা মুফতির উচিত এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো৷ জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা আলোচনাযোগ্য নয়৷

বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক অমূল্য গাঙ্গুলি ডয়চে ভেলেকে বললেন, জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদ করতে সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫(এ) ধারা পরিবর্তনের দাবি বিজেপি-আরএসএসের পুরানো অ্যাজেন্ডা৷ এখন তো আএসএস আরো আগ্রাসী হতে চায়, কারণ, বিজেপি এখন বেকায়দায়৷ অর্থনৈতিক সংকটের সন্মুখীন৷ তাই আরএসএসের ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের হালের কয়েকটি নির্বাচনে বেহাল অবস্থা৷

অডিও শুনুন 02:32
এখন লাইভ
02:32 মিনিট
বিষয় | 03.10.2017

‘আরএসএস পরিবারের একটাই অ্যাজেন্ডা, কিভাবে সাম্প্রদায়িক উত্তাপ...

এখন আরএসএস বা সংঘ পরিবারের একটাই অ্যাজেন্ডা, কিভাবে সাম্প্রদায়িক উত্তাপ ছড়ানো যায়, যেটা ওদের মূল নীতির ভিত্তি৷ কথা হচ্ছে, সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের চেষ্টা করলে রাজ্যে বিজেপি-পিডিপি জোট সরকার ভেঙে যাবে৷ বিজেপি অবশ্যই বিশেষ করে নির্বাচনের মুখে এই রকম একটা ঝটকা লাগুক সেটা চাইবে না৷ কাজেই এই অ্যাজেন্ডা থেকে যাবে অ্যাজেন্ডাতেই৷ কার্যকর হবে না৷ এটা শুধু উত্তেজনা বাড়ানোর জন্য আরএসএসের কৌশলমাত্র৷ সমর্থনের মূল ভিত্তি ধরে রাখতে মুসলিমবিরোধিতা করাই তাদের উদ্দেশ্য৷ যেমন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিজেপির সঙ্গে একই মেরুতে দাঁড়িয়েছে সংঘপরিবার৷  রাজনৈতিক বিশ্লেষক অমূল্য গাঙ্গুলী ডয়চে ভেলেকে আরো বললেন, আরএসএস চায়, ইসরায়েলের ভূখন্ডে ফিলিস্তিনিদের বসতি স্থাপনের মতো কাশ্মীরে ঘরছাড়া হিন্দু পণ্ডিতদের জন্য অনরূপ একটা ব্যবস্থা৷ সেটা এখানে হবে না৷ কাশ্মিরী পণ্ডিতরাই সেটা চাইবে না৷ ঘরছাড়া কাশ্মিরী পণ্ডিতরা চাইবে আগের মতো স্থানীয় মুসলিমদের সঙ্গে মিলেমিশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকতে৷ আরএসএস চায় একটা আলাদা জায়গা৷ কাঁটাতারের বেড়া দেওয়া, পুলিশের পাহারা দেওয়া একটা আলাদা জায়গা৷ সেটা সম্ভব নয়৷