মাস্টারকার্ডকে ৫৭০ মিলিয়ন ইউরো জরিমানা

ক্রেডিট কার্ড সেবাদানকারী  প্রতিষ্ঠান মাস্টারকার্ডকে গুণতে হচ্ছে বড় অঙ্কের জরিমানা৷ এই প্রতিষ্ঠানকে ৫৭০ মিলিয়ন, অর্থাৎ ৫৭ কোটি ইউরো জরিমানা করেছে ইউরোপী‌‌য় ইউনিয়ন৷ 

পণ্য ক্রয়ে ক্রেতা ও খুচরা বিক্রেতাদের (রিটেইলার) স্বল্পতর পেমেন্ট ফি'র সুবিধা আটকে রাখার পুরোনো নীতির জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠানটিকে এ জরিমানা করেছে৷ 

ইউরোপের বাজারে ২০১৫ সালের আগ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির পেমেন্ট ফি পলিসির কারণে কার্ড ব্যবহারে ক্রেতা, বিক্রেতাদের প্রয়োজনের তুলনায় চড়া ফি দিতে হয়েছে৷

ইউরোপিয়ান কমিশন বলেছে, মাস্টারকার্ডের কার্যক্রমে ইউরোপ ব্লকের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে৷ ২০১৫ সালের আগ পর্যন্ত মাস্টারকার্ডের নিয়ম অনুযায়ী, খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো সংশ্লিষ্ট দেশের ব্যাংক ফি'র হারে পেমেন্ট দিতে বাধ্য হয়েছে৷ স্বল্পতর হারের ব্যাংক ফি আছে, ইউরোপের এমন দেশগুলোতে লেনদেনের ক্ষেত্রেও সেখানকার হারের বদলে নিজ দেশে বিদ্যমান ব্যাংক রেট দিতে হয়েছে৷ 

ইইউ-র প্রতিযোগিতা বিষয়ক কমিশনার মারগ্রেথ ভেস্তাগার বলেন, "ইইউ সদস্যরাষ্ট্রগুলোর ব্যাংকগুলোর দেয়া স্বল্প রেটে কেনাকাটা করতে ক্রেতাদের  নিরুৎসাহিত করায় মাস্টারকার্ডের নীতি কৃত্তিমভাবে কার্ড পেমেন্টের খরচ বাড়িয়ে দিয়েছে৷ এতে ইউ'র ভোক্তা আর বিক্রেতারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন৷”

একজন ক্রেতা যখন একটি দোকানে  ক্রেডিট কার্ড দিয়ে পেমেন্ট করেন, তখন ওই দোকানের ব্যাংক কার্ডহোল্ডারের ব্যাংকে একটি ফি প্রদান করেন৷ প্রতিষ্ঠান তখন তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে তাদের ওই দোকানের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ফি পাঠিয়ে দেয়, যা শেষমেশ ক্রেতার খরচ বাড়িয়ে দেয়৷

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

পরিচয় চুরি

আজকাল অনলাইনে কেনাকাটা করছেন অনেকে৷ এরজন্য নাম, ঠিকানা, ই-মেল, ক্রেডিট কার্ডের তথ্য ইত্যাদি দিতে হয়৷ সমস্যাটা সেখানেই৷ যেসব ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভালো নয়, সেখানে এই তথ্যগুলো দিলে তা অপরাধীর কাছে চলে যাবার সম্ভাবনা থাকে৷ সেক্ষেত্রে অপরাধী আপনার তথ্য ব্যবহার করে আপনার ক্রেডিট কার্ড শূন্য করে দিতে পারে৷ কারণ আপনার যে পরিচয় চুরি হয়ে গেছে!

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

স্প্যাম ও ফিশিং

একদিন ই-মেল খুলে দেখলেন আপনি অনেক টাকার লটারি জিতেছেন৷ সেটা পেতে আপনাকে কিছু তথ্য দিতে বলা হচ্ছে৷ হঠাৎ করে বড়লোক হওয়ার লোভে আপনি সেই তথ্যগুলো দিয়েও দিলেন৷ ব্যস, যা হবার হয়ে গেছে৷ পরে দেখলেন টাকা পাওয়ার বদলে আপনার কাছে যা আছে সেটাও চলে যাচ্ছে! অর্থাৎ আপনি ফিশিং-এর শিকার হয়েছেন৷ আরও তথ্য এবং সতর্ক হওয়ার উপায় জানতে উপরের ‘+’ চিহ্নে ক্লিক করুন৷

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

ব়্যানসমওয়্যার

উন্নত বিশ্বে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে৷ অপরাধীরা ম্যালওয়্যার ঢুকিয়ে অন্যের কম্পিউটারের ফাইলগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়৷ তারপর ঐ কম্পিউটার ব্যবহারকারীকে বার্তা পাঠায় এই বলে যে, ফাইল ফেরত পেতে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিতে হবে৷ আরও তথ্য এবং সতর্ক হওয়ার উপায় জানতে উপরের ‘+’ চিহ্নে ক্লিক করুন৷

