ওয়াশিংটন সফরে আদৌ কী পেলেন মোদী?

পরমাণু শক্তি থেকে প্রতিরক্ষা প্রযুক্তির ক্ষেত্রে কাঙ্ক্ষিত ছাড়পত্র, ভারত-মার্কিন কৌশলগত সম্পর্ক আরও দৃঢ় করার অঙ্গীকারের মতো সাফল্য সত্ত্বেও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর অ্যামেরিকা সফর নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠছে৷

মাত্র দু'বছরের মধ্যে ভারত-মার্কিন সম্পর্কের রসায়নকে নতুন মাত্রা দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী৷ বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা ছাড়াও দলমত নির্বিশেষে সার্বিকভাবে মার্কিন রাজনৈতিক শিবিরের সঙ্গে উষ্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলার কৃতিত্বও তাঁকে দিচ্ছেন অনেক বিশেষজ্ঞ৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত বাস্তবে ভারত এই ‘বিশেষ সম্পর্ক' থেকে কতটা লাভবান হবে?

দায়িত্বশীল পরমাণু শক্তিধর দেশ হিসেবে ভারতের স্বীকৃতি আরও জোরদার করতে জোরালো উদ্যোগ চালিয়ে যাচ্ছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রেও উচ্চ মানের প্রযুক্তি আমদানির পথ খুলে দিতে চান তিনি৷ এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশগুলির সমর্থন আদায় করতে মোদী নিজেই আসরে নেমেছেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত ভারত তার লক্ষ্য কতটা পূরণ করতে পারবে?

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা প্রকাশ্যে পরস্পরের প্রতি যে ব্যক্তিগত উষ্ণতা দেখিয়ে আসছেন, তা নিয়ে সংবাদ মাধ্যমের একাংশে প্রবল উচ্ছ্বাস দেখা যায়৷

উষ্ণ আলিঙ্গন, করমর্দন, হাসিমুখের আড়ালে ভারত-মার্কিন সম্পর্কের আসল রসায়ন নিয়ে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা৷

বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ায় ওয়াশিংটন নিজস্ব স্বার্থ বজায় রাখতে ভারতকে কতটা কাছে টানছে এবং পাকিস্তান ও চীনের সঙ্গে অ্যামেরিকার সম্পর্ক এ ক্ষেত্রে কতটা গুরুত্ব পাচ্ছে, সেই প্রশ্ন বার বার উঠে আসছে৷

প্রধানমন্ত্রী মোদী নিজে কোনো দেশের শীর্ষ নেতার সঙ্গে ব্যক্তিগত উষ্ণতার বিষয়টিকে ভারতের জন্য গৌরবের বিষয় হিসেবে তুলে ধরতে অভ্যস্ত৷ অনেক পর্যবেক্ষকের মতে, বিদেশি নেতারাও সহজে আলিঙ্গন বা সেলফি তোলার এমন ‘নাটক'-এর অংশ হয়ে পড়েন৷

মোদীর ব্যক্তিগত ‘স্টাইল' ও তাঁর চরিত্রের অনেক বৈশিষ্ট্য ভবিষ্যতের সম্ভাব্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যেও দেখা যায় বলে মনে করছেন কিছু পর্যবেক্ষক৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

সবচেয়ে ক্ষমতাবান পুটিন

যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসা-বাণিজ্য বিষয়ক ম্যাগাজিন ‘ফোর্বস’-এর তালিকাটা দেখে যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ মানুষই হয়তো হতাশ হবেন৷ এবারও যে ফোর্বসের তালিকায় মার্কিন প্রেসিডেন্টকে সবার ওপরে দেখা হলো না! গত দু বছরের মতো এবারও আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে ওবামাসহ সব বিশ্বনেতাকে ম্লান করার সুবাদে শীর্ষে রয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

দ্বিতীয় স্থানে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের নিয়ে ইউরোপ বেশ বেকায়দায়৷ জার্মানিও খানিকটা সংকটে৷ এই সংকটের জন্য চ্যান্সেলর ম্যার্কেলকেই দুষছেন তাঁর জোট সরকারের অনেক মিত্র এবং বিরোধীপক্ষ৷ তবে বিশ্ব রাজনীতিতে ম্যার্কেলের অবস্থান এখনো সুদৃঢ়৷ তাই ফোর্বসের তালিকায় গত বছর হয়েছিলেন পঞ্চম আর এবার এক লাফে বারাক ওবামাকেও ডিঙিয়ে দ্বিতীয় স্থানে৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

ওবামার অবনমন

২০১১ এবং ২০১২ সালে ফোর্বসের তালিকার শীর্ষে ছিলেন বারাক ওবামা৷ কিন্তু তারপর থেকে পুটিনই এক নম্বরে৷ নিজের জায়গাটি পুটিন এখনো ধরে রেখেছেন৷ কিন্তু ৫৪ বছর বয়সি ওবামা দ্বিতীয় স্থানও ম্যার্কেলের কাছে হারিয়ে এখন তৃতীয়৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

পোপের প্রভাবও কম নয়

বর্তমান বিশ্বে পোপ ফ্রান্সিসের প্রভাবও কম নয়৷ তাইতো ফোর্বসের সবচেয়ে ক্ষমতাশালীদের তালিকার চতুর্থ স্থানে শোভা পায় রোমান ক্যাথলিক চার্চের ধর্মগুরুর নাম৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

তারপর চীনের সর্বেসর্বা

কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক, দেশের প্রেসিডেন্ট এবং কেন্দ্রীয় সামরিক কমিশনের চেয়ারম্যান – চীনের সবচেয়ে শক্তিধর তিনটি পদই আলোকিত করে রেখেছেন শি জিনপিং৷ ৬২ বছর বয়সি এই কমিউনিস্ট নেতাকে ফোর্বস রেখেছে পঞ্চম স্থানে৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

বিল গেটস ষষ্ঠ

রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক প্রভাবে সবচেয়ে অগ্রসর মানুষদের এই তালিকার ষষ্ঠ স্থানে রয়েছেন বিল গেটস৷ যুক্তরাষ্ট্রের এই বিজনেস ম্যাগনেট এই স্বীকৃতিটুকু পেতেই পারেন৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

ক্ষমতাধর আরেক নারী

জ্যানেট ইয়েলেন আসলে অর্থনীতিবিদ৷ তবে এখন অন্য একটি পরিচয়ই বেশি পরিচিত৷ ৬৯ বছর বয়সি জ্যানেট এখন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেমের বোর্ড অফ গভর্নর্সের চেয়ারপার্সন৷ ফোর্বসের তালিকায় সপ্তম স্থানটি তাঁর৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

আছেন ক্যামেরন

ঔপনিবেশিক শাসনের দিন গত হয়েছে সেই কবে, ব্রিটেনের সেই দাপট আজ আর নেই৷ তবে নেই নেই করেও কিছু তো থাকে! ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের বিশ্বের অষ্টম ক্ষমতাধর হতে পারা হয়তো তারই প্রমাণ৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

মোদীর প্রভাব বাড়ছে

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ধীরে ধীরে নিজের প্রভাব বলয়কে বাড়িয়ে নিচ্ছেন৷ তাই হয়তো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দ্বিতীয় বছরেই ফোর্বসের তালিকার নবম স্থানে জায়গা করে নিতে পেরেছেন ৬৫ বছর বয়সি বিজেপি নেতা৷

সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ১০ জন মানুষ

বয়সে কম, ক্ষমতায় বেশি...

সেরা দশের শেষ স্থানটি পেলেও ল্যারি পেজ (ওপরের ছবিতে বাঁ দিকে) কিন্তু প্রথম নয় জনের চেয়ে আলাদা৷ বয়স মাত্র ৪২ বছর৷ এ বয়সেই বিশ্বের ক্ষমতাশালী ব্যক্তিদের প্রথম সারিতে স্থান করে নিয়েছেন কম্পিউটার বিজ্ঞানী এবং গুগলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এই মার্কিন নাগরিক৷

এসবি/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

আমাদের অনুসরণ করুন