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

সাইবার মবিং বা সাইবারবুলিং

হয়ত মজা করার জন্য কিংবা ইচ্ছে করে একজনকে কষ্ট দিতে তার বন্ধুরা একজোট হয়ে হয়রানি করে থাকে৷ বাস্তবে স্কুল-কলেজে এমনটা হয়ে থাকে৷ আজকাল ইন্টারনেট সহজলভ্য হয়ে ওঠায় ভার্চুয়াল জগতে এমন ঘটনা ঘটছে৷ কিন্তু অনেক সময় বিষয়টি আর মজার পর্যায়ে না থেকে ভয়ানক হয়ে ওঠে৷ ফলে যাকে নিয়ে মজা করা হচ্ছে সে হয়ত এমন কিছু করে ফেলে যা কারও কাম্য থাকে না৷

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

ম্যালভার্টাইজিং

ধরুন আপনি কোনো ওয়েবসাইটে আছেন৷ সেখানে একটি বিজ্ঞাপন দেখে ক্লিক করলেন৷ ব্যস আপনার কম্পিউটারে একটি কোড ডাউনলোড হয়ে গেল৷ এটি কোনো নিরীহ কোড নয়৷ অপরাধীরা এর মাধ্যমে আপনাকে হয়রানির পরিকল্পনা করবে৷ সুতরাং...৷

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড স্কিমিং

রেস্টুরেন্ট, সুপারমার্কেটের বিল পরিশোধ, এটিএম থেকে টাকা তোলা, অর্থাৎ এমন কোথাও যেখানে আপনার ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ডকে যন্ত্রের মধ্যে ঢোকাতে হয় সেখান থেকেও তথ্য চুরি হতে পারে৷ এটাই কার্ড স্কিমিং৷ স্কিমার যন্ত্রের মাধ্যমে এই তথ্য চুরি করা হয় বলে এর এমন নামকরণ হয়েছে৷ আরও তথ্য এবং সতর্ক হওয়ার উপায় জানতে উপরের ‘+’ চিহ্নে ক্লিক করুন৷

সাইবার অপরাধের বিভিন্ন ধরণ

ফোন ফ্রড

অচেনা কোনো নম্বর থেকে (বিশেষ করে বিদেশ থেকে) মিসড কল পেলে সঙ্গে সঙ্গে কলব্যাক না করাই ভালো৷ কারণ কে জানে হয়ত ফোন ফ্রড অপরাধীরা এই কলটি করেছিলেন৷ আর আপনি কলব্যাক করতে যে টাকা খরচ করলেন তার একটি অংশ পেয়ে গেল অপরাধীরা! আরও তথ্য এবং সতর্ক হওয়ার উপায় জানতে উপরের ‘+’ চিহ্নে ক্লিক করুন৷

২০১৫ সালের আগ পর্যন্ত এই লেনদেন ফি (ইন্টারচেঞ্জ ফি) ইউরোপজুড়ে স্থানভেদে নানারকম ছিল৷ কিন্তু সেই সময় মাস্টারকার্ডের যে নিয়ম বহাল ছিল, সে মোতাবেক যে ব্যাংক কার্ড পেমেন্ট গ্রহণ করছে সেই ব্যাংকের উৎস দেশের বিদ্যমান হার ফি-তে প্রযোজ্য হতো৷ 

ইইউ কমিশনার বলেন, "ফলে ভোক্তা ও বিক্রেতাদের জন্য পণ্যের মূল্য বেড়ে যেতো৷ ব্যহত হতো ইউরোপের বাজারে আন্ত সীমান্ত প্রতিযোগিতা৷ আর তা অভিন্ন বাজারে কৃত্রিমভাবে শ্রেণীকরণ তৈরি করে৷''

কমিশন জরিমানার সিদ্ধান্ত ব্যখ্যা করে বলেছে, ‘‘কমিশন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, মাস্টারকার্ডের নিয়মের ফলে বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো স্বল্প ফি থেকে মুনাফা করতে পারেনি৷ এটি ইইউ ব্লকের দেশগুলোর বাজারে প্রতিযোগিতাকে সীমিত করেছে৷”

কমিশন এ-ও উল্লেখ করেছে যে, ইন্টারচেঞ্জ ফি রেগুলেশন বা লেনদেন ফি নিয়ন্ত্রন চালু হওয়ার পর মাস্টারকার্ড তাদের নিয়ম পরিবর্তন করলে চর্চাটি বন্ধ হয়৷

জরিমানার অঙ্ক আরো বেশি হওয়ার কথা থাকলেও মাস্টারকার্ড এর সহযোগিতাপূর্ণ আচরণের কারণে জরিমানা ১০ শতাংশ লাঘব করেছে ব্রাসেলস৷

এফএ/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ, এপি)